Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


January 11, 2019

Centre did not construct Concrete Bridge at Gangasagar, despite promise: CM

Centre did not construct Concrete Bridge at Gangasagar, despite promise: CM

Bangla Chief Minister Mamata Banerjee today visited the camps for pilgrims, who are going to Gangasagar. She said, “Irrespective of religion, caste, creed or language, we all work together. This is the culture of our State.”

It may be mentioned that earlier pilgrims had to pay a tax to visit Gangasagar. It was abolished after Trinamool came to power.

The CM said, “When I visited Gangasagar in the past, it was in shambles. There was no infrastructure. We have undertaken massive renovation projects. We have renovated the temple complex, constructed cottages for tourists and pilgrims, new roads, renovated the ghats. We have constructed youth hostels. Earlier going to Gangasagar was difficult, but now we are taking care of the security and comfort of tourists and pilgrims.”

The Centre has not kept its promised of constructing an iron bridge at Gangasagar. Expressing her angst, the CM said: “We had asked the Centre to construct a port at Tajpur. They agreed to do so, but wanted 74% stake. We were ready to give it, if they built a concrete or iron bridge at Gangasagar. Four years have passed, but nothing has happened. We have decided that we will build the bridge on our own. It will cost Rs 1,500 crore, and will take time. But we will do it for the convenience of people.”


জানুয়ারী ১১, ২০১৯

চার বছরেও কেন্দ্র গঙ্গাসাগরে লোহার সেতু তৈরী করেনি: মুখ্যমন্ত্রী

চার বছরেও কেন্দ্র গঙ্গাসাগরে লোহার সেতু তৈরী করেনি: মুখ্যমন্ত্রী

আজ বাবুঘাটে গঙ্গাসাগরগামী পুণ্যার্থীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, আমাদের রাজ্যের পরম্পরা হল আমরা ধর্ম, বর্ণ, ভাষা, দলমত নির্বিশেষে সকল রাজ্যবাসী মিলেমিশে কাজ করি।

উল্লেখ্য, এর আগে গঙ্গাসাগর মেলায় যেতে কর দিতে হত। তৃণমূল সরকার এসে সেই কর মুকুব করে দিয়েছে।

মুখ্যমন্ত্রীর মতে, “এর আগে যখন গঙ্গাসাগর গেছিলাম, দেখেছিলাম ওখানকার কি করুণ অবস্থা। কারোর থাকার জায়গাও ছিল না, বিশ্রামের জায়গা ছিল না। আমাদের সরকার গত কয়েক বছরে ওখানে বিপুল সংস্কার করেছে। মন্দির সংস্কার হয়েছে, অতিথিশালা তৈরী করা হয়েছে। নতুন রাস্তা করা হয়েছে, ঘাট বাঁধানো হয়েছে, নতুন যুব আবাস তৈরী হয়েছে, কটেজ তৈরী হয়েছে। গঙ্গাসাগর-বকখালি উন্নয়ন পর্ষদ গঠন করা হয়েছে। এখন গঙ্গাসাগরে আসতে মানুষের অসুবিধে হয় না। রাজ্য সরকার মেলায় আগতদের নিরাপত্তা এবং স্বাচ্ছন্দ্যের ওপর নজর রাখে।”

গঙ্গাসাগরে কেন্দ্রীয় সরকার একটি লোহার সেতু নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েও তা পালন করেনি। সেই বিষয়ে উষ্মা প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, “কেন্দ্রীয় সরকারকে আমরা তাজপুরে একটা বন্দর তৈরী করতে বলেছিলাম। কেন্দ্র বন্দরের ৭৪ শতাংশ স্টেক চাইছে। তখন আমরা বললাম, সেটা দিতে পারি যদি আপনারা গঙ্গাসাগরে একটা লোহা বা কংক্রিটের সেতু তৈরী করে দেন। চার বছর হয়ে গেল, এখনও করেনি। রাজ্য সরকার ঠিক করেছে, কিছু সময় লাগবে, ডিপিআর তৈরী করতে হবে, ১,৫০০ কোটি টাকার বেশী জোগাড় করতে হবে। কিন্তু, সেতু নিজেরাই করব, যাতে ভবিষ্যতে গঙ্গাসাগরে আগত পুন্যার্থীদের কোনও অসুবিধা না হয়।”