Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


May 1, 2018

State Govt runs special schools for working children

State Govt runs special schools for working children

In order to prohibit children below 14 years from working in any occupation or process and also to regulate the working conditions of adolescents with respect to hours of work, rest, etc. in non-hazardous conditions, the Child and Adolescent Labour (Prohibition and Regulation) Amendment Act, 2016 came into force.

The Bengal Government runs special schools, administered under the Act, for working children. These schools are part of a country-wide project called National Child Labour Project (NCLP).

The project aims to provide working children with non-formal education, vocational training, supplementary nutrition and medical care. Working children between six and fourteen years old are provided with daily meals and supplementary education courses until they are ready to be enrolled in government schools.

All districts of Bengal are covered under NCLP. There are 862 special schools at present. The State Government has also notified converting one special school in each district into a residential school.

At present residential special schools are running in the districts of Uttar Dinajpur, Nadia, Purba Bardhaman, North 24 Parganas, South 24 Parganas, Bankura and Paschim Medinipur. The government is in the process of opening such schools in the rest of the districts.

 


মে ১, ২০১৮

শিশু শ্রম রুখতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ রাজ্য সরকার

শিশু শ্রম রুখতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ রাজ্য সরকার

২০১১ সালে বিপুল ক্ষমতায় আসার পর থেকেই শিশু শ্রম নিয়ন্ত্রণে একগুচ্ছ কর্মসূচী নিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস সরকার।

১৪ বছর ও তার নীচের যে কোনও শিশুকে কোনরকম বিপজ্জনক কাজে নিযুক্ত করা যাবে না এবং বিপজ্জনক নয়, এমন কাজও কোন শিশু করলে, তাকে নির্দিষ্ট সময়ের বেশী কাজ করানো যাবে না। কাজের পর তার উপযুক্ত বিশ্রামের ব্যবস্থা করতে হবে। এরই মাধ্যমে চাইল্ড অ্যান্ড অ্যাডলসেন্ট লেবার (প্রোহিবিশান অ্যান্ড রেগুলেশন) অ্যাক্ট, ২০১৬ কার্যকর করা হয়।

১. এনসিএলপি’র অন্তর্গত বিশেষ স্কুল

রাজ্যে ন্যাশানাল চাইল্ড লেবার প্রোজেক্টের অধীনে ৯৮৫টি স্কুল আছে, যার মধ্যে ৮৬২টি ইতিমধ্যেই চালু আছে।

২. রেসিডেনশিয়াল স্কুল

কর্মরত শিশুদের খাদ্য, বাসস্থান, জামাকাপড়, স্বাস্থ্য প্রদানের সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষা ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য একটি বিশেষ স্কুল খোলার কথা বলা হয়েছে রাজ্যকে। বর্তমানে উত্তর দিনাজপুর, নদীয়া, বর্ধমান, উত্তর ২৪ পরগনা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, বাঁকুড়া ও পশ্চিম মেদিনীপুরে এরকম স্কুল চালু আছে। বাকি জেলাগুলিতে এই স্কুল খোলার প্রক্রিয়া চলছে। ২০১৭-১৮ সালের রাজ্য বাজেটে এই বাবদ ৩০ লক্ষ টাকা খরচ করা হয়েছে ও ২০১৮-১৯ সালের বাজেটে এই বাবদ ৪০ লক্ষ টাকা ধার্য করা হয়েছে।