Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


November 28, 2018

Bangla Govt offers 2% subsidy on farm loan interest

Bangla Govt offers 2% subsidy on farm loan interest

5The Bangla Government has decided to disburse farm loans at a curtailed interest rate of 2 per cent through cooperative banks and cooperative societies. The rate was 4 per cent earlier.

This was announced by the State Cooperation Minister at a programme recently. Loans amounting to Rs 7,000 crore will be distributed among farmers. Last year, the quantum of farm loans was Rs 5,200 crore.

The government decided to increase the quantum of farm loan through the cooperative banks and societies as farmers in remote areas often do not get loans from commercial banks, said the minister.

The total amount of Rs 7,000 crore would be distributed by March 2019. The government has assured the cooperative banks that it would shoulder the responsibility of paying them the amount that would be required to decrease the interest rate on farm loans.

A senior official of the Cooperation Department said that there are 710 gram panchayat areas which have no banks, and so the State Government recently decided to allow 2,661 cooperative societies to work as branches of cooperative banks. As a result, many more farmers would be brought under the banking net.

The government has also decided to disburse loans worth Rs 1,200 crore among self-help groups through the cooperative banks and societies. Last year, the amount was Rs 1,000 crore.


নভেম্বর ২৮, ২০১৮

কৃষকঋণের সুদে ২ শতাংশ ছাড় রাজ্যের

কৃষকঋণের সুদে ২ শতাংশ ছাড় রাজ্যের

শুধু কৃষিঋণ মকুব নয়, কৃষকদের ঋণের সুযোগ পাইয়ে দিতে রাজ্য সরকার এ বার সুদের উপরেও ২ শতাংশ ভর্তুকি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল। রাজ্যের সমবায়মন্ত্রী এ কথা বলেন। সমবায় ব্যাঙ্কের মাধ্যমে বিলি করা ১২ লক্ষ কিষাণ ক্রেডিট কার্ড হোল্ডারদের এই সুবিধা দেওয়া হবে। এ জন্য চলতি আর্থিক বছরেই এই ভর্তুকি দিতে রাজ্য সরকার ৪৯ কোটি ৯৯ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা বরাদ্দ করেছে।

সমবায় ব্যাঙ্কগুলির মাধ্যমে এই কার্ড বিলির উদ্যোগ নেয়। এই কিষাণ ক্রেডিট কার্ডে নেওয়া ঋণের জন্য কৃষককে ৭ শতাংশ হারে সুদ দিতে হয়। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কার্ডের মাধ্যমে নেওয়া ঋণ পরিশোধ করতে পারলে ৩ শতাংশ সুদ ছাড়া দেওয়া হয়। অর্থাৎ, চার শতাংশ হারে ঋণ পরিশোধ করতে পারে।

গত বছর রাজ্যের সমবায় ব্যাঙ্কগুলির মাধ্যমে ৫২ হাজার কোটি টাকা কৃষিঋণ দেওয়া হয়েছিল। চলতি বছরে এর লক্ষ্যমাত্রা স্থির হয়েছে ৭ হাজার কোটি টাকা। কৃষকদের আর্থিক স্বাস্থ্য ফেরাতেই সমবায় ব্যাঙ্কগুলির মানোন্নয়নে বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

শুধু ঋণ নয়, গ্রামোন্নোয়নে গতি আনতে সমবায় দপ্তর থেকেই প্রতিটি জলায় ও ব্লকে কাস্টমার সার্ভিস পয়েন্টের নামে এটিএম পরিষেবা চালু করা হচ্ছে। প্রতিটি সমবায় কৃষি উন্নয়ন সমিতিতে এই কেন্দ্র খোলা হচ্ছে। এ জন্য পরিকাঠামো বিকাশে ১৫ লক্ষ টাকা দেবে রাজ্য সমবায় দপ্তর। ২৬৩১ এলাকায় এই পরিষেবা দেওয়া হবে। রাজ্য সমবায় ব্যাঙ্ক এই এটিএমগুলি চালাবে। ইতিমধ্যেই আড়াইশো কেন্দ্র চালু হয়েছে। যাতে কৃষক সহজেই তাদের টাকা এটিএম থেকে তুলতে পারে।

এখনও রাজ্যের ৭১০টি গ্রামে কোনও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের পরিষেবা নেই। মুখ্যমন্ত্রী এই গ্রামগুলিতে সমবায় ব্যাঙ্কের পরিষেবা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেই মতো ৭০টি গ্রামে সমবায় ব্যাঙ্কের পরিষেবা চালু করা হয়েছে। শীঘ্রই আরও ৫০টি গ্রামে এই পরিষেবা চালু হবে।

কৃষিঋণ নিয়ে সারা দেশেই কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকারের ভূমিকায় ক্ষোভ বেড়েছে। বহু কৃষক ঋণের জালে আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছে। সেই সময়ে মুখ্যমন্ত্রী কৃষকস্বার্থে যে উদ্যোগ নিয়েছেন, তা নজর পড়ার মতো।

সৌজন্যেঃ এই সময়