Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


January 27, 2019

Huge response to paddy procurement by State Govt

Huge response to paddy procurement by State Govt

The Bangla Government’s paddy procurement scheme has got a huge response across the State, leading to an eight-fold increase in procurement compared to last year.

In the last kharif season, the State Government procured 27,000 tonnes of paddy from farmers, while during the 2018-19 kharif marketing season (KMS), 2.14 lakh tonnes have already been bought.

The primary reason for this overwhelming response is the minimum support price (MSP) set by the government, which is Rs 300 more per quintal compared to the open market.

Seeing the huge response, the government has revised upward its total procurement target to 52 lakh tonnes.

Now, to enable everyone to sell their paddy, or at least a part of it, depending on a farmer’s production and the government’s reaching its set target of 52 lakh tonnes, a limit of 90 quintals per farmer has been set. Thus, even the most marginalised of farmers would be le to sell their production.

Source: Bartaman


জানুয়ারী ২৭, ২০১৯

সরকারের কাছে ধান বিক্রিতে ব্যাপক সাড়া, গতবারের তুলনায় এখনই প্রায় আটগুণ বৃদ্ধি

 সরকারের কাছে ধান বিক্রিতে ব্যাপক সাড়া, গতবারের তুলনায় এখনই প্রায় আটগুণ বৃদ্ধি

সরকারের কাছে ধান বিক্রি করার জন্য চাষিদের আগ্রহ এবার চোখে পড়ার মত। গত খরিফ মরশুমে এই সময় পর্যন্ত সরকারি উদ্যোগে মাত্র ২৭ হাজার টন ধান কেনা হয়েছিল। এবার এক মাসেই সেই পরিমাণ পৌঁছেছে ২ লক্ষ ১৪ টনে।

খোলাবাজারের তুলনায় সরকারের কাছে ধান বিক্রী করলে কুইন্টালে প্রায় তিনশো টাকা বেশী মিলছে। তাই স্বাভাবিকভাবে চাষিরা বেশী ধান বিক্রী করতে সরকারের কাছেই যাচ্ছেন। এই প্রবণতা আগামী দিনে আরও বাড়বে, এটা বুঝতে পেরে সরকার আগাম উদ্যোগ নিতে শুরু করেছে।

সরকারি উদ্যোগে ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা এবার ধার্য করা হয়েছিল ৫২ লক্ষ টন। এই পরিমাণ আরও বাড়ানোর জন্য নবান্নে প্রস্তাব পাঠানো হবে বলে জানান খাদ্যমন্ত্রী। যে চাষিরা আসবেন, তাঁদের সবার কাছ থেকে ধান কেনা হবে। ধান থেকে উৎপাদিত চাল মজুত করার জন্য আরও গুদাম ভাড়া নিচ্ছে দপ্তর। কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থা এফসিআই যাতে বেশি পরিমাণ চাল রাজ্য থেকে নেয়, সেই উদ্যোগও চলছে।

গত খরিফ মরশুমে মোটা ধানের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য ছিল প্রতি কুইন্টালে ১৫৫০ টাকা। এবার তা দু’শো টাকা বেড়ে ১৭৫০ টাকা হয়েছে। সরকারি ক্রয়কেন্দ্রে গিয়ে ধান বিক্রী করলে আরও ২০ টাকা করে দিচ্ছে রাজ্য সরকার। সেখানে এখন খোলাবাজারে মোটা ধান ১৪৫০ টাকা কুইন্টাল দরের আশপাশে বিক্রী হচ্ছে। দামের এই ফারাকের জন্য সরকারের কাছে ধান বিক্রী করছেন কৃষকরা।