Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


November 6, 2018

State administration takes measures for peaceful Kali Puja

State administration takes measures for peaceful Kali Puja

Like every year, this year too the State Government has put all arrangements in place for a peaceful Kali Puja.

This year, Kali Puja falls on November 6 and Deepavali on November 7. There will be 3,262 Kali Pujas in Kolkata and its suburbs. The police and the administration are leaving no stone unturned to make it a happy occasion for everybody concerned.

There will be special police arrangements at 26 spots and 618 police pickets. The police will continuously move around in cars and motorbikes to see to it there is no disorder. They will also use 114 auto-rickshaws for the purpose, to get to places which cannot be accessed by police jeeps.

There will be 23 heavy duty flying squads and 13 heavy radio flying squads, along with 21 quick response teams (QRT).

The Supreme Court has passed an order allowing firecrackers only from 8pm to 10pm, and the police will see to it that the order is followed.

For immersion, 34 ghats have been identified. These would be manned by police personnel too, and would have CCTV arrangements. Watchtowers will be built too for the purpose of security. Immersion will start on November 7 and continue till November 10.

At 29 of the ghats, there will be disaster management teams of Kolkata Police. There will be river traffic rescue teams at every ghat. Last but not the least there will be police pickets at 255 spots along various immersion routes.

Source: Aajkaal


নভেম্বর ৬, ২০১৮

কালীপুজোর উদ্বোধন থেকে বিসর্জন পর্যন্ত রাজ্য সরকারের ঢালাও ব্যবস্থা

কালীপুজোর উদ্বোধন থেকে বিসর্জন পর্যন্ত রাজ্য সরকারের ঢালাও ব্যবস্থা

দুর্গাপুজোর মতো কালীপুজোতেওসদা সজাগ থাকবে কলকাতা পুলিস। এ বছর শহরে ৩২৬১টি পুজো হবে। এই উপলক্ষে একদিকে যেমন থাকবে ওয়াচ টাওয়ার, তেমনই থাকবে বিশেষ বাহিনী। এর জন্য শহরের বেশ কয়েকটি থানাকেও চিহ্নিত করা হয়েছে। কলকাতা পুলিসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, শহরের ৫২টি থানাকে চিহ্নিত করে সেগুলির জন্য রাখা হবে স্পেশ্যাল রিজার্ভ ফোর্স। ঠনঠনিয়া, লেক, কালীঘাট এবং করুণাময়ী কালীবাড়িতে সকাল থেকেই লোকে পুজো দিতে যান। ফলে এই জায়গাগুলিতে পুলিসের পক্ষ থেকে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এগুলি বাদেও শহরের বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মণ্ডপেও থাকছে বিশেষ ব্যবস্থা।

এছাড়া শহরের ২৬টি জায়গায় বিশেষ নিরাপত্তার আয়োজন করা হচ্ছে। কারণ, এই জায়গার প্রতিমাকে বেশী গয়না পরানো হয়। এছাড়া ডিভিশন অনুযায়ী ৬১৮টি জায়গায় থাকবে পুলিস পিকেট। থানার গাড়ি এবং মোটর বাইকে এলাকা ঘুরে বেড়ানো ছাড়াও সরু গলিতে ঢোকার জন্য অটোরিকশার বন্দোবস্ত রাখা হচ্ছে পুলিসের পক্ষ থেকে। ১১৪টি অটোরিকশায় টহল দেবে পুলিস। মেট্রোতেও নজর রাখা হবে।

আলোর উৎসবের সঙ্গে পুজোর দিনে যেহেতু বাজি পোড়ানো হয়, সে কারণে বিশেষ সতর্কতা নিচ্ছে কলকাতা পুলিশ। শহরের প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ মণ্ডপ এবং মন্দিরে থাকছে দমকলের ইঞ্জিন। তৈরী থাকবেন দমকল কর্মীরা। ইতিমধ্যেই বাজি পোড়ানোর সময় নির্দিষ্ট করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এই নির্দেশ মতো রাত ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত বাজি পোড়াতে হবে। বাজানো যাবে না ডিজে।

উৎসবে কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে যাতে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া যায়, সে কারণে পুলিসের পক্ষ থেকে ২৪টি জরুরি পরিষেবামূলক অ্যাম্বুল্যান্সের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। লোডশেডিং হলে প্রস্তুত থাকবে সিইএসসি–র জেনারেটর ভ্যান। ২৩টি হেভি রেডিও ফ্লাইং স্কোয়াড ছাড়াও থাকবে ১৩টি বিশেষ হেভি রেডিও ফ্লাইং স্কোয়াড। সেইসঙ্গে থাকছে ২১টি ক্যুইক রেসপন্স টিম।

প্রতিমা বিসর্জনের জন্য ৩৪টি ঘাটকে চিহ্নিত করেছে পুলিস। ৭ নভেম্বর বিসর্জন শুরু হয়ে চলবে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত। এর মধ্যে ২৯টি ঘাটে পুলিসের বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের সদস্যরা থাকবেন। প্রতিটি ঘাটে তৈরী থাকবে রিভার ট্রাফিক রেসকিউ টিম। নজর রাখা হবে সিসিটিভি–র মাধ্যমে। থাকবে ওয়াচ টাওয়ার। বিসর্জনের সময় যাতে কোনও গোলমাল না হয় সে কারণে ২৫৫টি জায়গায় বিসর্জনের যাত্রাপথে পুলিস পিকেট থাকছে।

সৌজন্যঃ আজকাল