Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


November 10, 2018

KIFF now a true mass festival

KIFF now a true mass festival

There was a time when the Kolkata International Film Festival (KIFF) was known as an ‘intellectual’ event.

Mamata Banerjee changed things completely when she became chief minister. The mass leader that she was, she made KIFF an event for the masses but without compromising on quality. Varieties of films began to be shown – entertaining, middle-of-the-road, as well as of a higher order.

Mamata Banerjee brought the inauguration ceremony (which includes the inaugural film) to the Netaji Indoor Stadium – a 10,000-seater stadium.

Guests invited to the film festival acquired a much wider variety too. Popular film stars began to be invited, including to the inauguration and conclusion ceremonies. The participation of the local Tollywood film industry is now specially sought.

Another aspect of mass participation is ‘Parae Parae Cinema’ – wherein film shows are held on mobile vans in localities across Kolkata. It was introduced at the 2016 edition.

To increase and improve the quality of the participating films, a competition section was introduced. The Golden Royal Bengal Tiger Award was originally given to the best film by a woman director. From 2018, the competition section has been opened to all. To add to the interest this year, two Bengali films have been included to the competition section for the best international film.

This year, people of not just Kolkata but surrounding places too would be able to enjoy the best of international cinema, as PVR Avani (Riverside Mall) In Howrah and PVR Diamond City (Diamond City Mall) in Dum Dum have been added to the list of cinemas participating in the film festival. The number of show venues has also been increased to 16 this year.

The number of films is also increasing year by year. The 24th edition has 170 films from about 70 countries.

Last but not the least is the aspect of food. Kolkata is synonymous with love for good food. Now, the Nandan-Rabindra Sadan complex hosts several stalls set by well-known restaurants and food chains during the duration of the festival, and they are invariably chock-a-block.

Kolkata International Film Festival is now truly a mass event. Every year now, people wait eagerly for November 10 and bid a sad goodbye on November 17, looking forward to another beautiful bouquet of films the next year.


নভেম্বর ১০, ২০১৮

মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় চলচ্চিত্র উৎসব এখন জনসাধারনের

মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় চলচ্চিত্র উৎসব এখন জনসাধারনের

আজ কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধন হতে চলেছে। এই নিয়ে ২৪ বছরে পা দিল এই উৎসব। এবছরের বিশেষ চমক বাংলা সিনেমার ১০০ বছরপূর্তি।

২০১১ সাল পর্যন্ত কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব কুক্ষিগত ছিল কিছু মুষ্টিমেয় মানুষের জন্য। সাধারণ মানুষদের সেই অর্থে প্রবেশ অবাধ ছিল না। সাধারণের জন্য সিনেমাকে নন্দন ও রবীন্দ্র সদনের বাইরে যেতেও দেওয়া হত না। পুরো উৎসবে খুব কম সংখ্যক সিনেমা দেখানো হত। এই প্রথম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র বিভাগে দুটি বাংলা সিনেমা মনোনীত হয়েছে।

২০১১ সালে রাজ্যে ক্ষমতার পরিবর্তন হয়। জনসাধারনের বিপুল সমর্থনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের শাসনের মুখ্যমন্ত্রীর ভার গ্রহণ করেন। তিনি সাধারণ মানুষের দীর্ঘ দিনের এই চলচ্চিত্র উৎসবকে ঘিরে ক্ষোভকে মর্যাদা দিয়ে আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবকে নন্দন ও রবীন্দ্রসদন চত্ত্বর থেকে বার করে রাজ্যের পাড়ায় পাড়ায় পৌঁছে দিতে উদ্যোগী হন।

তাঁর উদ্যোগে এখন শহরের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব উৎসবের সিনেমা দেখানো হয়। এমনকি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানও নন্দন থেকে সরিয়ে ১০০০০ আসন বিশিষ্ট নেতাজী ইন্ডোর স্টেডিয়ামে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে চলচ্চিত্র উৎসবে শুরু হয়েছে প্রতিযোগিতামূলক বিভাগ।

এবছর হাওড়ায় পিভিআর অবনী এবং উত্তর ২৪ পরগনার দমদমে পিভিআর ডায়মন্ড সিটিতেও দেখানো হবে সিনেমা। তাছাড়া কলকাতার বসুশ্রী প্রেক্ষাগৃহেও এবছর সিনেমা দেখানোর ব্যবস্থা থাকছে।

পাড়ায় পাড়ায় চলমান ভ্যানে করেও সিনেমা দেখানো হয় উৎসবের সময়। এখন আক্ষরিক অর্থেই চলচ্চিত্র উৎসব হয়ে উঠেছে জনসাধারণের উৎসব।