Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


January 19, 2019

Sea of humanity at United India Rally

Sea of humanity at United India Rally

The historic Brigade Parade Grounds witnessed a historic rally where leaders of major Opposition parties of the country were present. From Kashmir to Kanyakumari, Arunachal to Gujarat – leaders came from every corner of the country.

Every leader gave a clarion call to oust the BJP from power at Centre in the upcoming Lok Sabha elections. For Mamata Banerjee’s speech on the occasion, click here.

Highlights of the speeches of national leaders:

Hardik Patel – Subhas Chandra Bose gave the clarion call – Give me blood , I shall give you freedom. We have to fight against the thieves. The people of this country will fight unitedly to drive out the goons of the country.

Jignesh Mevani – The country is going through a disaster. Our Constitution and democracy are under attack. In the last four and a half years farmers, labourers, tribals, minorities, the middle class- all are being oppressed. It is of utmost importance to put an end to the BJP and the RSS in the 2019 election.

Hemant Soren – The manner in which so many regional parties have assembled here today proves that we are with the people, and we have their trust too, and hence we will together be able to defeat the communal forces in the country.

Gegong Apang – We all believe in the Federal Front. State governments elected democratically are being oppressed. The leaders at the centre are playing divisive politics. The Citizen Amendment Bill is one of the example.

Pu Lalduhawma – The Citizen Amendment Bill has set ablaze the North Eastern States. This Bill is being used to cut off the North East from the country. I want to warn the Prime Minister, if this Bill is implemented there will be no peace left in this country.

Yashwant Sinha – This is not about a single person but a thought process. There is not a single agency in the country that has not been tampered with and has destroyed. That is the reason we are all here united to save the republic.

Arun Shourie – It is very important to get rid of the Government at the Centre because no other government in the past have spreads so much lies. No other Government had tried to to destroy agencies like the CBI, the Reserve Bank of India, the Election Commission, the judiciary and the Parliament.

Sharad Yadav – The country is in distress. Farmers are worst sufferers. People of the country have lost hope. Businessmen have suffered because of GST. The country has suffered a setback because of demonetisation. The country is going through an undeclared emergency. We have to bring back freedom.

Jayant Chaudhury – What Bengal thinks today, India thinks tomorrow. I Thank Didi because, what she did today, is very difficult. If you have to bring Acche Din, you will have to get rid of Modi. The people of Uttar Pradesh will work hand in hand with the people of Bengal to drive out the BJP from the country.

Satish Mishra: All over the country, there is only one cry – the NDA cannot be tolerated any longer. This Central Government has to be ousted as soon as possible. To save the Constitution, the BJP-led government must must be thrown out of power.

HD Kumaraswamy: Today we are witnessing a system where our democratic government is headed by undemocratic, anti-constitutional leaders at the Centre who do not respect or respond to the people’s aspirations. It is really unfortunate that the Union government has turned blind and deaf to the plight of the common man.

Farooq Abdullah – The country attained freedom because of the selfless sacrifice of people from all religion, speaking all languages. And after 70 years of independence, people are being divided in the name of religion. Divisions are being created between Muslims, Hindus, Sikhs, Bengalis and others. Assam is on fire. There are troubles in Manipur, Nagaland and other places. We have to make sacrifices to save this country.

Arvind Kejriwal – Today marks an important day in the political history of India. Narendra Modi and Amit Shah has have destroyed this country. People of the country are tired of these too. Youth do not have job. 1.25 crore people have lost their job because of demonetization.

Farmers have committed suicide. We need to drive this duo out of this country. BJP has a dangerous plan. They want to destroy the democracy. 2019 will be an election to drive out Modi and Amit Shah. I am sure that Modi and Amit Shah will be driven out and good times will return.

Chandrababu Naidu: We all have one aim: Save the country, save democracy. Whereas we want to keep the country united, they want to break it up into pieces.
Five years ago the BJP came to power and from that time on, they have only been giving speeches. This is because there is a prime minister who believes only in publicity, and not doing any work. We want a prime minister who would work for the poor, for all classes of people. That’s why we have all assembled here today.

MK Stalin: Even a few months back, Modi ji used to say that I don’t have any opposition, and now, speaking cuss words in exasperation in speeches. Seeing all of us getting together, he has realised that defeat is inevitable. Before coming to power, he had made a lot of promises, but now bringing disaster after disaster for the people.

Akhilesh Yadav: Who will become the next prime minister? I will say, whoever the people will decide to be. This has happened before and will happen again. The BJP has allied with many – with the CBI, the ED. However we have allied with the people of the country. And always, in a democracy, whatever the people decide ultimately happens.

Dr AM Singhvi: The cloud of misrule is over; a rainbow coalition is forming. By whatever name you call it, the time has come to form a coalition. The Modi Government no longer listens to the people. We have to come together to prevent the division of votes.

Mallikarjun Kharge: The upcoming Lok Sabha election is not just any other election. It is a fight to save democracy in our country, and to save the rule of the Constitution, from the forces which are out to destroy them.

Sharad Pawar: We will all work together. The BJP leaders are saying that this coalition will not hold, that it will break down on the issue of prime minister. Let me tell you all, we the leaders have not come here to decide who will become the prime minister but to save the common people and the farmers, to decide on how to re-employ the unemployed, to protect the women, the Dalits and the minorities.

HD Deve Gowda: After the formation of the coalition government at the Centre, out first job would be to decide how to do good work. The people want a new government, one that will protect the democratic rights of the people and the impartiality of the constitutional bodies. We need the coalition government to remove Prime Minister Narendra Modi from power and create a strong nation.

Shatrughan Sinha: Such a big public meeting is rarely seen elsewhere, something that Bangla has proudly accomplished. If you refrain from telling the truth, then the people will say, “Chowkidar chor hain” (The guard himself is a thief). You have not done anything worth being called “Made in India” and as long as you don’t do any such thing, the people will continue to taunt with “Made in China.”

Tejaswi Yadav: If you unite with them, you will become Raja Harishchandra but if you oppose them, they will put the CBI and the ED up against you. They are punishing my father by imprisoning him. But we will not bow down to any pressure. We want to save the country.

 


জানুয়ারী ১৯, ২০১৯

ব্রিগেডের সমাবেশে ঐক্যবদ্ধ ভারত

ব্রিগেডের সমাবেশে ঐক্যবদ্ধ ভারত

ঐতিহাসিক ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে আজ ঐক্যবদ্ধ ভারতের খন্ডচিত্র দেখল দেশ। কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী, অরুণাচল থেকে গুজরাট – উপস্থিত ছিলেন তাবড় তাবড় রাজনৈতিক দলের নেতারা।

একযোগে সকলেই আজ আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে উৎখাত করার ডাক দিয়েছেন।

দেখে নিন এক নজরে:

হার্দিক প্যাটেল – সুভাষ চন্দ্র বসু বলেছিলেন, তোমরা আমাকে রক্ত দাও, আমরা তোমাদের স্বাধীনতা দেব। আমাদের সকলকে লড়তে হবে চোরেদের বিরুদ্ধে। তবেই আমরা দেশকে বাঁচাতে পারব। দেশের গুন্ডাদের তাড়াতে এই জনতা একসঙ্গে লড়বেন।

জিগ্নেশ মেভানি – আমাদের দেশ এই মুহূর্তে চরম দুর্দশার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। আমাদের সংবিধান ও গণতন্ত্র আক্রান্ত। ২০১৯ সালের ভোটে বিজেপি ও আরএসএস কে শেষ করা খুব গুরুত্বপূর্ণ কাজ। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই উদ্যোগ শুরু করেছে, তাই তাঁকে ধন্যবাদ।

হেমন্ত সোরেন – আজ এখানে প্রচুর আঞ্চলিক দল উপস্থিত আছে। এতে বোঝা যায় আমরা দেশের জনগনের পাশে আছি। আগামীদিনে আমরা সব আঞ্চলিক দল এই সাম্প্রদায়িক শক্তিকে হারাতে পারব।

গেগং আপাং – গত চার বছরে দেশের গণতন্ত্র সব থেকে বিপদের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে অত্যাচার করা হচ্ছে। দিল্লীর নেতারা দেশকে ভাগ করছেন। সিটিজেন অ্যামেন্ডমেন্ট বিল একটি উদাহরণ।

পু লালডুয়ামা – সিটিজেন অ্যামেন্ডমেন্ট বিলের জন্য উত্তর-পূর্ব ভারত জ্বলছে। এই বিলের মাধ্যমে উত্তর-পূর্ব ভারতকে দেশ থেকে আলাদা করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীকে সাবধান করতে চাই, এই বিল লাগু করা হলে ভারতবর্ষ আর শান্তিতে বসবাসের জায়গা থাকবে না।

যশবন্ত সিনহা – এই সমাবেশ কোনও ব্যক্তিকে হারানোর জন্য না, এটা একটা ভাবনা, একটা বিচার ধারার ভাবনা। সেই জন্যে আমরা একত্রিত হয়েছি। আজ দেশে এমন কোনও সংস্থা নেই যাতে কেন্দ্রীয় সরকার হস্তক্ষেপ করেনি, সবকটাকে বরবাদ করেছে। আর সেই জন্যই প্রজাতন্ত্র রক্ষা করার জন্যে আমরা একত্রিত হয়েছি।

অরুণ শৌরি – এই সরকারকে বরখাস্ত করতে হবে এর মধ্যে তো সন্দেহ নেই কারণ এর আগে কোনও সরকার এত মিথ্যে কথা প্রচার করেনি। এর আগে কোনও সরকার, সিবিআই, আরবিআই, নির্বাচন কমিশন, বিচার ব্যবস্থা, সংসদ, সব রকম সংস্থাকে তছনছ করে দেয়নি।

শরদ যাদব – দেশ সংকটে আছে। কৃষকরা শেষ হয়ে গেছে। আজ দেশবাসী হতাশ। যুবকরা কাজ পাচ্ছে না। জিএসটির কারণে ব্যাবসায়ীরা শেষ হয়ে গেছে। নোটবন্দীর কারণে দেশের অর্থনীতি অনেক পিছিয়ে গেছে। দেশে অঘোষিত জরুরী অবস্থা চলছে, দেশকে আবারও স্বাধীন করতে হবে।

জয়ন্ত চৌধুরী – আচ্ছে দিন আনতে হলে, মোদিকে ভাগাতে হবে। আমি মমতা দিদিকে বলতে চাই দেশের ভরসা আপনার উপর সব সময় থাকবে। সারা দেশের মানুষ হাতে হাত মিলিয়ে বিজেপিকে ভারত থেকে ছুঁড়ে ফেলো দেবে।

সতীশ মিশ্র – আজ দেশের প্রতি প্রান্ত থেকে একটাই আওয়াজ উঠছে, এনডিএ-র সরকারকে আর সহ্য করা যাচ্ছে না। এই কেন্দ্রীয় সরকারকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অপসারিত করতে হবে। সংবিধানকে বাঁচাতে হলে এই বিজেপি সরকারকে সরাতে হবে।

এইচ ডি কুমারস্বামী – আজকে আমরা দেখছি সরকার চালাচ্ছে অগণতান্ত্রিক, অসাংবিধানিক নেতাদের দ্বারা। এটা দুর্ভাগ্যজনক যে কেন্দ্রীয় সরকার মানুষের কষ্টের ব্যাপারে অন্ধ ও বধির হয়ে গেছে।

ফারুক আবদুল্লা – দেশের সব ধর্মের, ভাষার মানুষের আত্ববলিদানে দেশ স্বাধীন হয়েছে, আর ৭০ বছর পর ভারতে আবার চ্যালেঞ্জ আসছে, আজকে লোকদের ধর্মের নামে ভাগ করা হচ্ছে, মুসলমানদের আলাদা, হিন্দুদের আলাদা, শিখদের আলাদা, বাঙালিদের আলাদা সবাইকে আলাদা করা হচ্ছে। আসামে আগুন জ্বলছে, মণিপুর নাগাল্যান্ড সব জায়গায় লড়াই লাগিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এই দেশকে বাঁচানোর জন্য প্রত্যেককে বলিদান দিতে হবে।

অরবিন্দ কেজরিওয়াল – গত পাঁচ বছরে নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ দেশকে শেষ করে দিয়েছে। দেশবাসী এই দুজনের কাছে উত্যক্ত। দেশের যুবরা কর্মহীন। নোটবন্দীর জন্য দেশের ১.২৫ কোটি মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। কৃষকরা আত্মহত্যা করছে। এই জুটিকে সরকার থেকে উৎখাত করতে হবে। বিজেপির উদ্দেশ্য খুব ভয়ঙ্কর। ওরা দেশের গণতন্ত্র সম্পূর্ণ ধ্বংস করতে চায়। ২০১৯ সালের ভোট মোদী ও শাহকে তাড়ানোর ভোট। আমি আজ নিশ্চিত মোদী ও অমিত শাহ বিদায় হবে এবং দেশের সুদিন ফিরবে।

চন্দ্রবাবু নাইডু – আমাদের একটাই অঙ্গীকার – দেশ বাঁচাও, গণতন্ত্র বাঁচাও। আমরা দেশকে ঐক্যবদ্ধ রাখতে চাই আর ওরা সেটাকে টুকরো টুকরো করতে চায়। পাঁচ বছর আগে বিজেপি ক্ষমতায় এসেছিল আর তারপর থেকে ওরা শুধু স্লোগানই দিয়েছে। তার কারণ এই প্রধানমন্ত্রী প্রচার সর্বস্ব, কাজ জানেন না।আমরা কাজের প্রধানমন্ত্রী চাই যিনি দেশের গরীবদের জন্য কাজ করবেন, সর্বস্তরের মানুষের জন্য করবেন।

MK Stalin – কয়েকমাস আগেও পর্যন্ত মোদীজি বলতেন, আমার কোনো বিরোধী নেই, আর এখন বক্তৃতা দিতে গিয়ে গালাগালি দিচ্ছেন। আমরা একসাথে হয়ে গেছি দেখে উনি বুঝে গেছেন পরাজয় নিশ্চিত। ক্ষমতায় আসার আগে উনি বলতেন এটা দেবো, ওটা দেবো, কিন্তু ক্ষমতায় আসার পর সাধারণ মানুষের একের পর এক সর্বনাশ করে যাচ্ছে।

অখিলেশ যাদব – প্রধানমন্ত্রী কে হবেন? আমি বলব, জনতা যা সিদ্ধান্ত নেবে সেটাই হবে। আগেও হয়েছে, আবার হবে। বিজেপি অনেক সংস্থার সাথে জোট করছে, সিবিআই এর সাথে, ইডি-র সাথে। কিন্তু আমরা জনগনের সাথে জোট করে নিয়েছি। আর লোকতন্ত্র যা সিদ্ধান্ত নেয় সেটাই হয়।

Dr AM Singhvi – অপশাসনের মেঘ কেটে গেছে, বিভিন্ন দলের রামধনু জোট হচ্ছে। যে নামেই ডাকুন না কেন, একত্রিত হওয়ার সময় এসে গেছে। জনতার পুকার আর চাই না মোদী সরকার। সবাই মিলে ভোট বিভাজন আটকাতে হবে।

মল্লিকার্জুন খার্গে – আসন্ন লোকসভা নির্বাচন কোনও সাধারন নির্বাচন না, এই নির্বাচন দেশের গণতন্ত্র রক্ষার লড়াই এবং যে শক্তি দেশের সংবিধানকে নষ্ট করতে চাইছে, সেই অপশক্তিকে দূর করার লড়াই।

শরদ পাওয়ার – আমরা সবাই একসাথে কাজ করবো। বিজেপির লোকজন বলছে, এই জোট থাকবে না, প্রধানমন্ত্রী পদ নিয়েই এই জোট ভেঙে যাবে। আমি আপনাদের বলছি, আমরা এখানে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য আসিনি, এসেছি একজোট হয়ে আপনাদের রক্ষা করার জন্য, আমরা কৃষককে রক্ষা, বেকারদের ভবিষ্যৎ ঠিক করতে। সমস্ত মহিলা, দলিত এবং সংখ্যালঘুদের রক্ষা করতে।

HD Deve Gowda – জোট সরকার গঠনের পর আমাদের প্রথম কাজ হবে, কিভাবে ভালো কাজ করা যায়। মানুষ চায় নতুন সরকার, যে মানুষের গণতান্ত্রিক ক্ষমতাকে রক্ষা করবে, সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলির নিরপেক্ষতা রক্ষা করবে। এই দেশের প্রধাণমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে সরিয়ে শক্তিশালী জাতি গঠন করার জন্য জোট সরকার গঠন করা জরুরী।

শত্রুঘ্ন সিনহা – এত বড় সভা অন্য যায়গায় দেখা যায় না। এটা বাংলা করে দেখিয়েছে। সত্যি কথা বলা থেকে যদি মুখ লুকান তাহলে কিন্তু দেশের জনগণ বলবে “চৌকিদার চোর হায়”। মেইড ইন ইন্ডিয়ার নামে কিছুই করেনি আর যতদিন করবেন না ততদিন লোকে বলবে মেইড ইন চাইনা।

তেজস্বী যাদব – ওনাদের সাথে হাত মিলিয়ে নিলে আপনি রাজা হরিশচন্দ্র হয়ে যাবেন। কিন্তু যদি ওদের বিরুদ্ধে করেছেন তো, আপনাদের বিরুদ্ধে সিবিআই, ইডি লেলিয়ে দেবে। আমার বাবাকে জেলে ভরে শাস্তি দিচ্ছে। কিন্তু আমরা মাথা নত করবো না। আমরা দেশকে বাঁচাতে চাই।