Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


November 11, 2018

Higher Education: Excellence in administration

Higher Education: Excellence in administration

The State Higher Education Department has taken initiatives for achieving excellence in several areas of administration, including e-governance and welfare of teaching and non-teaching staff.

E-governance initiatives
· Admission process for all undergraduate and postgraduate courses made online in all Government and Government-aided higher education institutions (HEI)

· E-pension implemented by Higher Education Department

· E-office implemented in Higher Education Department

· Applications for, and verification of applications under, Swami Vivekananda Merit-cum-Means Scholarship and K3 segment of Kanyashree Scheme made online

· E-billing and e-salary through Human Resource Management System (HRMS) introduced in all Government and Government-aided colleges

· Fund allocation from Government done through e-bantan and e-pradaan software under the Integrated Financial Management System (IFMS)

· E-tendering and e-procurement made mandatory in HEIs for procurements beyond Rs 5 lakh

· Admission process for teacher education programmes made online

· Provisions made for e-selling of books across disciplines and courses under West Bengal State Book Board

· GIS mapping has completed for HEIs, which provides for an effective planning and monitoring tool

 

Exemplary measures for the welfare of teaching and non-teaching staff

· Sikhsha Ratna Samman awards introduced for outstanding teachers from HEIs, given on Teachers’ Day

· Retirement age of teachers of universities and colleges increased from 60 to 62 years Government-approved part time teachers (PTT), contractual whole time teachers (CWTT) and casual non-teaching staff brought under Swasthya Sathi Scheme

· Leave travel concession (LTC) granted to university and college teachers

· University and college teachers brought under West Bengal Health Scheme (WBHS)

· Child care leave introduced for female university and college teachers

· Paternity leave introduced for male university and college teachers

· Status of teacher conferred on librarians, deputy librarians and assistant librarians, and graduate laboratory instructors in Government-aided colleges, along with all attendant financial and service benefits including Career Advancement Scheme and leave encashment of 300 days

· College teachers allowed to act as guide for MPhil and PhD students

· ‘Study Leave with Pay’ allowed for Government-approved PTTs and CWTTs for acquiring higher degrees such as PhD

· Transfers of teachers of State-aided colleges, including mutual transfers, introduced through West Bengal Colleges (Transfer of Employees) Rule, 2017


নভেম্বর ১১, ২০১৮

সাত বছরে উচ্চশিক্ষা দপ্তরে প্রশাসনিক সংস্কার

সাত বছরে উচ্চশিক্ষা দপ্তরে প্রশাসনিক সংস্কার

গত সাত বছরে রাজ্য উচ্চ শিক্ষা দপ্তর বিভিন্ন প্রশাসনিক কাজে এনেছে বদল। ই-গভর্নেন্স এবং শিক্ষক ও অশিক্ষক কর্মীদের কল্যাণের লক্ষে এ-গভর্ন্যান্স সহ নানা পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

ই-গভর্নেন্স উদ্যোগ

২০১৫-১৬ সাল থেকে সব সরকারি ও সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত কলেজে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর স্তরে সমস্ত পাঠ্যক্রমে ভর্তি অনলাইনে করা হয়েছে।

২০১৮ সালের ২রা এপ্রিল থেকে ই-পেনশন চালু করা হয়েছে।

১লা জানুয়ারি ২০১৮ থেকে এই দপ্তরে ই-অফিস চালু করা হয়েছে।

২০১৭ সাল থেকে স্বামী বিবেকানন্দ মেরিট কাম মিন্স স্কলারশিপ এবং কন্যাশ্রী-৩ এর অনলাইন আবেদন ও যাচাই শুরু করা হয়েছে।

সরকারি ও সরকার অনুমোদিত কলেজগুলিতে হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে ই-বিলিং ও ই-স্যালারি চালু হয়েছে।

সমস্ত কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যালারি অ্যাকাউন্ট অনলাইন করা হয়েছে যাতে তাদের বেতন সরাসরি তাদের অ্যাকাউন্টে পৌঁছে দেওয়া যায়।

ইন্টিগ্রেটেড ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমে তহবিল প্রদানের জন্য ই-বন্টন এবং ই-প্রদান চালু করা হয়েছে।

উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে ৫ লক্ষের বেশী যেকোনো খরচের জন্য ই-টেন্ডার ও ই-প্রোকিওরমেন্ট শুরু করা হয়েছে।

বিভিন্ন টিচার্স এডুকেশন প্রোগ্রামের ভর্তি প্রক্রিয়া অনলাইন করা হয়েছে।

ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট বুক বোর্ডের অধীনে বিভিন্ন পাঠ্যক্রমের সমস্ত বই ই-সেলিংএর মাধ্যমে অনলাইনে পাওয়া যায়।

সরকারের পরিকল্পনা ও নজরদারির জন্য সমস্ত উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিকে জিআইএস ম্যাপিং এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে।

 

শিক্ষক ও অশিক্ষক কর্মীদের উন্নয়নে পদক্ষেপ

রাজ্য সরকার শিক্ষক ও অশিক্ষক কর্মীদের উন্নয়নে একগুচ্ছ পদক্ষেপ নিয়েছে।

শিক্ষক দিবসে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃতী অধ্যাপকদের শিক্ষা রত্ন সম্মান প্রদান করা হয়েছে।

জানুয়ারি ২০১৭ থেকে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অদ্যাপকদের অবসর গ্রহনের বয়স ৬০ বছর থেকে বাড়িয়ে ৬২ বছর করা হয়েছে।

সরকার অনুমোদিত অস্থায়ী শিক্ষক, চুক্তিভিত্তিক পূর্ণ সময়ের শিক্ষক ও অশিক্ষক কর্মীদের স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের অধীনে আনা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ শিক্ষকদের এলটিসি প্রদান করা হয়েছে।

কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকদের রাজ্যের স্বাস্থ্য প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে।

কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকাদের চাইল্ড কেয়ার লিভ প্রদান করা হচ্ছে।

কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকদের পিতৃত্বকালীন ছুটির ঘোষণা করা হয়েছে।

সরকারি সাহায্য প্রাপ্ত কলেজগুলির লাইব্রেরিয়ান, ডেপুটি লাইব্রেরিয়ান, সহ লাইব্রেরিয়ানদের শিক্ষকের মর্যাদা দেওয়া হয়েছে।

গ্রাজুয়েট ল্যাবরেটরি ইন্সট্রাক্টরদের আর্থিক সহায়তার পাশাপাশি অন্যান্য সাহায্য প্রদান করা হচ্ছে, যেমন কেরিয়ার অ্যাডভান্সমেন্ট প্রকল্প এবং ৩০০ দিনের জন্য লিভ এনক্যাশমেন্ট স্কিম।

ইউজিসি রেগুলেশনস ২০১৬ অনুযায়ী কলেজের অধ্যাপকদের এম.ফিল. এবং পি.এইচ.ডি. গবেষণারতদের গাইডের কাজ করার অনুমোদন।

সরকার অনুমোদিত অস্থায়ী ও চুক্তিভিত্তিক শিক্ষকদের উচ্চশিক্ষার জন্য সবেতন পড়ার ছুটি মঞ্জুর করা হয়েছে।

ওয়েস্ট বেঙ্গল কলেজেস (ট্রান্সফার অফ এমপ্লয়িস) রুল ২০১৭ অনুযায়ী, সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত কলেজে শিক্ষকরা নিজেদের মধ্যে পারস্পরিক বদলি নিতে পারে।