Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


December 5, 2018

Rs 3,000 cr allocated for Nijashree Scheme

Rs 3,000 cr allocated for Nijashree Scheme

Bangla Government has allocated Rs 3,000 crore to the Nijashree Scheme. Under this scheme, State Government-constructed residential units will be provided to low and middle-income groups.

There are two types of flats as part of the scheme – 1 BHK and 2 BHK. The price, area and application fee are Rs 7.2 lakh, 378 square ft (sq ft) and Rs 2,500, respectively for the former and Rs 9.28 lakh, 559 sq ft and Rs 5,000, respectively for the latter.

To apply for a 1 BHK flat, the maximum monthly family income should be Rs 15,000 and for a 2 BHK flat, Rs 30,000. The flats would be allotted through a lottery system. The application fee for the former is Rs 2,500 and for the latter, Rs 5,000.

The Housing Department would be constructing the flats, in places across the State. The initial allotment of Rs 3,000 crore is being provided by Asian Development Bank.

Besides Nijashree, the Bengal Government also runs other housing schemes, among them Gitanjai (for rural residents) and Banglar Bari (constructed by municipal bodies for the homeless).


ডিসেম্বর ৫, ২০১৮

নিজশ্রীতে বরাদ্দ ৩০০০ কোটি

নিজশ্রীতে বরাদ্দ ৩০০০ কোটি

রাজ্যের শহরাঞ্চলে গরীবদের জন্য বাড়ি তৈরীর পরিকল্পনা নিয়েছে রাজ্য সরকার। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই প্রকল্পের নাম দিয়েছেন ‘নিজশ্রী’। এর জন্য প্রাথমিকভাবে ৩ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

এই প্রকল্পে সরকারি জমিতে ফ্ল্যাট পাবেন নিম্নমধ্যবিত্তরা। যাঁদের মাসিক আয় ১৫ হাজারের নিচে, তাঁদের জন্য রয়েছে ৩৭৮ বর্গ ফুটের এক কামরার ফ্ল্যাটের সুযোগ। দাম আনুমানিক ৭ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা। যাঁদের মাসিক আয় ৩০ হাজারের নিচে, তাঁরা পাবেন দু’কামরার ফ্ল্যাট। ৫৫৯ বর্গ ফুটের এই ফ্ল্যাটের দাম প্রায় সাড়ে ন’লক্ষ টাকা।

তবে রাজ্যের বিভিন্ন শহরের নিরিখে ফ্ল্যাটের দামের তারতম্য থাকবে। যেমন কলকাতা–লাগোয়া হলে ফ্ল্যাটের দাম একটু বেশি হবে। কলকাতা শহর এলাকা ছাড়া সব জেলার শহরের আশপাশের সরকারি জমিতে এই ফ্ল্যাট হবে। আপাতত উত্তরবঙ্গ–দক্ষিণবঙ্গ মিলিয়ে ১০–১২টি জায়গায় তৈরী হবে ৫০ হাজার ফ্ল্যাট। আবাসন দপ্তরের ওয়েবসাইটে আবেদনপত্র গ্রহণ করা হবে। এর পর লটারির মাধ্যমে বণ্টন করা হবে ফ্ল্যাট।

নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষজনের বাড়ি তৈরীর ইচ্ছে থাকলেও, সাধ্যে কুলিয়ে উঠতে পারেন না। তাঁদের নিজস্ব মাথা গোঁজার ঠাই তৈরীতে সরকার পাশে দাঁড়িয়েছে। ইতিমধ্যেই জমি চিহ্নিতকরণের কাজ শুরু করে দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি খবরের কাগজে বিজ্ঞাপন দিয়ে আসানসোল, শিলিগুড়ি, ডাবগ্রাম ও হলদিয়ার জন্য আবেদন চেয়েছে আবাসন দপ্তর।

প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে গেলে আবেদনকারীর নিজের নামে এ রাজ্যে কোনও পাকা বাড়ি থাকা চলবে না। আবেদনকারী যে এলাকার জন্য আবেদন করবেন, সেই জেলারই বাসিন্দা হতে হবে। দরখাস্ত জমা দেওয়ার সময় এক কামরার ফ্ল্যাটের জন্য দিতে হবে ২,৫০০ টাকা। দু’কামরার জন্য দিতে হবে ৫ হাজার টাকা। ‘নিজশ্রী’ প্রকল্পে যারা ফ্ল্যাট পাবেন, তাঁদের জমি ও পরিকাঠামোর উন্নতি বা পুর–পরিষেবার জন্য কোনও টাকা দিতে হবে না।

রাজ্য সরকারের মূল লক্ষ্য এরাজ্যের প্রতিটি মানুষের মাথার ওপর ছাদ তৈরী করে দেওয়া। তার জন্যই নেওয়া হয়েছে বিভিন্ন প্রকল্প। নিজশ্রী, ‘বাংলার বাড়ি’ ছাড়াও গ্রামের জন্য রয়েছে ‘গীতাঞ্জলী’ প্রকল্প। পুরসভাগুলির নিজস্ব জমিতে বাড়ি তৈরী করে দেওয়ার প্রকল্প রয়েছে। এর নাম ‘বাংলার বাড়ি।’ যাদের নিজস্ব বাড়ি নেই তাঁদের জন্যই এই প্রকল্প চালু করা হয়েছে।

সৌজন্যেঃ আজকাল