Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


January 23, 2019

One who can take everyone along is the one fit to lead the country: Mamata Banerjee in Darjeeling

One who can take everyone along is the one fit to lead the country: Mamata Banerjee in Darjeeling

Every year from 2014, on January 23, the State Government is celebrating the birth anniversary of Netaji Subhas Chandra Bose in Darjeeling.

Netaji had stayed for some time in Darjeeling. That is why Chief Minister Mamata Banerjee had decided to celebrate his birth anniversary there, in the form of a festival sha named Subhas Utsab.

Across Bangla, in every block, town and city, the festival is being celebrated through cultural programmes like sit-and-draw and essay-writing competitions, quiz shows and debates, and songs and dance shows.

The State Government has allocated Rs 10 lakh for the renovation of the house in Darjeeling where Netaji had stayed. The government has also declassified the secret files that it had.

On the occasion of the birth anniversary, Mamata Banerjee spoke at a government function in Darjeeling.

Salient points of her speech:

In 1936, Netaji had led the freedom struggle from Kurseong. In memory of that, our government had decided celebrate his birth anniversary here every year.

We are also celebrating in Kolkata, where the other ministers of the government are participating.

The slogan ‘Jai Hind’ is synonymous with Netaji, ‘Vande Mataram’ was coined by Bankim Chandra, while our national anthem was written Rabindranath Tagore.

In times of danger, it has always been Bengal that has showed the way. It was in Bengal that India’s struggle for independence started.

Subhas Chandra Bose formed the Indian National Army, in which Gorkhas from Nepal had enlisted. The first planning commission in India was also set up by him.

The one who can take everybody along, who can give his life for the country is the one who is fit to lead the country.

The one who is intent on breaking the nation up into pieces, creating divisions among its people can never lead it.

They have not done any work, have done nothing for the betterment of the people in the Hills region. They only make promises before elections which forget soon after.

It is sad that the Central Government has still not announced Netaji’s birth anniversary as a national holiday; the Bangla Government has already done so.

It is indeed sad and a matter of shame that even after so many years after independence, the death of Netaji has remained a mystery.

A secretariat for north Bengal has been constructed in Siliguri, a university has been set up – whatever needs to be done for the people of the Hills, we are doing. After the Lok Sabha elections, we will have a detailed discussion on the GTA.

The Bangla Government has set up 16 development boards, for which a total of Rs 625 crore has been allotted.

We do real development. We are committed to the development of the Hills.

 


জানুয়ারী ২৩, ২০১৯

সবাইকে নিয়ে যে চলতে পারে সেই দেশের নেতা: নেতাজীর জন্মবার্ষিকী অনুষ্ঠানে বললেন মুখ্যমন্ত্রী

সবাইকে নিয়ে যে চলতে পারে সেই দেশের নেতা: নেতাজীর জন্মবার্ষিকী অনুষ্ঠানে বললেন মুখ্যমন্ত্রী

২০১৪ সাল থেকে রাজ্য সরকার সরকারি ভাবে প্রতি বছর ২৩শে জানুয়ারি দার্জিলিঙে নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুর জন্মবার্ষিকী পালন করে।

দার্জিলিঙে নেতাজী বেশ কিছুদিন থেকে ছিলেন। সেই কারণেই মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নেন সরকারিভাবে রাজ্যস্তরের ‘সুভাষ উৎসব’ পাহাড়ে অনুষ্ঠিত করার।

নেতাজীর জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে সারা রাজ্যজুড়ে ব্লকে ব্লকে বসে আঁকো, প্রবন্ধ লেখার প্রতিযোগিতা, পদযাত্রা, প্রদর্শনী, ক্যুইজ ও বিতর্কসভার আয়োজন করা হয়েছে যুব কল্যাণ দপ্তরের উদ্যোগে।

নেতাজী পাহাড়ে যে বাড়িতে থাকতেন তা সংস্কারের জন্য রাজ্য সরকার ১০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ করেছে এবং নেতাজীর ফাইলও প্রকাশ করেছে রাজ্য সরকার।

আজ দার্জিলিঙে নেতাজীর জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে সরকারি এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের কিছু বিষয়ঃ

১৯৩৬ সালে নেতাজি কার্শিয়াঙ থেকে স্বাধীনতা আন্দোলন চালিয়েছিলেন তাই আমরা ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দার্জিলিঙে এসে পাহাড়বাসীর সঙ্গে একসাথে নেতাজির জন্মবার্ষিকীতে তাঁকে শ্রদ্ধাঞ্জলি দিই।

কলকাতাতেও আমরা পালন করছি, ওখানে আমাদের সরকারের অন্যান্য মন্ত্রীরা আছেন

জয়হিন্দ ধ্বনি সুভাষ চন্দ্র বোসের, বন্দেমাতরম বাংলার বঙ্কিম চন্দ্রের লেখা, আমাদের জাতীয় সঙ্গীত রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখা

দেশের সংকটে বাংলাই সর্বদা পথ দেখায়। বাংলার মাটিতেই প্রথম স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু হয়

সুভাষ চন্দ্র বোস ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল আর্মি গঠন করেছিলেন, সেখানে নেপালিদের গোর্খারা ভাগ নিয়েছিলেন। সুভাষ চদ্র বোস প্ল্যানিং কমিশন গঠন করেছিলেন

সবাইকে নিয়ে যে চলতে পারে, যে দেশের জন্য শহীদ হয়েছে, সেই দেশের নেতা

যে নেতা দেশকে টুকরো করে সে দলের নেতা, সে কখনোই দেশের নেতা হতে পারে না

যারা দেশের মধ্যে ভাগাভাগি করে, মানুষের মধ্যে বিভেদ করে তাদের আমরা দেশের নেতা মানি না

একটা কাজও করে না ওরা, পাহাড়ের কোন উন্নয়ন করেনি, ভোট এলেই শুধু প্রতিশ্রুতি দেয়, ভোটের পর সব ভুলে যায়

নেতাজির জন্মদিনে রাজ্য সরকার ছুটি ঘোষণা করে কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার এখনও জাতীয় ছুটি ঘোষণা করেনি, এটা দুঃখের বিষয়

স্বাধীনতার এতো বছর পর আজও নেতাজির মৃত্যু রহস্যজনক, এটা দুঃখের বিষয়, লজ্জার বিষয়

শিলিগুড়িতে পাহাড়ি ভবন হচ্ছে, একটা বিশ্ববিদ্যালয়ও করা হয়েছে, পাহাড়ের ভাইবোনেদের ভাল রাখার জন্য যা যা করার দরকার সব কাজ আমরা করব। লোকসভা ভোটার পর জিটিএ চুক্তির আলোচনা হবে

আমরা ১৬টি উন্নয়ন বোর্ড বানিয়েছি, ৬২৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে

আমরাই প্রকৃত উন্নয়ন করি, পাহাড়ের উন্নয়ন আমাদের প্রাথমিক কাজ