Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


December 5, 2018

We want everyone in our State to be happy, this is the world of Maa-Mati-Manush: Bangla CM in Bajkul

We want everyone in our State to be happy, this is the world of Maa-Mati-Manush: Bangla CM in Bajkul

Chief Minister Mamata Banerjee was present today at a public function at Bajkul in Purba Medinipur district. She inaugurated a number of projects and laid the foundation stones of many more. She told the residents of the newly-created district that the State Government is committed to the development of the district.

Salient points of her speech:

  • I am extending my welcome to all of you to this public meeting
  • We want, along with boys, girls too to rise up in society
  • Medinipur is the birthplace of stalwarts like Vidyasagar, Matangini Hazra and Khudiram; this region carries a lot of historic legacy.
  • I have never forgotten the infamous incidents that took place in Medinipur, Heria, Patashpur, Egra and Panskura. We have not forgotten how our party’s worker, Sujata was tortured and killed in Khejuri. I was detained in Chandipur, where people were waiting with acid bulbs. My car was blocked with bamboo poles in Kolaghat, and sweared at – I have been tortured in various ways.
  • If anyone tries to scare me, I roar back. I love to protest. Once the governor (Gopal Gandhi) sent me a message through an intermediary that I would be killed, still I went to Kolaghat. IMy way was blocked all through the night. I was tried to be prevented with all their strength from reaching Nandigram, but I still went there. We couldn’t save many people. Many were killed and their bodies floated down the Haldi river. Many were never heard from again.
  • We will never forget the incident of Netai, where seven people were shot dead one after the other, and then women were forced into slavery. In Chhoto Angaria and Benepukur, people were killed and their bodies buried inside walls. Many people still don’t know about these. But the people of Bangla will never forget these incidents.
  • A six-month-old child was snatched from the father, a person’s hand was hacked off at Kandua in Amta, our party workers’ eyes were gouged out in Daspur because they had painted posters. They burned alive 19 Ananda Margis on Bijon Setu. In Jangalmahal, every year, 400 people used to be killed.
  • We have rescued the people of Bangla from the hands of the harmads of CPI(M). These harmads have now shamelessly joined the BJP.
  • Of which party is he a leader, the one who lead the murder spree in Nandigram? I don’t want to spell out the name. There is no place for harmads in the Trinamool Congress. When people used to be carried away by floods in villages in Kapaleswar and Keleghai, where were these leaders? They just know how to talk big.
  • Now a university named after Mahatma Gandhi is coming up in Tamluk and a medical college has already come up. A lot of developments have happened in Digha – international convention centre, Biswa Bangla Park, roads, polytechnic college, ITI, multi-superspeciality hospital, food processing centre. A drinking water project is coming up at a cost of Rs 1,100 crore. A power plant has come up in Kolaghat.
  • The Centre is denying the implementation of the Ghatal Master Plan for a long time. If the plan is implemented, flooding would largely be reduced.
  • A 120-bed hospital has come up in Contai.
  • When I was railway minister, I ensured completion of the Digha-Contai railway line in nine months. Today the people of Bajkul are going on that route regularly.
  • I had planned a line till Nandigram, but the Centre us delaying. If we come to power at the Centre, we will ensure completion.
  • About 20 Karmatirthas have come up, seven more are in the offing.
  • Seven Kisan Mandis have come up, cold storages too. Fish cultivation in the village of Moyna has been accepted as a model for Bangla.
  • We give free-of-cost chickens, ducks and goats to the poor. We want to set up big duck farms like chicken farms. Those interested please contact your respective BDPOs and gram panchayats.
  • Kanyashree beneficiaries earlier used to get Rs 750 per year, now it is Rs 1,000. If they remain unmarried till the age of 18, they get an additional one-time grant of Rs 25,000.
  • Under the K3 level, Kanyashree-enrolled girls, if pursuing postgraduation, get Rs 2,000 per months for arts streams and Rs 2,500 per month for science streams.
  • Already 50 lakh girls have enrolled under Kanyashree. This is set to increase by many times.
  • Under the Sikshashree Scheme, scheduled caste and scheduled tribe students from classes V to VIII are getting scholarships; about 75 lakh get scholarships.
  • 1.7 crore students from minority communities are getting scholarships.
  • Kendu leaf-pickers have been brought under the Samajik Suraksha Scheme.
  • For every child born, the mother is being given a sapling. This will grow up along with the child. When fully grown, the tree will be worth Rs 2 lakh. The tree can then be sold to help the child with the money.
  • Under the Rupashree Scheme, those families with annual income of less than Rs 1.5 lakh will get a grant of Rs 25,000 for their daughters’ wedding.
  • Under Samajik Suraksha Scheme, unorganised workers are provided a pension of Rs 1,500 when they cross 60, Rs 6,000 is given for their children’s studies and a one-time grant of Rs 2 lakh is given. If someone dies a natural death before crossing 60, the family gets Rs 50,000 and for an unnatural death, the family gets Rs 10 lakh. Folk artistes who are beneficiaries under Lok Prasar Parkalpa also come under this scheme.
  • Under the Lok Prasar Prakalpa, a grant of Rs 1,000 per month is given. Then, their talents are used for advertising all government schemes.
  • Under Mabhoi Scheme, journalists are provided medical insurance and pension after retirement.
  • The retirement ages of contractual and casual workers, ICDS and ASHA workers, and civic volunteers have been increased to 60. They have also been included under the Swasthya Sathi medical insurance scheme.
  • Earlier, the Centre used to give 90 per cent of the salary of ICDS workers, now it gives 30 per cent. As a result, the State Government has to spend Rs 1,000 more per person per month. The salary of ASHA workers has also been raised by Rs 1,000, of civic volunteers by Rs 5,000 (3,000 to 8,0000). The salary of para-teachers and contractual teachers has also been increased.
  • The Pranimitras used to get Rs 400 per months under the Left Front Government, now they get Rs 1,500.
  • The people of our State buy rice at the rate of Rs 2 per kg, which is availed by almost 8 crore people.
  • Treatment id free in government hospitals. Under Swasthya Sathi, up to Rs 5 lakh is provided for treatment is private hospitals. Mid-day meals, and steel plates and glasses are given to children. Under the ICDS, mothers are given treatment for free.
  • As soon a woman gets pregnant, she is allotted an additional Rs 6,000 for the next year.
  • Maternity leave of a total of 731 days is given, and paternity leave of one month.
  • If a poor person dies, Rs 2,000 is given to the family to conduct the last rites.
  • 1 crore students have been given bicycles as part of the Swasthya Scheme.
  • The people of Bangla are culture-minded, humanists, civilised.
  • Our government has waived off tax and mutation fee on agricultural land.
  • Be it flood or drought, I always stand by the people. We have helped 30 lakh people with a cumulative amount of Rs 1,200 crore.
  • We have set up custom hiring centres for farmers to take on lease agricultural equipments.
  • We are giving grants for farmers to cultivate potatoes.
  • Rice growers’ MSP has been increased from Rs 1,550 per quintal to Rs 1,750.
  • Earlier teachers didn’t get salaries on time, now they get on the 1st of every month.
  • We have provided vocational training to six lakh students, which increase to 12 lakh in the next two years.
  • We are recruiting teachers for providing education in different languages.
  • One lakh civic volunteers are being recruited.
  • Everyone was affected badly by demonetisation. Many people lost their jobs.
  • Many workers were chased away from Gujarat. We don’t do any such thing.
  • They are driving away Bengalis from Assam, Biharis from Gujarat. Names of 40 lakh voters have been deleted in Assam of whom 23 lakh are Bengalis.
  • Where was the BJP then? Now they are suddenly showing faux feelings for Hindus. Did the BJP teach how to do Durga Puja, Kali Puja and Eid? The Hindu religion has existed for thousands of years. So have the Vedas, Ramayana, Mahabharata, Gita, Bible, Quran, Granth Sahib existed for many, many years.
  • The BJP is scaring people into submission by offering crores of rupees, and taking out Ravan Yatras all over the country. They are asking people about their religions, castes and gotras. Seems as if someone has given them the responsibility?
  • They are calling Hanumans as Dalits, murdering minorities, chasing away Hindus, torturing Christians.
  • A policeman who was the investigating officer of a case was murdered. We have sympathy for his family. People are being murdered through fake encounters.
  • The BJP leaders are each a dacoit leader, ordering people what to do from their perch of power in Delhi. They do not about Hinduism, nor about Islam or Christianity. Neither are they aware of humanism. They promote hatred in the name of religion.
  • Why did 12,000 farmers commit suicide in a BJP-ruled State? Why do they not respect people of all religions? Why do they kill people and instigate riots?
  • If I am attacked I react. We had led a struggle for 34 years. We have led many movements.
  • Let me tell those CPI(M) supporters who are joining the BJP, we will also defeat you politically. We not let harmads remain here. They are jealous of the fact that people are peacefully living here.
  • I am instructing all panchayat officials to ensure that everyone who is eligible gets rice at Rs 2 per kg and the benefits under all schemes.
  • We have built houses for 40 lakh poor people. We will build more in the coming days.
  • We have to repay to the Centre a debt of Rs 48,000 crore every year, by borrowing from others. Despite this, we are able to provide rice at Rs 2 per kilo, almost free treatment in government hospitals, houses for the poor. Almost 90 per cent of the population are part of one scheme of the other.
  • We want to continue with our good work. Many roads and bridges are being constructed in this district, because of which many more tourists will be able to come. We want to ensure that your children do not have to go out of here to find work by creating opportunities here. We are helping people in Mandarmani to set up homestays for tourists so that they can earn from their own homes.
  • We are trying our best. A rice godown is being built 10km from Bajkul. Hence, as you can see, a lot of work is being done. Do good work, and work together, let there be all-round development of this district.
  • Today, Kanyashrees of the State stop child marriages, protest against crimes, and do many other types of good work for society. Kanyashree clubs have been set up. I want them to be examples for the whole world because they will never bow their heads in fear, they will build society.
  • I want to tell the Sabooj Sathi beneficiaries that Bangla is the first State where scholarships have been instituted for the economically backward. All people get opportunities irrespective of religion. You have to love all religions equally.
  • A lot of industries are coming up in Bangla. A port is coming up in Tajpur, which will lead to further development of the district. Women have to progress more, they will have to have a greater role in building society. The society where women are backward can never progress.
  • Religion is one’s own, festivals are for all. Everyone has to keep this in mind. Those who are spreading hatred in the name of religion know neither Islam nor any other religion. They are finishing off the whole country, looting banks, killing farmers. They want to destroy society through riots. They don’t want to create good people, just brutes. We tell people to be good citizens. We want everyone in our State to be happy. Rural Bangla is our lifeblood. Even those who stay in towns and cities love the village life. Many of us have a connection to some village. This is the world of Maa-Mati-Manush, which has taught us to live happily.
  • I want to know from our Kanyashree girls – you will be world leaders, won’t you? You will have to become doctors; we have a shortage of doctors.
  • We all have to hold our heads high. No work is bad. Rather, those who don’t work become lazy and full of evil ideas. An idle mind is the devil’s workshop. If we work, it is but natural for us to fall ill too, but overall work keeps us in a healthy state.
  • Stay well, keep your minds fresh. Jai Hind, Khuda Hafiz, Jai Johar.

ডিসেম্বর ৫, ২০১৮

আমাদের রাজ্যে সবাই ভালো থাকুক; এটা মা-মাটি-মানুষের রাজ্যঃ

আমাদের রাজ্যে সবাই ভালো থাকুক; এটা মা-মাটি-মানুষের রাজ্যঃ

আজ পূর্ব মেদিনীপুর জেলার বাজকুলে একটি সরকারি পরিষেবা প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মঞ্চ থেকে তিনি বিভিন্ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও শিলান্যাস করেন। নতুন জেলার মানুষদের মুখ্যমন্ত্রী বলেন এই জেলার উন্নয়নে সরকার বদ্ধপরিকর।

মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের কিছু অংশ:

  • সকলকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছ জানাচ্ছি।
  • আমরা চাই ছেলেদের সাথে সাথে মেয়েরাও সমাজের ওপরে উঠে আসুক।
  • মেদিনীপুর বিদ্যাসাগর, মাতঙ্গিনীহাজরা, ক্ষুদিরামের জন্মভূমি, এই জেলার ঐতিহ্য অনেক।
  • আমি মেদিনীপুর, হেরিয়া, পটাশপুর, এগরা, পাঁশকুড়ার ঘটনাকে ভুলে যাইনি। খেজুরিতে আমাদের কর্মী সুজাতাকে কিভাবে অত্যাচার করে খুন করা হয়েছিল আমরা ভুলিনি। চন্ডীপুরে আমাকে আটকে রেখেছিলো, ওরা আসিড বাল্ব নিয়ে দাঁড়িয়েছিল। আমাকে কোলাঘাটে বাঁশ দিয়ে আটকে রেখেছিলো, অজস্র গালাগালি, গাড়ি ঘেরাও – নানাভাবে অত্যাচার করেছে।
  • আমাকে চমকালে আমি গর্জাই, আমি আন্দোলন করতে ভালোবাসি। তখন আমাদের রাজ্যপাল (গোপাল গান্ধী) কাউকে দিয়ে আমাকে মেসেজ করে জানিয়েছিলেন যে আমাকে সরিয়ে দেওয়া হবে, তারপরেও আমি কোলাঘাট যাই। সারা রাত অবরোধ। নন্দীগ্রামে ঢুকতে দেবে না বলে আমাদের অনেক অত্যাচার করেছিল কিন্তু সব পেরিয়ে আমি নন্দীগ্রাম ঢুকেছিলাম। অনেক মানুষকে আমরা বাঁচাতে পারিনি, অনেকে খুন হয়েছেন, মেরে তাদের হলদি নদীর জলে ভাসিয়ে দেওয়া হয়েছিল। অনেকে নিখোঁজ কেউ ফিরে আসেনি।
  • আমরা নেতাইয়ের ঘটনা ভুলবো না, পর পর ৭ জনকে গুলি করে খুন করা হয়েছিল, আর মেয়েদের দাসী বানানো হয়েছিল। ছোট আঙারিয়াতে, বেনেপুকুরে খুন করে দেওয়ালে ডেডবডি পুঁতে রেখেছে। অনেকেই এখনও জানেন না। এইসব অত্যাচার বাংলা ভুলে যায়নি।
  • ৬ মাসের বাচ্চাকে বাবার কোল থেকে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছে, আমতার কান্দুয়াতে মানুষের হাত কেটে দিয়েছে, দাসপুরে আমাদের কর্মীদের চোখ উপড়ে নিয়েছে কারণ তারা পোস্টের লিখছিলো। ১৯ জন আনন্দমার্গীকে বিজ্ঞ সেতুর ওপর জীবন্ত পুড়িয়ে মেরেছে। প্রতি বছর জঙ্গলমহলে ৪০০ লোক খুন হত।
  • সিপিএমের হার্মাদদের অত্যাচারের হাত থেকে আমরা বাংলাকে বাঁচিয়েছি। সেই হার্মাদরা এখন বিজেপিতে নাম লিখিয়ে ওস্তাদ হয়েছে, ওদের লজ্জা করে না।
  • নন্দীগ্রামে যে খুনের নেতৃত্ব দিয়েছিলো সে কোন পার্টি করে? নামটা আমি বলতে চাই না। তৃণমূল কংগ্রেসে কোন হার্মাদের জায়গা নেই। কপালেশ্বর, কেলেঘাই তে যখন গ্রামগুলি বন্যায় ভেসে যেত তখন বাবুরা কোথায় ছিলেন? শুধু বড় বড় কথা
  • এখানে তমলুকে গান্ধীজির নামে বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে, মেডিকেল কলেজ হয়েছে। দীঘায় অনেক উন্নয়ন হয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল কনভেশনশন সেন্টার, বিশ্ব বাংলা কেন্দ্র হয়েছে, রাস্তাঘাট, পলিটেকনিক কলেজ, আই টি আই, মাল্টি সুপার হাসপাতাল, খাদ্য উৎপাদন কেন্দ্র সব হয়েছে। ১১০০ কোটি টাকার জলের প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। কোলাঘাট বিদ্যুৎ কেন্দ্র হয়েছে।
  • ঘাটাল মাস্টার প্রকল্প কিছুতেই করছে না কেন্দ্র, এটা হয়ে গেলে আর বন্যা হবে না।
  • দীঘা সৈকত নতুন রূপে সেজেছে। কাঁথিতে ১২০শয্যার একটি হাসপাতাল তৈরী করা হচ্ছে।
  • দীঘা তমলুক রেলপথ দীর্ঘদিনের দাবী ছিল। আমি দীঘা তমলুক রেললাইন ন’মাসে করে দিয়ে গেছিলাম। বাজকুলের মানুষ এই পথে যুক্ত হয়েছেন।
  • নন্দীগ্রাম পর্যন্ত লাইন করে দেওয়া হয়েছিল। এরা সেটা ফেলে রেখে দিয়েছে। আমরা কেন্দ্রে ক্ষমতায় এলে, এই কাজ করে দেব।
  • তাজপুরে গভীর বন্দর হচ্ছে। হাজার হাজার কর্মসংস্থান হবে। শিল্প বাড়বে।
  • এখানে প্রায় ২০টা কর্মতীর্থ হয়েছে। আরও সাতটা হচ্ছে।
  • সাতটা কিষাণ মান্ডি তৈরী হয়েছে। হিমঘর তৈরী হয়েছে। ময়নাকে মাছ চাষের মডেল হিসেবে তৈরী করা হচ্ছে। সারা বাংলায়ও হবে।
  • গরীব মানুষকে বিনা পয়সায় হাঁস, মুর্গী, ছাগল দেওয়া হচ্ছে। মুর্গীর পোল্ট্রির মত হাঁসের পোলট্রি শুরু করতে চাই। ইচ্ছুক ব্যাক্তিরা বিডিও, পঞ্চায়েতের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।
  • কন্যাশ্রীর মেয়েরা আগে ৭৫০টাকা পেত, এখন ১০০০টাকা করে দেওয়া হচ্ছে। ১৮বছর বয়েস হলে বিয়ে না করে পড়াশোনা চালানোর জন্য ২৫০০০টাকা করে পাবে।
  • কে-৩ তে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করলে কলা বিভাগে পড়লে ২০০০টাকা করে স্কলারশিপ, বিজ্ঞান পড়লে ২৫০০টাকা করে স্কলারশিপ পাবে কন্যাশ্রীর মেয়েরা।
  • ইতিমধ্যেই ৫০লক্ষ মেয়ে কন্যাশ্রী। আগামী দিন এর সংখ্যা অনেক বাড়বে। কারণ, এখন থেকে সব মেয়েরাই কন্যাশ্রী।
  • পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণীর তপশিলি জাতি ও উপজাতির পড়ুয়াদের শিক্ষাশ্রী দেওয়া হচ্ছে।
  • ১কোটি ৭০লক্ষ সংখ্যালঘু পড়ুয়া স্কলারশিপ পেয়েছে।
  • প্রায় ৭৫লক্ষ তপশিলি জাতি ও উপজাতির পড়ুয়ারা স্কলারশিপ পেয়েছে।
  • কেন্দুপাতা সংগ্রাহকদের সুরক্ষা প্রকল্পে আনা হয়েছে।
  • একটি শিশু জন্মালেই গাছ দেওয়া হচ্ছে, সেই গাছটি শিশুটির সঙ্গে সঙ্গে বড় হবে। এক সময় সেই গাছটির বয়েস হবে ২লক্ষ টাকা। সেই শিশুটির তখন ওই টাকা কাজে লাগবে।
  • ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার কম যেসব পরিবারের আয়, তাঁদের রুপশ্রী প্রকল্পে মেয়ের বিয়ের জন্য সরকারকে আবেদন করলেই, সরকার ২৫০০০টাকা অনুদান দেবে।
  • সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্পে যে কোনও অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমজীবী মানুষ প্রতি মাসে ২৫ টাকা দেবে, সরকার ৩০ টাকা দেবে। ৬০ বছর বয়েস হলে সরকার ১৫০০ টাকা পেনশন দেবে, বছরে ৬০০০টাকা দেবে ছেলেমেয়ের পড়াশোনার জন্য এবং এককালীন ২ লক্ষ টাকা দেবে। ৬০ বছরের আগে কারোর স্বাভাবিক মৃত্যু হলে তার পরিবারকে ৫০০০০ টাকা এবং দুর্ঘটনায় মৃত্যু হলে ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। লোকপ্রসার শিল্পীরাও এই প্রকল্পের আওতায় আসতে পারেন।
  • লোকপ্রসার শিল্পীদের মাসে ১০০০ টাকা করে ভাতা দেওয়া হয়। এছাড়া, সরকারি সব প্রকল্পের বিজ্ঞাপনে তাঁদের কাজে লাগানো হয়। সেখানেও টাকা দেওয়া হয়।
  • সাংবাদিকদের চিকিৎসার জন্য মাভৈ প্রকল্প করা হয়েছে। অবসর নেওয়ার পর পেনশনের প্রকল্পও করা হয়েছে।
    চুক্তিভিত্তিক সরকারি কর্মী, ক্যাজুয়াল, আইসিডিএস কর্মী, আশা কর্মী, সিভিক ভলেন্টিয়ার সকলের অবসরের বয়েস ৬০ বছর করে দেওয়া হয়েছে। তাদের স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পেও আনা হয়েছে।
  • আইসিডিএস কর্মীদের আগে কেন্দ্র সরকার ৯০ শতাংশ বেতন দিত। এখন সেটাও মাত্র ৩০ শতাংশ দেয়। তার জন্যেও রাজ্য সরকারকে ১০০০টাকা করে বেশী দিতে হয়। আশা কর্মীদেরও ১০০০টাকা করে বাড়ানো হয়েছে।
  • সিভিক ভলেন্টিয়াররা আগে ৩০০০ টাকা পেত, এখন ৮০০০ টাকা পায়। প্যারাটিচারদেরও বেতন বাড়ানো হয়েছে। চুক্তিভিত্তিক শিক্ষকদেরও বেতন বাড়ানো হয়েছে।
  • প্রাণীমিত্ররা বামফ্রন্ট আমলে মাসে ৪০০ টাকা পেত, এখন ১৫০০ টাকা দেওয়া হয়।
  • আমাদের সরকার ২ টাকা কিলো চাল দেয়। আমাদের রাজ্যে প্রায় ৮ কোটি মানুষ ২ টাকা কিলো চাল পায়। প্রতি কিলোতে সরকারকে প্রায় ২৩ টাকা ভর্তুকি দিতে হয়।
  • সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে চিকিৎসা হয়। বেসরকারি হাসপাতালের জন্য ৫লক্ষ টাকা পর্যন্ত চিকিৎসার জন্য স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প করা হয়েছে। বাচ্চাদের মিড ডে মিল, ষ্টীলের থালা, গ্লাস দেওয়া হয়। আইসিডিএসএ মায়েদের বিনামূল্যে চিকিৎসা।
  • কোনও মা গর্ভবতী হলেই আগামী এক বছর অতিরিক্ত ৬০০০টাকা পায়।
  • মহিলাদের ৭৩১দিন মাতৃত্বকালীন ছুটির ব্যবস্থা হয়েছে। সন্তানের বাবাও ১মাস পিতৃত্বকালীন ছুটি পান।
  • কোনও গরীব মানুষ মারা গেলে, তার পরিবার সৎকার করতে আর্থিক ভাবে অসমর্থ হলে, সরকার সেই পরিবারকে সমব্যাথী প্রকল্পে ২০০০টাকা করে দেওয়া হচ্ছে। এই প্রকল্প দেশের আর কোথাও নেই।
  • ১ কোটি ছেলে মেয়েকে সবুজ সাথীর সাইকেল দেওয়া হয়েছে। প্রতি বছর নবম শ্রেণীর পড়ুয়াদের দেওয়া হচ্ছে।
  • বাংলার মানুষ সংস্কৃতিপ্রবণ মানুষ, বাংলার মানুষ মানবিক মানুষ, বাংলার মানুষ সভ্যতর সমাজের মানুষ।
    কৃষি জমির খাজনা আমাদের সরকার মুকুব করে দিয়েছে। কৃষি জমির মিউটেশন ফিও আমাদের সরকার প্রত্যাহার করে নিয়েছে।
  • বন্যা হলে বা খরা হলে, কৃষকদের পাশে আমরা গিয়ে দাঁড়াই। ৩০লক্ষ কৃষক পরিবারকে আমরা সাহায্য করেছি ১২০০ কোটি টাকা। কৃষকরা যাতে কৃষি যন্ত্র সহজে পেতে পারেন, সেজন্য আমরা কাস্টম হায়ারিং সেন্টার খুলে যন্ত্রপাতি কিনে দিই।
  • আলু চাষিদের সাহায্য করার জন্য আমরা সরকার থেকে টাকা দিচ্ছি।
  • চাল উৎপাদকরা আগের বছর পর্যন্ত ক্যুইন্টাল প্রতি ১৫৫০টাকা পেতেন, এবছর সেটা বাড়িয়ে ১৭৫০টাকা করা হয়েছে।
  • আগের সরকারের আমলে শিক্ষকরা সময়মত মাইনে পেতেন না, এখন সকলে ১তারিখে মাইনে পান।
  • ৬লক্ষ ছেলেমেয়েকে আমরা প্রশিক্ষণ দিয়ে চাকরির ব্যবস্থা করে দিচ্ছি। আগামী দুবছরে আরও ১২লক্ষ ছেলেমেয়েকে প্রশিক্ষণ দিয়ে চাকরির ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে।
  • বিভিন্ন ভাষার শিক্ষক নিয়োগ করা হচ্ছে। সরকারি কর্মচারী নিয়োগ করা হচ্ছে। ১লক্ষ সিভিক ভলেন্টিয়ার নেওয়া হচ্ছে।
  • সব রাজ্যের মানুষ নোটবন্দীর ফলে অসহায় হয়ে গেছে।
  • কত মানুষ কাজ হারিয়ে ফিরে এসেছে। অনেক মানুষ গুজরাটে কাজ করত, তাদের মেরে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আমরা কাউকে মারিনা।
  • অসম থেকে বাঙালী খেঁদাও করছে, গুজরাট থেকে বিহারী খেঁদাও করছে। অসমে যে ৪০লক্ষ ভোটারের নাম বাদ দেওয়া হয়েছে, তার মধ্যে ২৩ লক্ষ বাঙালী হিন্দু।
  • কোথায় ছিল বিজেপি? বিজেপি কবে জন্মেছে? হঠাত এখন হিন্দু হিন্দু করছে। দুর্গাপুজো করা কি বিজেপি শিখিয়েছে? কালীপুজো করা কি বিজেপি শিখিয়েছে? ঈদ পালন করা কি বিজেপি শিখিয়েছে? মারাঙ্গুরু পুজো করা কি বিজেপি শিখিয়েছে? হাজার হাজার বছর ধরে হিন্দু ধর্ম ছিল।
  • বেদ, রামায়ন, মহাভারত, গীতা, বাইবেল, কোরান, গ্রন্থসাহেব সব ছিল হাজার হাজার বছর ধরে ছিল।
  • এক সময় খেতে পেত না, আজ কোটি কোটি টাকা দিয়ে লোককে ভয় দেখাচ্ছে আর রাবণ যাত্রা করে বেড়াচ্ছে।
    সকলকে তার নাম, ধর্ম, জাত, গোত্র জিজ্ঞেস করছে। মনে হচ্ছে কেউ যেন এসব জিজ্ঞেস করার দায়িত্ব দিয়েছে।
    দলিতদের হনুমান বলছে, সংখ্যালঘুদের খুন করছে, হিন্দুদের তাড়িয়ে দিচ্ছে, খৃস্টানদের ওপর অত্যাচার করছে। যে পুলিশ একটা কেসের তদন্ত করছিল, তাকেও খুন করে দিচ্ছে। আমাদের পুর সহমর্মিতা আছে তার প্রতি। একের পর এক ফেক এনকাউন্টার করে খুন করেছে।
  • বিজেপির সকলে একেক জন ডাকাত সর্দার। শুধু ভাষণে মাস্টার। ১২০০০ কৃষক বিজেপি শাসিত রাজ্যে কেন আত্মহত্যা করল? কেন সব ধর্মের মানুষকে সম্মান দেননা? কেন লোক খুন করেন? কেন দাঙ্গা করেন? কেন সন্ত্রাস করেন? কেন আগুন লাগান?
  • আমায় আঘাত করলে, আমি প্রত্যাঘাত করি। আমরা ৩৪ বছর অনেক আন্দোলন করেছি। অনেক আন্দোলন করে বাংলা থেকে সিপিএমকে তাড়িয়েছি। আজ যে সিপিএম গুলো বিজেপিতে গিয়ে জুটেছে তাদেরও বলি আগামী দিনে আমরা তোমাদেরও বাংলা থেকে রাজনৈতিক ভাবে তাড়াব। আর বাংলায় হার্মাদ জন্মাতে দেব না।
    মানুষ ভালো আছে বলে ওদের হিংসে হচ্ছে।
  • পঞ্চায়েতের লোকরা দেখবে গ্রামের মানুষ যেন ঠিক ওজনের ২টাকা কিলো চাল পায়। সকলে যেন সব ভাতা ঠিকমত পায়।
  • আমরা ৪০লক্ষ মোট বাড়ি গরীব মানুষদের জন্য তৈরী করে দিয়েছি। আগামী দিনে আরও করে দেব।
  • আমাদের ৪৮,০০০ কোটি টাকা দেনা শোধ করতে হয় মাসে। ধার করে এই টাকা শোধ দিতে হয়। , তাও তো আজকে আমাদের বাংলা দ-টাকা কিলো চাল পায়, প্রায় বিনা মুল্যে চিকিৎসা পায়, কত গরীব মানুষ ঘর পায়। প্রায় ৯০% লোক কোন না কোন সরকারী প্রকল্পের পরিষেবা পায়।
  • আমরা এই কাজটাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। এই জেলায় নতুন রাস্তা হচ্ছে, ব্রীজ তৈরি হচ্ছে, এতে করে অনেক পর্যটক আসবে। আমি চাই আপনাদের ছেলেমেয়েদের এখান থেকে বাইরে গিয়ে কাজ করার কোন দরকার নেই, কারণ এখানে এত কাজ তৈরি হচ্ছে। আমরা মন্দারমনীতে বাড়িতে বাড়িতে হোম-স্টে করে দিচ্ছি, তাতে করে আপনারা ঘরে বসেই রোজগার করতে পারবেন।
  • আমরা আমাদের সাধ্যমত চেষ্টা করছি। বাজকুলের থেকে ১০ কিমি দূরে একটা চালের গোডাউন হচ্ছে। সুতরাং, যত কাজ হচ্ছে, আরও কাজ হোক। আপনারা সবাই ভাল করে কাজ করুন, সবাইকে সাথে নিয়ে কাজ করুন তবে এই জেলায় সোনা ফলবে।
  • আজকে কণ্যাশ্রীর মেয়েরা অকাল বিবাহ রুখে দেয়, অন্যায় দেখলে প্রতিবাদ করে, ওদের ক্লাব তৈরি হয়েছে, আর আমি চাই আগামীদেইনে কণ্যাশ্রীর মেয়েরা সারা পৃথিবী-র সামনে দৃষ্টান্ত হবে, কারণ ওরা মাথা নিচু করবে না, সমাজ, রাজ্য, দেশ গড়ে তুলবে।
  • আমার সবুজ সাথীদের বলতে চাই যে বাংলা প্রথম জায়গা যেখানে অর্থনৈতিক ভাবে পিছিয়ে পড়া সবার জন্য স্কলারশিপের ব্যবস্থা হয়েছে যা কোথাও নেই। এখানে জেনারেল কাস্ট-র লোকেরাও সব রকম সুবিধা পায়। সব ধর্মকে ভালোবাসতে হবে।
  • অনেক শিল্প বাংলায় তৈরি হচ্ছে, তাজপুরে বন্দর তৈরি হবে, তাতে এই জেলা আরও উন্নত হবে।
    মেয়েদের আরও এগিয়ে নিয়ে আসতে হবে, তাদের আরও কাজ করতে হবে, সমাজ গড়তে হবে। যে সমাজে মায়েরা নেই, সেই সমাজ এগোতে পারে না।
  • যার যা ধর্ম নিজের কাছে, উৎসব সবার। এটা সবাইকে মনে রাখতে হবে।আজকে জাতের নামে যারা বজ্জাতি করছে, তারা না জানে হিন্দু ধর্ম, না জানে ইসলাম ধর্ম না জানে অন্য কোন ধর্ম। ওরা শুধু দেশটাকে শেষ করে দিয়েছে, ব্যাঙ্ক লুটে নিয়েছে, কৃষকদের শেষ করে দিয়েছে।শুধু এদের দাঙ্গা করার মত নিয়ে সমাজকে শেষ করে দিতে চায়। এরা মানুষ তৈরি করতে পারে না, অমানুষ তৈরি করে। আমরা বলি মানুষ তৈরি কর। আমাদের রাজ্যে সবাই ভালো থাকুক।
  • গ্রাম বাংলা আমাদের প্রাণ।শহরে থাকলেও গ্রামকে আমরা ভালবাসি কারণ আমাদের প্রত্যেকের একটা করে গ্রামে ঠিকানা আছে। এবং সেটা হচ্ছে আমার মা-মাটি-মানুষ যা আমাদের চলতে শিখিয়েছে।
  • আমার কণ্যাশ্রীর মেয়েদের কাছে জানতে চাইছি, বিশ্বশ্রী হতে হবে তো, ডাক্তার তৈরি হতে হবে। আমাদের ডাক্তারের অভাব আছে। সবাইকে মাথা তুলে দাঁড়াতে হবে, কোন জিনিস খারাপ নয়, কোন কাজ খারাপ নয়। যে কাজ করে না, তার মন ভাল থাকে না, কুড়ে হয়ে যায়। অলস মস্তিষ্ক হচ্ছে শয়তানের কারখানা। খারাপ চিন্তা করলে হৃদয়টাও খারাপ হয়ে যায়। শরীর যখন আছে তখন মাঝে মাঝে খারাপও হতে পারে, কিন্তু কাজের মধ্যে থাকলে শরীর ভালো থাকবে।
  • ভালো থাকুন, ভালো মনে থাকুন। মা আপনাদের সকলকে ভালো থাকুন। আপনারা ভালো থাকুন, সুস্থ থাকবেন, জয় হিন্দ, বন্দেমাতরম, খোদা হাফিজ, জয় জোহার।