Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


November 25, 2018

Freewheeling chat with Dr Amit Mitra

Freewheeling chat with Dr Amit Mitra

A freewheeling chat with Dr Amit Mitra, the Minister of Finance, Commerce, Industries and IT, West Bengal Government

On current political scenario in India:

In terms of political economy, the country is going through dangerous times. I would submit that this is a (Central) government that has many kinds of failures. In psychological terms, it’s a government of bravado — chest-thumping, hit-and-miss processes, and disastrous decisions taken without consultation. The impact of this has been severe on sectors of the economy and people. On demonetisation, one senior BJP leader told me, ‘We are going to shift base — from the traditional RSS base of small traders to the poor… Demonetisation will bring antagonism between the poor and the relatively better off.’ The notion was to create a vote bank of the poor by antagony… between the relatively better-off and the working class.

On silence of corporates on demonetisation:

A very senior corporate person told me the other day that he has 31 cases against him. He is known to be transparent. Today, there is a psychosis of fear not only among corporates but also among chambers of commerce. ASSOCHAM had initially said that demonetisation was dangerous. But the next day the secretary general said, ‘Demonetisation was fine.’ I was told that the secretary-general was called from the appropriate office and told that ‘From tomorrow, no minister would go to any programme of ASSOCHAM.’ That meant the chamber would not be able to hold policy events. He was also told that international delegations would not visit the chamber. He cowed down. And within a month, he was removed.

In one chamber of commerce meeting held in Kolkata behind closed doors, I said, ‘The GST has an arrest clause. Why doesn’t the chamber stand up and talk about it?’ Not a single body has said the clause is a problem… The fear psychosis emanates like rays, one of which has hit the corporates, and another the chambers.

On cooperative federalism:

The Centre collects taxes from states and then returns a part of it. That’s a part of federalism. The devolution was raised from 32 per cent to 42 per cent by the 14th Finance Commission. But the same year, the Union Budget cut off (funds for) 58 projects (fully sponsored by the Centre), which includes police training and the Integrated Child Development Services. There is another category of projects where states have to pay a proportion. In 28 such projects, the proportion has been increased. On the one hand you give 10 per cent more in devolution, on the other, you take away.

Also, there is a council of states. It held a token meeting about six months ago and a proper meeting about two years ago… Then there was the Planning Commission, where we used to go and argue about allocation (of funds). Now the Commission is not there. That’s the federalist structure that is missing.

Today, Bangla has bills worth Rs 10,000 crore to be paid by the Centre. If these bills are not cleared in time, we will have to borrow from the market and the debt will go up. Bangla Chief Minister Mamata Banerjee has written a letter to the PM about the problems that need to be addressed. According to a DIPP (Department of Industrial Planning and Promotion)-World Bank study, Bengal was number one in the ease of doing business. After some time, our ranking went down. We found out that they (the Centre) have introduced a new process in which 50 per cent of the weightage was on surveys done among businesses in the state… We were not consulted.

On new investments for Bangla:

We have had four Bengal Global Business Summits. About Rs 9.5 lakh crore has been proposed as investment. Approximately Rs 4 lakh crore is in process now. Today, Bangla has become a cement hub. Five cement companies including JSW and Dalmiya India have invested Rs 700-1,000 crore each.

Tata Hitachi has recently closed its Tatanagar factory and shifted their capital equipment to the Kharagpur Industrial Park because of the ease of doing business in Bengal… Today, TCS is employing 40,000 people in Bangla. Now they have taken another 20 acres where they will employ another 15,000-20,000 people. Last year, export from Bangla was worth about $ 9.5 billion. As a result, we had to create an export policy.

On work culture in Bangla:

Holidays and work culture are different things. Europeans take holidays up to 90 days. Does that mean they don’t work? Other states in India may not have (so many holidays) but they will soon follow suit. When we came to power (2011), 76 lakh man-days were lost due to strikes in the previous year. Mamata Banerjee announced that we will not allow bandhs… She said that if someone failed to come to office on a bandh day, he or she would lose the day’s pay and the retirement age would also go down by one day… In the first year, we lost 5,552 man-days. In three years, the loss became zero.

On Singur:

The Tatas are employing about 40,000 people in Bangla. The Tata Motors project was in the courts for about eight years. In the end, the Supreme Court said that the Bangla government had acquired land illegally. The court ordered the government to conduct demolition and hand over the land to farmers in 90 days.

Mamata Banerjee did not fight with anybody initially. Only when one group of farmers refused to accept cheques, she supported them. But does that mean the Tatas have run away from Bengal? Not at all. Every Tata company in the state has grown in size.

On land for industry in Bangla

The government has a few strategies with regard to industrial land. First, we have planned to develop more industrial parks so that corporates don’t have to approach private entities for land. The Kharagpur Park has become a model park. It has a 20,000 square feet common facility centre including a bank, food court and parking for trucks. Another freight corridor, along with an industrial corridor, is being built from Punjab to Bengal. We have allotted 2,666 acres of land in Raghunathpur for this project.

The other strategy is the creation of a land bank. For example, the animal husbandry department had large tracts of land in Kalyani which were never put to proper use. From this, 300 acres of land were given to Bangla Industrial Development Corporation. Here Flipkart has taken 100 acres. In North Bengal, we have land from different departments where industrial parks are being built. There is no shortage.

On electoral alliances:

It is a question that Mamata Banerjee would be in a better position to answer. But let me give you my version. Just a few days ago, Chandrababu Naidu was in Bangla. Both the leaders said, ‘We are going to work together and all of us are going to be part of the leadership….’ So this is a matter that is working on the principle that everybody has to come together because democracy is at risk. As I said earlier, there is a fear psychosis. Institutions are being undermined. Look at the circus going on with the CBI and RBI.

I don’t think the BJP knows what Bengal culture is like. My father was condemned to death by the British. In jail, he was not only singing Rabindra Sangeet but also songs of Kazi Nazrul Islam. People don’t know that Kazi Nazrul Islam was the greatest songwriter of Maa Kaali and was also a worshipping Muslim. You cannot divide communities in Bengal, but that seems to be the agenda of this government… What people do not understand is that there is an underlying messaging system from the top which has percolated to the bottom creating lumpens, who are taking the law into their own hands. So what is more important than the question of who will align with whom is why are they coming together. And in that Mamata Banerjee has a major role to play because she has been in Parliament for seven terms… She obviously knows people in politics very intimately.

On Mamata Banerjee as the PM candidate:

She has repeatedly said that this is a collective leadership. I don’t think she has looked for getting a chair. I left everything in Delhi, my international network, and went to Kolkata because I sensed that she has been fighting for 34 years for a cause with which I agree. Somebody has to take up the cause and sacrifice the way she has done. She is consistent in saying that the communal disharmony being spread in India is very dangerous.

On allegations of syndicate:

It is something that Mamata Banerjee has spoken about very openly and without any hesitation. Just a few days ago, she said in a party meeting, ‘I have come to learn that some people are taking money. If I come to know the specifics of it, you’ve had it.’ That’s a message from the top and then it percolates to the ground. The CPM created syndicates during their rule. How can a structure, built over 34 years, change overnight? But there is sincerity in the efforts of the TMC leadership.

I think it’s very important to understand that political violence happened only during the CPM rule. After winning the election, when everybody was ready to take revenge for the killings of the 34 years, Mamata Banerjee took a very important decision. She ordered Rabrindra Sangeet to be sung everywhere and gave the slogan: ‘We will build the state rather than take revenge.’ That was a moment when there could have been mass riots.

On student activism:

I think that is completely wrong (that he is Right Wing). I was perceived first as being for democracy. In the US, I was the convenor of the Indians for Democracy (East Coast) during the Emergency. The group brought together all kinds of people — from the RSS, CPI… I don’t think that anybody perceived me to be with the Jana Sangh or the BJP. I didn’t know any of their leaders.

There was no Jana Sangh then in Bengal. There is currently no RSS in Bengal. When I went to the Delhi School of Economics, I fought the Left. My own professors — Amartya Sen, Sukhamoy Chakraborty, K N Raj — were in varying levels with the Left. Manmohan Singh, who had then just come back from Oxford, was neither Left nor Right. There was Jagadish Bhagwati who was an extreme trade liberaliser. Subramanian Swamy, who had then come back from Harvard, considered himself a liberaliser… I fought against my own professors, ideologically… I had no connections with the RSS or the Jana Sangh because they never had a presence in Bangla.

On minority vote bank politics:

Minority vote bank is not the issue. Capitalists maximise profits and shareholder value. According to James Buchanan, who received the Nobel Prize in economics, politicians in democracies must maximise votes. As they have to serve the people, they must have their support. That is the political process in a democracy. So, in the US, the same conversation is happening with the Latino or African-American population. In Europe, a similar conversation is happening with migrants. This is happening everywhere. So this is not vote-bank politics. If you do not serve the community, you will be voted out. You are not doing anything special. You are just ensuring that all communities get what the government offers as a part of its activity.

If Trinamool comes to power at Centre…

We have learnt lessons from the schemes that our government led by Mamata Banerjee has initiated. People have been talking about the Beti Bachao, Beti Padhao Yojana, which has a budget of Rs 100 crore for the entire country. But Bengal’s Kanyashree scheme was allocated Rs 1,200 crore from the (state) budget. I also think the anti-federalism attitude has to be fixed. That’s why Mamata Banerjee had called for a federal front. The fundamental constitutional provision of India is federalisation and the (Central) government is destroying this.

The other element where I think there will be obvious consensus is institutional building. Today there is a problem with the CBI, RBI and CVC. These institutions are imploding from the inside because of lack of governance. The Gujarat Chamber of Commerce and Industry has recently said that 40 per cent of their small and medium-size manufacturing industries are shutting. The government has killed small and medium enterprises, and destroyed the informal sector.

I will give you an example. The PWD has built 23,000 km of roads in villages. As soon as these roads were constructed, farm produce could be sent to the nearby market in small vans. This immediately opened up opportunity for those at the bottom of the pyramid.

On GST:

When I was in the empowered committee (there was no GST Council at the time) of state finance ministers, the BJP was not in power at the Centre. Then two BJP-ruled states — Madhya Pradesh and Gujarat — had said that they will not allow GST. The same party comes to power and turns turtle. Now they have become big votaries of GST. I was fighting for GST because, in 2009, Mamta Banerjee had put in the manifesto that GST was a requirement for small and medium enterprises.

I had told the council to delay the launch of GST as a trial run had not been conducted. Was the GST network ready to process as many as 300 crore invoices? As I was working with them closely, I was aware that they were not even close to ready… So the failure is the government’s inability to understand the GST process…

In 2015, the growth rate of India was 8.16 per cent. Following demonetisation in 2016, it fell to 7.11 per cent. In 2013-14 and 2014-15, there has been an upward curve of growth of GDP. When the growth rate falls from 8.16 per cent to 7.11 per cent, the loss to economy is Rs 1.5 lakh crore. When 2015 and 2017 data are compared, one would find a loss of Rs 2.5 lakh crore. The growth rate has fallen now to 6.68 per cent. Due to demonetisation and GST, the total loss is nearly Rs 4.75 lakh crore… Someone must take the blame.


নভেম্বর ২৫, ২০১৮

অমিত মিত্রের একান্ত সাক্ষাৎকার

অমিত মিত্রের একান্ত সাক্ষাৎকার

বাংলার অর্থ, বাণিজ্য, শিল্প ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী অমিত মিত্রের একান্ত সাক্ষাৎকার:

দেশের বর্তমান পরিস্থিতি প্রসঙ্গে:

রাজনৈতিক অর্থাবস্তার ক্ষেত্রে দেশ এখন মারাত্বক দুর্দিনের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। আমার মতে এই কেন্দ্রীয় সরকার ভুলভ্রান্তির সরকার। মানসিক ভাবে এই সরকার সব কিছুতেই বাহাদুরি জাহির করার চেষ্টা করে। দেশের পক্ষে মারাত্বক ক্ষতিকর কিছু নীতি এরা ইতিমধ্যেই বলবৎ করে ফেলেছে। নোটবন্দির পক্ষে বলতে গিয়ে এক বর্ষিয়ান বিজেপি নেতা আমায় বলেছেন যে আরএসএস-র নীতি থেকে সরে আসার জন্যে এই নীতি নেওয়া হয়েছে যাতে দেশের গরীব-বড়লোকদের মধ্যে ভেদাভেদ বাড়ে এবং তাদের নিজেদের ভোটব্যাঙ্ক তৈরি হয়।

কিছুদিন আগে একজন উচ্চ-প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী আমাকে বলেছিলেন যে তার নামে ৩১টি মামলা চলছে অথচ তাকে আমরা স্বচ্ছ বলেই জানি। এইভাবে শুধুমাত্র এই ব্যবসায়ী নয়, ব্যবসায়িক সংস্থাগুলির মধ্যেও ভয় ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে। নোটবন্দির পর অসোচ্যাম বিবৃতি দেয় যে নোটবন্দি ডাহা ফেল আর তার পরেরদিনেই সংস্থার মহাসচিব বলেন, না না নোটবন্দি ভাল পদক্ষেপ ছিল। আসলে প্রথম বিবৃতির পরে সরকারের তরফ থেকে হুমকি গিয়েছিল যে সরকারের কোনও প্রতিনিধি ওই সংস্থার সাথে কোনও কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করবে না। এমনকি বিদেশী কোনও প্রতিনিধিদল এলেও তাদের সাথে সাক্ষাৎ হবে না। স্বভাবতই, সংস্থার মহাসচিব বাধ্য হন বিবৃতি পাল্টাতে। একমাসের মধ্যে তাকে সরটিয়ে দেওয়া হয়।

এরকমই আরেকটি সংস্থার অনুষ্ঠানে আমি বলেছিলাম যে জিএসটিতে যে গ্রেপ্তারী পারওয়ানা জারী করা যায়, তা নিয়ে কেউ মুখ খুলছে না কেন। কারুর সাহস হয়নি এ নিয়ে কোনও মন্তব্য করার। দেশজুড়ে ভীতির পরিবেশ চলছে।

যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো প্রসঙ্গে:

রাজ্যগুলি যা কর আদায় করে সেটাই কেন্দ্র সংগ্রহ করে আর একটি অংশ রাজ্যগুলিকে ফেরত দেয়। এটাই যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো অংশ। চতুর্দশ অর্থ কমিশন সেই অংশের পরিমাণ ৩২% থেকে বাড়িয়ে ৪২% করে। কিন্তু সেই বছরেই কেন্দ্রীয় সরকার তাদের ৫৮টি প্রকল্পে টাকা দেওয়া বন্ধ করে দেয়। কি সেই প্রকল্প? পুলিস ট্রেনিং, আইসিডিএস ইত্যাদি। কিছু কিছু প্রকল্পের ক্ষেত্রে রাজ্যগুলিকেও প্রকল্পের খরচের একাংশ দিতে হত। এমন ২৮টি প্রকল্পর ক্ষেত্রে রাজ্যের অংশ বাড়ানো হয়। এক দিকে বলা হচ্ছে বরাদ্দ বাড়ানো হচ্ছে, আর অন্য দিকে কেন্দ্রের অনুদান বন্ধ করা হচ্ছে।

একটা কাউন্সিল অফ স্টেটস তৈরী করা হয়েছিল। এই কাউন্সিলের দুবছর আগে পূর্ণাঙ্গ বৈঠক হয়েছিল (যদিও ছমাস আগে নামমাত্র বৈঠক হয়েছে)। আগে প্লানিং কমিশন ছিল, যেখানে আমরা রাজ্যের দাবিদাওয়া জানতাম। এখন তও নেই। যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামোটাই নেই।

বাংলা কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে প্রায় ১০,০০০ কোটি টাকা পায়। সময় মত যদি এই টাকা না পাওয়া যায় তাহলে আমাদের বাজার থেকে টাকা ধার করতে হবে এবং তার সঙ্গে ঋনের পরিমাণ বেড়ে যাবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় প্রধানমন্ত্রীকে একটি চিঠি লিখে এই সঙ্কটের কথা উল্লেখ করেছেন। ডিআইপিপি ও ওয়ার্ল্ড ব্যাঙ্কের সমীক্ষা অনুযায়ী আমাদের রাজ্য ব্যবসা করার সুবিধার ক্ষেত্রে শীর্ষে ছিল। কিন্তু পরে আমরা পিছিয়ে পড়ি, কারণ কেন্দ্রীয় সরকার আমাদের সাথে আলোচনা না করেই এই সমীক্ষার নিয়মকানুন পাল্টে দেয়।

বাংলায় শিল্প লগ্নি প্রসঙ্গে:

বাংলায় চারটে গ্লোবাল বিজনেস সামিট হয়েছে। প্রায় ৯.৫ লক্ষ কোটি টাকার বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি আমরা পেয়েছি। যেমন সিমেন্টের ক্ষেত্রে পাঁচটি সংস্থা আগ্রহী; প্রত্যেকে প্রায় ৭০০-১০০ কোটি টাকা লগ্নি করেছেন।

টাটা হিটাচি সম্প্রতি তাদের টাটানগরের কারখানা বন্ধ করে খড়গপুর ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কে নতুন করে ব্যবসা শুরু করেছেন। একমাত্র কারণ, বাংলায় ব্যবসা করার সুবিধে। টিসিএস বাংলায় প্রায় ৪০,০০০ কর্মসংস্থান তৈরী করেছে। তাদের আরও জমি দেওয়া হয়েছে যাতে আরও ১৫,০০০ থেকে ২০,০০০ জন চাকরী পান। গত বছর আমাদের রাজ্য থেকে রপ্তানি হয়েছিল প্রায় ৯.৫ বিলিয়ন ডলার মুল্যের সামগ্রী। আমরা একটি নতুন রপ্তানি নীতি তৈরী করেছি।

কর্মসংস্কৃতি প্রসঙ্গে:

ছুটি আর কর্মসংস্কৃতি- এই দুটি আলাদা বিষয়। ইউরোপে মানুষ ৯০ দিন অবধি ছুটি পায়; তার মানে কি ওখানে কর্মসংস্কৃতি খারাপ? অন্য রাজ্যে হয়ত আমাদের মত ছুটি দেওয়া হয় না, কিন্তু আগামিদিনে সেটাই হবে। ২০১১ সালে আমরা ক্ষমতায় আসার আগের বছর স্রেফ ধর্মঘটের জন্য ৭৬ লাখ কর্মদিবস নষ্ট হয়েছিল। মমতা বন্দোপাধ্যায় ঘোষণা করেছেন এই রাজ্যে আর ধর্মঘট হবে না। তিনি বলেছেন কেউ কাজের ক্ষেত্রে ধর্মঘটের দোহাই দিয়ে না এলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রথম বছর আমরা ৫,৫৫২ কর্ম দিবস হারিয়েছিলাম যা আজ কিনা শুণ্যে নেমে এসেছে।

সিঙ্গুর প্রসঙ্গে:

টাটারা বর্তমানে বাংলায় প্রায় ৪০,০০০ মানুষের কর্মসংস্থান তৈরী করেছেন। ওনাদের মোটর গাড়ি তৈরীর প্রকল্পটির ক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্ট প্রায় আট বছর পরে রায় দেন যে পূর্বতন সরকার অবৈধভাবে বলপূর্বক জমি অধিগ্রহণ করেছিল। রায়ে বলা হয়েছিল যে ৯০ দিনের মধ্যে জমি কৃষকদের ফেরত দিতে হবে।

মমতা বন্দোপাধ্যায় প্রথমে কোনও পক্ষ নেন নি। কিন্তু যখন কিছু কৃষক তাদের জমি দিতে অস্বীকার করেন তখনই তিনি তাদের সমর্থন করেন। তার মানে এই নয় যে টাটারা বাংলা ছেড়ে চলে গিয়েছেন। এ রাজ্যে তাদের ব্যবসার পরিমাণ দিনে দিনে বাড়ছে।

বাংলার জমি নীতি প্রসঙ্গে:

শিল্পের জন্য জমির প্রসঙ্গে আমাদের সরকারের কিছু কৌশল আছে। প্রথমত, আমরা আরও অনেক ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক তৈরী করব যাতে শিল্পসংস্থাগুলিকে কোনও বেসরকারি সংস্থার কাছে যেতে না হয়। খড়্গপুর পার্ক একটি মডেল। এই পার্কে ২০,০০০ স্কোয়ার ফিট কমন ফেসিলিটি সেন্টার আছে। পাশাপাশি, এখানে একটি ব্যাঙ্ক, ফুড কোর্ট, ট্রাক পার্কিংয়ের ব্যবস্থাও আছে। পাঞ্জাব থেকে বাংলা পর্যন্ত একটি ফ্রেট করিডোর তৈরী হচ্ছে। রঘুনাথপুরে এই প্রকল্পের জন্য আমরা ২,৬৬৬ একর জমি দিয়েছি।

অন্য কৌশলটি হল ল্যান্ড ব্যাঙ্ক তৈরী করা। যেমন, কল্যাণীতে পশুপালন দপ্তরের অনেক জমি আছে, যা অব্যবহৃত ছিল। সেখানে আমরা ৩০০ একর জমি পশ্চিমবঙ্গ শিল্পোন্নয়ন নিগমকে দিয়েছি। তার মধ্যে ফ্লিকাৰত ১০০ একর জমি নিয়েছে। উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন দপ্তরের জমিতে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক তৈরী হচ্ছে। জমির কোনও ঘাটতি নেই।

বাম-কংগ্রেসের সাথে জোটের প্রসঙ্গে:

এই প্রশ্নের উত্তর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং দিতে পারবেন। আমি আমার ব্যাখ্যাটা বলছি। কিছুদিন আগে চন্দ্রবাবু নাইডু বাংলায় এসেছিলেন। ওনারা দুজনেই বলেন যে সবাই একসাথে কাজ করবেন এবং সবাই নেতৃত্ব দেবেন। সবাইকে একসাথে আসতে হচ্ছে কারণ গণতন্ত্র সংকটে। দেশজুড়ে ভীতির পরিবেশ তৈরী হয়েছে। বিভিন্ন সংস্থাকে ধ্বংস করা হচ্ছে। সিবিআই, আরবিআইকে নিয়ে কি সার্কাস হচ্ছে দেখুন না।

তাই এখন প্রশ্নটা এই নয় যে কারা কারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে লড়বেন। প্রশ্ন হল কেন একসাথে লড়তে হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাতবার সাংসদ হয়েছেন। তিনি এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন।

বাংলায় বিজেপির উত্থান প্রসঙ্গে:

বিজেপি বাংলার সংস্কৃতি জানে না। আমার বাবাকে ব্রিটিশরা মৃত্যুদন্ড দিয়েছিল। জেলে বসে উনি রবীন্দ্রসংগীত যেমন গাইতেন, নজরুলগীতিও গাইতেন। নজরুল যেমন একাধারে মুসলমান ছিলেন, উনি প্রচুর শ্যামাসংগীতও লিখেছেন। বাংলায় ভাগাভাগির রাজনীতি চলে না। কিন্তু এই সরকারের এজেন্ডা সেটাই। অপরমহল থেকে নিচুতলার লুম্পেনদের বার্তা দেওয়া হচ্ছে। তারা আইন নিজেদের হাতে তুলে নিচ্ছে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রসঙ্গে:

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বারবার বলেছেন এটা যৌথ নেতৃত্ব। উনি কোনও চেয়ারের আশায় লড়ছেন, এমনটা নয়। আমি দিল্লিতে আমার সব কিছু ছেড়েছুড়ে কলকাতায় চলে এসেছিলাম কারণ আমার মনে হয়েছিল উনি ৩৪ বছর ধরে লড়ছেন। ওনার লড়াইকে আমি সমর্থন জানিয়েছি। কাউকে না কাউকে বেড়ালের গলায় ঘন্টা বাঁধতেই হবে, ওনার মত আত্মত্যাগ করতেই হবে। উনি ক্রমাগত বলেছেন, দেশজুড়ে যে সাম্প্রদায়িক বিষ ছড়ানো হচ্ছে তা বিপজ্জনক।

সিন্ডিকেট প্রসঙ্গে:

এই ব্যাপারে অতীতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অনেকবার দ্বিধাহীনভাবে বলেছেন। কিছুদিন আগেও দলের একটি বৈঠকে তিনি বলেন যে তিনি জানতে পেরেছেন দলের অনেকে টাকা তুলছে। যদি তিনি বিশদে জানতে পারেন তবে তাদের রেয়াত করা হবে না। অপরমহল থেকে যদি এই বার্তা দেওয়া হয়, নীচুতলায় অবশ্যই প্রভাব পড়বে।

সিপিএমের জমানায় এই সিন্ডিকেটের জন্ম হয়েছিল। ৩৪ বছর ধরে যে ব্যবস্থা চলে এসেছে, রাতারাতি তা বদলায় না। কিন্তু তৃণমূল নেতৃত্ব আন্তরিকভাবে এই সমস্যার সমাধান করছেন।

সিপিএম জমানায় যে বীভৎস খুনোখুনির ইতিহাস আছে, সেটা ভুলে চলবে না। ২০১১য় নির্বাচনে জেতার পর অনেকেই বদলা নিতে চেয়েছিল। মারদাঙ্গা বাঁধতে পারত। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ ছিল, বদলা নয় বদল চাই।

ছাত্রজীবনে রাজনীতি প্রসঙ্গে:

আমি দক্ষিণপন্থী (রাইট উইং) ছিলাম এটা ভাবা ভুল। আমি গণতন্ত্রপন্থী ছিলাম। এমার্জেন্সির সময় আমি Indians for Democracy (East Coast) এর আহ্বায়ক ছিলাম। সেই দলে অনেক ভাবধারার মানুষ ছিলেন – আরএসএস থেকে শুরু করে সিপিআই অবধি… আমার মনে হয় না কেউ কোনোদিন আমায় জন সংঘ কিংবা বিজেপি-ঘ্যাঁসা ভেবেছে। আমি ওদের কোনও নেতাকেই চিনতাম না।

বাংলায় জন সংঘের কোনও শাখা ছিল না। বাংলায় আরএসএসের কোনও অস্তিত্ব নেই। আমি দিল্লী স্কুল অফ ইকোনমিক্স এ থাকাকালীন বামবিরোধিতা করেছি। আমার প্রফেসররা – অমর্ত্য সেন, সুখময় চক্রবর্তী, কে এন রাজ – অনেকাংশেই বাম-ঘ্যাঁসা ছিলেন। সদ্য অক্সফোর্ড ফেরত মনমোহন সিংহ বাম-ডান কোনও দিকেই ছিলেন না। জগদীশ ভগবতী বাণিজ্য উদারতায় বিশ্বাসী ছিলেন, হার্ভার্ড ফেরত সুব্রহ্মণ্যম স্বামী উদারপন্থী ছিলেন। আমি আমার প্রফেসরদের বিরুদ্ধে লড়েছি, মতাদর্শগত দিক থেকে। কিন্তু আমি আরএসএস বা জনসংঘের সাথে ছিলাম না। বাংলায় তাদের অস্তিত্ব নেই।

সংখ্যালঘু তোষণ প্রসঙ্গে:

সংখ্যালঘু তোষণতা ইস্যু নয়। পুঁজিবাদীরা মুনাফা আর ভাগীদারের মান বাড়াতে চায়। জেমস বুকানন, যিনি অর্থনীতিতে নোবেল পেয়েছেন, বলেন যে একটি গণতন্ত্রে রাজনীতিবিদদের লক্ষ্য হওয়া উচিত ভোট বাড়ানো। তারা যেহেতু জনগণের সেবা করবেন, তাই তাদের জনসমর্থন থাকাটা জরুরি। এটাই গণতন্ত্র। আমেরিকায় এই প্রক্রিয়াটিই হয় লাতিন কিংবা আফ্রিকান-আমেরিকানদের সাথে। ইউরোপেও অভিবাসীদের সাথে এরকম হয়। সব জায়গায় এমনটাই হচ্ছে। যদি আপনি কোনও জনগোষ্ঠীর জন্য কাজ না করেন, আপনি ক্ষমতাচ্যুত হবেন। আপনি বিশেষ কিছু করছেন না। আপনি শুধু নিশ্চিত করছেন যেন গোষ্ঠীর মানুষ সরকারি পরিষেবা পায়।

কেন্দ্রে ক্ষমতায় এলে কর্মসূচি প্রসঙ্গে:

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় যে সকল প্রকল্প রূপায়ণ করা হয়েছে, সেগুলি থেকে আমরা শিক্ষালাভ করেছি। বেশি বাঁচাও, বেশি পড়াও নিয়ে কত লোকে কত কথা বলছে। কিন্তু সারা দেশের জন্য এই প্রকল্পের বাজেট মাত্র ১০০ কোটি টাকা। অন্যদিকে, বাংলার কন্যাশ্রী প্রকল্পের বাজেট ১২০০ কোটি টাকা। যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো বিরুদ্ধ মানসিকতার পরিবর্তন প্রয়োজন। তাই তো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ফেডারেল ফ্রন্ট গড়ার ডাক দিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো ভারতের সংবিধানের মুলে। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার এটা ধ্বংস করতে চাইছে।

আরেকটা যেটা সর্বসম্মতিক্রমে করতে হবে তা হল বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানগুলির হৃতগৌরব ফেরানো। এখন সিবিআই, আরবিআই ও সিভিসিকে নিয়ে প্রচুর সমস্যা রয়েছে। পরিচালনার অভাবে ধুঁকছে এই প্রতিষ্ঠানগুলি। সম্প্রতি গুজরাট চেম্বার অফ কমার্স বলেছে যে ৪০% ক্ষুদ্র ও মাঝারি উত্পাদন শিল্প পাততাড়ি গোটাচ্ছে। কেন্দ্রীয় সরকার ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প ধ্বংস করে দিয়েছে। ইনফরমাল সেক্টরকেও শেষ করে দিয়েছে সরকার।

একটা উদাহরণ দিই। পূর্ত দপ্তর ২৩,০০০ হাজার কিমি রাস্তা বানিয়েছে। এর ফলে, কৃষিপণ্য খুব সহজেই কাছাকাছি বাজারে পাঠানো যাচ্ছে। এর ফলে পিরামিডের নিচু স্তরে অনেক কাজের সুযোগ তৈরী হচ্ছে।

জিএসটি কাউন্সিল প্রসঙ্গে:

যখন আমি রাজ্যের অর্থমন্ত্রীদের এম্পাওয়ার্ড কমিটিতে ছিলাম (তখন জিএসটি কাউন্সিল তৈরী হয়নি), বিজেপি ক্ষমতায় ছিল না। তখন দুটি বিজেপি শাসিত রাজ্য – মধ্য প্রদেশ ও গুজরাট – জিএসটি লাগা করার বিরোধিতা করেছিল। সেই দল যখন কেন্দ্রে ক্ষমতায় এল, উলটপুরাণ ঘটল। এখন তারা জিএসটির বিরাট সমর্থক। ২০০৯ সালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লোকসভা নির্বাচনের ইস্তাহারে জিএসটি চালু করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন কারণ ক্ষুদ্র-মাঝারি শিল্পের সুবিধার্থে এর দরকার ছিল। সেই মতই আমি জিএসটির পক্ষে লড়ে গেছি।

আমি কাউন্সিলকে জিএসটি চালু করার দিন পেছোতে বলেছিলাম, কারণ কোনও ট্রায়াল হয়নি। ৩০০ কোটি ইনভয়েস প্রসেস করার জন্য কি জিএসটি নেটওয়ার্ক তৈরী? আমি তাদের সাথে কাজ করছিলাম বলেই জানি যে নেটওয়ার্ক তৈরী ছিল না। সরকার জিএসটি প্রসেস বুঝতেই পারে নি। এটাই তাদের ব্যর্থতা।

২০১৫ সালে দেশের জিডিপি বৃদ্ধির হার ছিল ৮.১৬ শতাংশ। ২০১৬ নোটবন্দির পর তা কমে দাঁড়ায় ৭.১১ শতাংশে। ২০১৩-১৪ এবং ২০১৪-১৫ তে জিডিপি বৃদ্ধির গ্রাফ ছিল উর্দ্ধমুখী। কিন্তু ৮.১৬ শতাংশ থেকে ৭.১১ শতাংশে জিডিপি কমে যাওয়া মানে ১.৫ লক্ষ কোটি টাকার ক্ষতি। ২০১৫ আর ২০১৭-র তথ্য তুলনা করলেই দেখা যাবে, মোট ক্ষতি ২.৫ লক্ষ কোটি টাকা। বৃদ্ধির হার এখন ৬.৬৮ শতাংশে এসে ঠেকেছে। জিএসটি ও নোটবন্দির ফলে মোট ক্ষতির পরিমাণ ৪.৭৫ লক্ষ কোটি। কাউকে তো দায় নিতেই হবে।