Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


May 19, 2018

Subsidised ration for over 3 crore people during the month of Ramzan

Subsidised ration for over 3 crore people during the month of Ramzan

The State Government has decided to supply sugar, gram (chola) and flour (maida) at subsidised rates during holy the month of Ramzan. There would also be special supply of packaged mustard oil, though not at a subsidised rate.

The subsidised items would be given to families enlisted under the Antyodaya Anna Yojana (AAY) scheme and the families which are Special Priority Households (SPH), both categorisations being a part of the National Food Security Act. The number of people under these two categories in Bengal adds up to a little over 3 crore.

Earlier, the Government had advertised its decision to supply 500 gram (g) of sugar in two instalments at Rs 36 per kilogram (kg). As a welcome decision, the subsidy has been increased further to reduce the price to Rs 30 per kg.

Flour would be sold at Rs 18 per kg while flour would be sold at Rs 46 per kg. A litre of mustard oil would be sold at Rs 91 while 500 millilitre at Rs 47.

During the month of Ramzan each eligible family would be entitled to 500 g each of sugar, gram and flour, and a litre of mustard oil.

These measures once again prove Chief Minister Mamata Banerjee’s commitment to the needy people of Bengal. The Trinamool Congress Government is a Maa-Mati-Manush Government, as Mamata Banerjee calls it, in the real sense of the term.

Source: Bartaman


মে ১৯, ২০১৮

তিন কোটির বেশি মানুষকে রমজান মাসে রেশনে ভর্তুকিতে চিনি, ছোলা, ময়দা

তিন কোটির বেশি মানুষকে রমজান মাসে রেশনে ভর্তুকিতে চিনি, ছোলা, ময়দা

রাজ্য সরকার রমজান মাসে রেশন গ্রাহকদের একটা অংশকে ভর্তুকিতে চিনি, ছোলা ও ময়দা সরবরাহ করবে। প্যাকেটের সরষের তেলও দেওয়া হবে। তবে তেলের ক্ষেত্রে কোনও ভর্তুকি দেওয়া হচ্ছে না।

রমজান মাসে পরিবার পিছু ৫০০ গ্রাম করে দুই দফায় চিনি দেওয়া সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি আগেই জারি করেছিল খাদ্য দপ্তর। তখন ৩৬ টাকা কেজি দরে চিনি দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছিল। দপ্তর সূত্রের খবর, ভর্তুকি আরও বাড়িয়ে ৩০ টাকা কেজি দরে চিনি দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জাতীয় খাদ্য সুরক্ষা প্রকল্পের আওতায় থাকা অন্ত্যোদয় ও স্পেশাল প্রয়োরিটি হাউসহোল্ড (এসপিপিএইচ) শ্রেণীর গ্রাহকরাই শুধু এগুলি পাবেন। এই দুই শ্রেণীর রেশন গ্রাহকের সংখ্যা তিন কোটির কিছু বেশি।

ময়দা, ছোলা ও সরষের তেল সরবরাহ করার বিজ্ঞপ্তি খাদ্য দপ্তর জারি করেছে। প্রতি কেজি ময়দা ও ছোলাতে পাঁচ টাকা করে ভর্তুকি দেওয়া হচ্ছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। ২১ টাকা ৬৯ পয়সা কেজি দরে ময়দা কিনছে খাদ্য দপ্তর। পাঁচ টাকা ভর্তুকি দেওয়ায় ডিস্ট্রিবিউটররা ওই ময়দা পাচ্ছেন ১৬ টাকা ৬৯ পয়সা দরে। ডিস্ট্রিবিউটর ও ডিলারদের কমিশন যুক্ত হয়ে ওই ময়দার বিক্রয়মূল্য ধার্য হয়েছে ১৮ টাকা।

খাদ্য দপ্তর ৪৯ টাকা ৮৫ পয়সা কেজি দরে ছোলা কিনছে। পাঁচ টাকা ভর্তুকি দিয়ে ওই ছোলা ডিস্ট্রিবিউটরদের দেওয়া হচ্ছে ৪৪ টাকা ৮৫ পয়সায়। কমিশন যুক্ত হওয়ার পর গ্রাহকরা ছোলা পাবেন ৪৬ টাকা কেজি দরে। সরষের তেলে কোনও ভর্তুকি নেই। গ্রাহকরা প্রতি লিটার তেল পাবেন ৯১ টাকা দরে। ৫০০ মিলিলিটারের দাম ৪৭ টাকা। গ্রাহকদের রমজান মাসে দুই দফায় পরিবার পিছু ৫০০ গ্রাম করে চিনি, ময়দা ও ছোলা দেওয়া হবে। সরষের তেলের বরাদ্দ এক লিটার করে।