Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


May 20, 2018

20 schemes that transformed Bengal in the last seven years

20 schemes that transformed Bengal in the last seven years

After coming to power in 2011, Chief Minister Mamata Banerjee and her Trinamool Congress Government have created a whole host of developmental schemes for the people of Bengal. As a result, the state has seen progress like never before.

As Maa, Mati, Manush Government completes seven years, let us take a look at 20 schemes that have transformed Bengal in the last seven years:

1. Kanyashree

One of the landmark programmes of the Trinamool Congress Government, the Kanyashree Prakalpa, launched in 2013, is a scheme for empowering the girl child through enabling their education and thus, preventing their marriage at an early age. It has three components, names K1, K2 and K3, for those in school, after school and in post-graduation, respectively.

The scheme has brought more than 48 lakh adolescent girls under its fold covering over 16,600 institutions across every corner of Bengal.

2. Sabuj Sathi

Sabuj Sathi is a scheme, launched in 2015, for gifting bicycles to students of classes IX, X, XI and XII, both boys and girls, to make it easier for even those living in far-off places, to come to school and go back home conveniently. The green-coloured bicycles have noticeably improved attendance and have proved to be a tool of student empowerment, just like Kanyashree.

There have been 70 lakh beneficiaries (that is, 70 lakh bicycles have been distributed) till date.

3. Khadya Sathi

Through the Khadya Sathi Scheme, launched in 2016, the State Government is ensuring food security for the people of the state, the hallmark of the scheme being giving 5 kilogram (kg) of rice or wheat per family member per month at Rs 2 per kg. There are special arrangements under this scheme for those below the poverty line, affected by the Cyclone Aila, working in tea gardens, living in the Jangalmahal region, those in Singur whose farmlands were snatched away for setting up industries by the Left Front Government, and a few other categories.

8.66 crore people, comprising about 90.6 per cent of the state’s population, have been covered under this scheme.

4. Sabujshree

Sabujshree is an innovative scheme which connects two noble causes – protecting the environment and promoting girl children. Under the scheme, launched in 2016, the mother of a new-born girl child is handed over saplings for free to plant in some place where it can be taken care of – so the tree grows up under her care just like her girl child. 15 lakh seedlings have been distributed so far.

5. Shikshashree

Shikshashree is a scholarship scheme, begun in 2014, for scheduled caste (SC) category students from classes V to VIII. The scholarship is being paid directly into the bank accounts of the students. During financial years 2014-17, almost 38 lakh students were covered under this scheme.

6. Gatidhara

Through the Gatidhara Scheme, launched in 2014, the government provides loans of upto Rs 10 lakh on easy instalment basis to enable people to buy cars, small trucks, etc. for commercial use, with a subsidy of 30 per cent or up to Rs 1 lakh over the sanctioned loan while repaying the loan. Families with a monthly income of Rs 25,000 or less qualify for financial support under this scheme.

As of March 2017, the total number of beneficiaries covered is 13,393 and the amount of subsidy disbursed is Rs 125 crore.

7. Gitanjali

Gitanjali is a housing scheme, introduced in 2011, meant for providing shelter to people belonging to economically weaker sections (EWS). A grant of Rs 70,000 is provided to a beneficiary in the plains whereas Rs 75,000 is provided to a beneficiary from the Hills region, the Sundarbans and Jangalmahal.

Till March 2017, benefits have been extended to 2 lakh 98 thousand 745 families.

8. Lok Prasar Prakalpa

The scheme, Lok Prasar Prakalpa was started in 2014 to rejuvenate the folk arts of Bengal coupled with the aim of disseminating social messages and information on the various developmental schemes run by the State Government. Folk artistes between 18 and 60 years of age receive a retainership fee of Rs 1,000, and in addition an opportunity for four performances per month, with Rs 1,000 paid for each. Senior artistes, that is, those above 60, receive a similar sum as monthly pension.

As of March 2017, benefits have been extended to nearly 1.94 lakh folk artistes.

9. Fair Price Medicine Shops

The purpose of Fair Price Medicine Shops (FPMS) or (in Bengali) ‘Najyamuller Aushadher Dokan’, first established in 2012, is to ensure round-the-clock availability of quality medicines, consumables, surgical items, implants, etc. at pre-approved discounted rates over the maximum retail price (MRP), to enable people from all economic backgrounds to buy them. These types of medicine shops are located at State Government-run hospitals and medical college-cum-hospitals.

Till March 2017, 112 Fair Price Medicine Shops have been set up, selling goods at discounts of 48 to 78 per cent on the MRP. As of December 2016, the total sales have been Rs 1,331 crore and patients availed discounts worth Rs 829 crore, with 2.93 crore prescriptions being served from these facilities.

10. Shishu Sathi

Shishu Sathi Prakalpa is a programme which was launched (in 2013) for providing free-of-cost operations for children up to the age of 18 years, covering the treatment of congenital cardiac diseases, cleft lip/palate and club foot. It is available at all State Government hospitals having paediatric facilities and at three private hospitals, namely, RN Tagore International Institute of Cardiac Sciences, BM Birla Heart Research Centre (both in Kolkata) and Durgapur Mission hospital.

About 12,000 children have received treatment through this scheme, so far.

11. Shishu Aloy

Shishu Aloys, launched in 2012, are a type of advanced Anganwadi Centres, aimed at making children ready for school at the age of 6 years. Here, children are prepared for schools in every possible way as well as provided with nutritious food; they also get medical assistance.

As of March 2017, 2,000 Shishu Aloys were developed across all districts and two more at the Dum Dum and Alipore Correctional Homes to facilitate children of inmates. On November 25, 2017, which is celebrated by the State Government as Shishu Aloy Dibas, 10,000 more Shishu Aloys were inaugurated across Bengal.

12. Pathasathi

The project consists of developing wayside facilities for travellers on national and state highways and other important roads, named ‘Pathasathi’, run by self-help groups, societies, West Bengal Tourism Development Corporation (WBTDC) or certain designated agencies. Each of these has a bathroom, a passenger’s waiting room, family rooms and a restaurant. A total of 67 such facilities are being constructed.

13. Swasthya Sathi

Swasthya Sathi, announced in 2016, is a cashless group health insurance scheme (that is, including families) for all those employed by the State Government’s departments, both permanently and part-time. It is meant for various categories of employees like panchayat functionaries, para-workers like ASHAs, anganwadi workers and civic police volunteers, contractual, part-time and daily wage earners under various departments, teachers and non-teaching staff of primary schools, secondary schools and government-aided madrasahs, and others.

As of March 2017, there were more than 35 lakh beneficiaries and their families enrolled. Later, in September, the benefits were extended to include a total of 55.5 lakh more government employees and volunteers and their families.

14. Sabala

Sabla is a scheme, begun in 2011, for adolescent girls, which aims to improve the nutritional and health status of girls between 11 to 18 years of age and equip them with life skills training and knowledge on family welfare, health and hygiene, and information and guidance on existing public services. It is being implemented on a pilot basis in seven districts namely, Cooch Behar, Jalpaiguri, Alipurduar, Malda, Nadia, Kolkata and Purulia through 29,444 Anganwadi Centres from 141 ICDS projects.

The benefits of the Sabla Scheme have reached 12.72 lakh girls between the ages of 11 and 18 years.

15. Anandadhara

The Anandadhara Scheme, initiated in 2012, is an anti-poverty programme for the rural poor, implemented through the organising of women into self-help groups (SHG). The number of blocks involved in the programme has increased from 32 during financial year 2012-13 to 158 during 2016-17, and consequently, the number of SHGs has increased from 3.18 lakh to 4.58 lakh, respectively. During 2016-17, the credit accessed from banks was Rs 3,329.81 lakh, against a target of Rs 3,274.9 lakh (101.68%)

16. Yuvashree

Yuvashree was launched in 2013 to extend financial assistance of Rs 1,500 per month to 1 lakh of the job seekers registered in the employment bank portal, launched earlier by the government, selected on the basis of criteria like education (those who have passed at least eighth standard) and age group (beneficiaries must be in the age group of 18 to 45 years). The recipients of the allowance are required to use it for training, vocational or otherwise, which will make them fit for employment.

17. Samabyathi and Baitarani

Samabyathi is a scheme, notified in 2016, for providing money to the next of kin of poor people in rural regions for organising their funerals. Rs 2,000 is paid disbursed per funeral. Since the introduction of the programme, 25,478 households have been benefited by this initiative and a sum of Rs 5.1 crore has so far been disbursed.

18. Swabalamban

Swabalamban is a scheme implemented through NGOs and companies for imparting vocational training to socially marginalised and distressed women, victims of trafficking, sex workers, the transgender community and women in moral danger, in the age
group of 18 to 35 years; if necessary, the upper age limit for such category of women is relaxed up to 45 years.

Beneficiaries successfully placed at renowned outlets like Wow Momo, Pantaloons, Kothari, Au Bon Pain and others. Thirty Kanyashree beneficiaries have been trained under the Swabalamban Scheme by Brainware as unarmed security guards, out of whom 16 have been successfully placed in different organisations.

19. Khelashree

The Khelashree Scheme, inaugurated in 2017, is a developmental initiative to encourage sporting activities. As per the scheme, Madhyamik and Higher Secondary schools, High Madrasahs, colleges, universities, all clubs from the first to the fifth divisions of the Kolkata League and all clubs and sports institutions which have been getting annual financial aids from the State Government, would be given five footballs each.

20. Safe Drive Save Life

The Safe Drive Save Life programme was started in 2016 to bring down road accidents in the State. It has been appreciated by the Supreme Court recently.

As a result of the programme, the number of road accidents in the state has reduced by 19.52 per cent. Naturally, the number of deaths and cases of injury have also come down by 11.5 per cent and 14 per cent, respectively.

Special Mention – Mission Nirmal Bangla

Bengal has constructed the most number of toilets as well as used up the highest amount of funds for constructing toilets. In 2013, Nadia became the first ODF district in India. The state reported 21,324 villages as ‘Declared ODF’, covering 1,929 GPs, till May 17, 2017, which is the highest in the country.

This initiative of the State Government achieved international recognition when it was selected as the first place winner for the 2015 United Nations Public Service Award in the category of ‘Improving the Delivery of Public Services’.

 


মে ২০, ২০১৮

২০টি প্রকল্প যা সাত বছরেই নিশ্চিত করেছে বাংলার উন্নয়ন

২০টি প্রকল্প যা সাত বছরেই নিশ্চিত করেছে বাংলার উন্নয়ন

২০১১ সালে রাজ্যে পালাবদল হয়। রাজ্যের শাসনভার গ্রহণ করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস। বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে মাত্র সাত বছরেই উন্নয়নের এক নতুন জোয়ার এনেছে মা, মাটি, মানুষের সরকার।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক ২০টি এমন প্রকল্প যা বদলে দিয়েছে রাজ্যের পরিস্থিতিঃ-

 

১. কন্যাশ্রী

২০১৩ সালের ১লা অক্টোবর এই প্রকল্প চালু হয়। এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য বাল্যবিবাহ রোধ করা।
রাজ্যের প্রতি অঞ্চলের প্রায় ১৫,৫০০ প্রতিষ্ঠান – প্রথা বহির্ভূত বিদ্যালয়, মাদ্রাসা, কলেজ, মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিশ্ব বিদ্যালয় বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, শিল্প প্রশিক্ষণ, এমনকি ক্রীড়া প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রায় ৪৪ লক্ষ কিশোরীকে এই প্রকল্পের অধীনে আনা হয়েছে।

২. স্ববলম্বন

সমাজের প্রান্তিক, অসহায় মহিলা, নারীপ্রচার চক্র থেকে উদ্ধার হওয়া মহিলা, যৌনকর্মী, রূপান্তরকামী সম্প্রদায় এবং ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সী ও নৈতিক বিপদের সম্মুখীন মহিলাদের বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে অবশ্য বয়স ৪৫বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য। এই প্রকল্পটি বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) অথবা কোম্পানির মাধ্যমে রূপায়িত হচ্ছে। প্রশিক্ষণ প্রাপকেরা ওয়াও মোমো, প্যান্টালুন্স, কোঠারি, অউ বোঁ পে প্রভৃতি বিভিন্ন প্রখ্যাত বিপণিতে সফলভাবে কাজ করছেন। ৩০ জন কন্যাশ্রী মেয়েকে ব্রেইনওয়্যার-এর ব্যবস্থাপনায় এই স্বাবলম্বন প্রকল্পের অধীন আনআর্মড সিকিউরিটি গার্ড-এর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে, যাদের মধ্যে ১৬জন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত।

৩. সবলা

২০১১ সালের জুলাই মাস থেকে রাজ্যের সাতটি জেলা- কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, মালদা, নদীয়া, কলকাতা এবং পুরুলিয়ায় পাইলট ভিত্তিতে ১৪১টি আইসিডিএস প্রজেক্ট থেকে ২৯৪৪৪টি অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে সবলা প্রকল্পটি চলছে কিশোরী মেয়েদের জন্য (যার উদ্দেশ্যে ১১-১৮বছর বয়সী মেয়েদের পুষ্টিগত ও স্বাস্থ্যগত অবস্থার উন্নতি এবং জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জনে প্রশিক্ষণ দিয়ে যোগ্য করে তোলা)।

১১-১৮ বছর বয়সী ১২.৭২ লক্ষ কিশোরী মেয়ে সবলা প্রকল্পের মাধ্যমে সুবিধা পাচ্ছে এবং জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন এবং পরিবার কল্যাণ, স্বাস্থ্য এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন, বর্তমান পরিষেবাগুলি সম্পর্কে তথ্য ও নির্দেশ পাচ্ছে।

গত ছয় বছরে বিভিন্ন জেলায় প্রায় ৪১ হাজার বিদ্যালয় বহির্ভূত কিশোরী মেয়ে যাদের বয়স ১৬ থেকে ১৮, বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা/স্বেচ্ছাসেবী প্রশিক্ষিত ব্যক্তিদের (ভিটিপিএস) মাধ্যমে বিউটিশিয়ান, হস্তশিল্প, সেলাই, ছাপাখানা এবং ডাইং, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ-এর মতো বিভিন্ন পেশার বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

৪. সবুজ সাথী

২০১৫-১৬ সালে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে সাইকেল বিতরণের জন্য সবুজ সাথী প্রকল্পটি ঘোষণা করা হয়। ২০১৫ সাল থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে প্রায় ৭০ লক্ষ্ ছাত্রছাত্রী এই প্রকল্পের অধীনে বিনামূল্যে সাইকেল পেয়েছে।

৫. খাদ্যসাথী

আর্থিক ভাবে দুর্বল পরিবারকে ২টাকা কিলো দরে চাল ও গম দেওয়া হয়। পরিবারের প্রত্যেকে মাসে সর্বাধিক ৫কিলো চাল বা গম পেতে পারবে এই প্রকল্পের আওতায়।

এপর্যন্ত রাজ্যের প্রায় ৮.৬৬ কোটি মানুষের কাছে এই প্রকল্প পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়েছে।

৬. আনন্দধারা

রাজ্যের আর্থিকভাবে দুর্বল নারীদের স্বনির্ভর গোষ্ঠীতে সংগঠিত করে এক ব্যাপক গ্রামীণ দারিদ্র বিরোধী কার্যক্রম শুরু করতেই এই উদ্যোগ। ২০১২ সালের ১৭ই মে মুখ্যমন্ত্রী এই ফ্ল্যাগশিপ প্রকল্পের সূচনা করেন।

এই কর্মসূচীর অধীনে ২০১২-১৩ সালের ব্লক সংখ্যা ৩২ থেকে বেড়ে ১৫৮ হয়েছে, গোষ্ঠীর সংখ্যা ৩.১৮ লক্ষ্ থেকে বেড়ে ৪.৫৮ লক্ষ হয়েছে। ৩২৭৪.৯ লক্ষ টাকার লক্ষ্যমাত্রার সাপেক্ষে ব্যাঙ্ক থেকে প্রাপ্ত ঋণের পরিমাণ ৩৩২৯.৮১ লক্ষ টাকা (১০১.৬৮%)।

৭. গতিধারা

এমপ্লয়মেন্ট ব্যাঙ্কে নাম নথিভুক্ত করিয়েছেন, রাজ্যের এমন কর্মহীন যুবক-যুবতীদের জন্য রাজ্য সরকারের ১০০ শতাংশ ভর্তুকি প্রাপ্ত প্রকল্প হল এটি। ২০১৫-১৬ সালে এই প্রকল্প পরিবহন দপ্তর হাতে নেওয়ার পর থেকে এখনও পর্যন্ত ১৩৩৯৩ জন উপকৃত হয়েছেন এই প্রকল্পে এবং ১২৫ কোটি টাকা ভর্তুকি হিসেবে প্রদান করা হয়েছে।

৮. ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকান

সঠিক গুণমানের ওষুধ, সার্জিকাল সরঞ্জাম, কনজিউমেবল ইমপ্ল্যান্ট, পেসমেকার, কার্ডিয়াক স্টেন্ট ইত্যাদি এমআরপি-র ওপর ৪৮-৭৮% ছাড়ে সরবরাহ করার জন্য মেডিক্যাল কলেজ থেকে গ্রামীণ হাসপাতাল, বিভিন্ন জায়গায় ১১২টি ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকান খোলা হয়েছে।
২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১৩৯৯ কোটি টাকার বিক্রি নথিভুক্ত করা হয়েছে ও প্রায় ৮৭৩ কোটি টাকার ছাড় পেয়েছে ৩ কোটিরও বেশী মানুষ।

৯. সমব্যাথী

২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে ‘সমব্যাথী’ নামে দরিদ্র কল্যাণে একটি নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে, যার মাধ্যমে কোনও মৃত ব্যাক্তির সৎকারের জন্য তাঁর নিকটতম আত্মীয়কে ২০০০ টাকা অনুদান প্রদান করা হয়। এই কর্মসূচী চালু হওয়ার পর এ পর্যন্ত ২৫৪৭৮টি পরিবার উপকৃত হয়েছে ও এই বাবদ ৫.১ কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে।

১০. মিশন নির্মল বাংলা

২০১৩ সালে মিশন নির্মল বাংলা চালু করে রাজ্য সরকার। নদীয়া জেলাকে দেশের প্রথম নির্মল জেলা ঘোষিত করা হয়। ১৭ই মে ২০১৭ পর্যন্ত রাজ্যে ১৯২৯টি গ্রাম পঞ্চায়েতের এলাকাধিন ২১৩২৪টি গ্রাম ‘ঘোষিত নির্মল গ্রাম’ হয়েছে। এটি দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর জন্য রাষ্ট্রসংঘের প্রশংসা কুড়িয়েছে রাজ্য সরকার।

১১. স্বাস্থ্য সাথী

এই প্রকল্পে পঞ্চায়েত কর্মী এবং আশা, অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী, সিভিক ভলান্টিয়ারকে এই অভিনব ক্যাশলেস গ্রুপ স্বাস্থ্য সুরক্ষা প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে। ৩৫ লক্ষেরও বেশী উপকৃতের নাম নথিভুক্ত হয়েছে এবং ১৩০০০-এর বেশী মানুষ স্বাস্থ্য পরিষেবা পেয়েছেন।

১২. শিশু সাথী

১৮ বছর পর্যন্ত শিশুদের কনজেনিট্যাল কার্ডিয়াক ডিজিজেস, ক্লেফট লিপ/প্যালেট ও ক্লাব ফুট সমস্যার জন্য বিনামূল্যে শল্য চিকিৎসার উদ্দেশ্যে ‘শিশুসাথী’ নামে একটি কর্মসূচী চালু হয়েছে। এখনও পর্যন্ত মোট ১২০০০ শিশু এই প্রকল্পের অধীনে চিকিৎসা পেয়েছে।

১৩. পথ সাথী

পথচারী মানুষের কষ্ট লাঘবের জন্য, বিশেষ করে মহিলাদের ক্ষেত্রে পথের পাশে শৌচাগার না থাকলে যেরকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় তা লাঘবের জন্য সরকার এক ছাদের তলায় কিঞ্চিৎ অর্থের বিনিময়ে ব্যবহারযোগ্য শৌচাগার, প্রতিক্ষালয়, রাত্রিবাসের ব্যবস্থা এবং রেস্তরাঁ সম্বলিত পথসাথী নির্মাণ করছে।

এই পথসাথী প্রত্যেক জাতীয় সড়ক, রাজ্য সড়ক এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সড়কের পাশে প্রতি ৫০ কি.মি. অন্তর একটি করে স্থাপন করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই এ ধরণের ৩১ টি পথসাথী নির্মিত হয়েছে। এই ৩১ টির মধ্যে ১২ টি আবাসন বিভাগ এবং পূর্ত বিভাগের আর্থিক সহায়তায় আনুমানিক ৬.৫০৮৮ কোটি টাকা এবং বাকি ১৯ টি আবাসন অধিকার এর আনুমানিক ৩৭.৩১ কোটি টাকা খরচ হয়েছে।

১৪. গীতাঞ্জলি

আর্থিকভাবে দুর্বল শ্রেণীর মানুষের জন্য বাড়ি তৈরী করে দিতে রাজ্যের নতুন প্রকল্প ‘গীতাঞ্জলি’ চালু হয়েছে। এই প্রকল্পে সমতল এলাকায় সুবিধাপ্রাপকদের একক প্রতি ৭০হাজার টাকা দেওয়া হয়। পাহাড়, সুন্দরবন এবং জঙ্গলমহল এলাকায় অতিরিক্ত ৫হাজার টাকা দেওয়া হয়।

গীতাঞ্জলি হাউজিং স্কীম সম্পর্কিত এবং এ যাবত অনুমোদিত ৯৯১৩টি ইউনিটের মধ্যে ৯৩৩০টি ইউনিট সম্পূর্ণ হয়েছে।

২০১১ সাল থেকে শুরু করে এখনও পর্যন্ত এই প্রকল্পে ২৯৮৭৪৫টি পরিবার উপকৃত হয়েছে।

১৫. লোকপ্রসার

বাংলার লোকশিল্পের পুনরুজ্জীবন ঘটিয়ে লোকশিল্পীদের মাধ্যমে সামাজিক বার্তা ও রাজ্য সরকারের নানা প্রকল্প সম্বন্ধে তথ্য সাধারন মানুষের মধ্যে পৌঁছে দেওয়ার উদ্দেশ্যে এই অন্যতম প্রধান কর্মসূচীর সূচনা হয়েছে।

এখনও পর্যন্ত প্রায় ১ লক্ষ ৯৪ হাজার লোকশিল্পীকে এই প্রকল্পের আওতায় মাসিক বহাল ভাতা, পেনশন এবং অনুষ্ঠান পিছু সম্মান দক্ষিণা দেওয়া হচ্ছে।

১৬. সবুজশ্রী

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের আরও একটি মাইলস্টোন প্রকল্প চালু হচ্ছে – ‘সবুজ শ্রী’। এই প্রকল্পের মাধ্যমে শিশু কন্যাদের জন্মের পর তাদের নামে একটি করে গাছ রোপণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। একটি পরিবার বন বিভাগের কাছ থেকে একটি চারাগাছ পায় এবং তাদের শিশুর নাম দ্বারা এটির নামকরণ করে তাহলে প্রতি বছর রাজ্য জুড়ে প্রায় ১৫ লক্ষ চারা রোপণ করা সম্ভব হবে। শিশু কন্যাটি যখন পূর্ণ বয়স্ক হবে, তখন এই গাছটি বিক্রী করে তার উচ্চশিক্ষা চালাতে পারবে।

১৭. শিক্ষাশ্রী

পঞ্চম শ্রেণী থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত পাঠরত তপসিলি জাতিভুক্ত ছাত্রছাত্রীদের বিদ্যালয়ে উপস্থিতি বাড়ানো, এবং বিশেষ করে স্কুলছুট ছাত্রীদের হার কমানোর জন্য রাজ্য সরকারের নেওয়া প্রকল্পটির ‘শিক্ষাশ্রী’ নাম দেওয়া হয়েছে। শিক্ষাশ্রী প্রকল্পে সরকার পরিচালিত সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত এবং সরকার স্বীকৃত স্কুলগুলিতে পঞ্চম শ্রেণী থেকে অষ্টম শ্রেণীতে পাঠরত সকল তপসিলি জাতিভুক্ত ছাত্রছাত্রীদের আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়। এর মূল উদ্দেশ্য প্রাক-মাধ্যমিক পর্যায়ে পঞ্চম শ্রেণী থেকে অষ্টম শ্রেণীভুক্ত ছাত্রছাত্রীদের।

১৮. শিশু আলয়

প্রাক-শৈশব যত্ন এবং শিক্ষা (ইসিসিই)-র ব্যবস্থা করার জন্য শিশুদের প্রাক-শৈশবে শিক্ষার বিকাশ ঘটানো এবং বিদ্যালয়ে যাওয়ার জন্য তাদের তৈরী করার সুযোগ সৃষ্টি করতে সকল জেলা মিলিয়ে ২০০০টি ‘শিশু আলয়’ তৈরী হয়েছে। দমদম এবং আলিপুর সংশোধনাগারের আবাসিক শিশুদের প্রাক-শৈশব শিক্ষার জন্য দুটি ‘শিশু আলয়’ তৈরী হয়েছে। রাজ্যে ২০০২টি শিশু আলয়ে-ই উন্নত ইসিসিই কিট সরবরাহ করা হয়েছে।

১৯. যুবশ্রী

নথিভুক্ত ১ লক্ষ কর্মপ্রার্থীকে প্রতি মাসে ১৫০০ টাকার আর্থিক সাহায্যকল্পে মুখ্যমন্ত্রী ৩ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে এই প্রকল্প চালু করেন।

২০. খেলাশ্রী

২০১১ সাল থেকে মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের যুব কল্যাণ ও ক্রীড়া দপ্তরের উদ্যোগে চালু হয়েছে ‘খেলাশ্রী’প্রকল্প। এই প্রকল্পের অধীনে খেলাধুলার উন্নয়ন ও পরিকাঠামো নির্মাণের লক্ষ্যে যুব কল্যাণ ও ক্রীড়া দপ্তর ক্লাব ও সংগঠনগুলিকে অনুদান দেয়। মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল, হাই মাদ্রাসা, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, কলকাতা লিগের ১ম ডিভিশন থেকে ৫ম ডিভিশন পর্যন্ত সমস্ত ক্লাব এবং অনুদানপ্রাপ্ত সব ক্লাব ও সংগঠন।

বিশেষ উল্লেখ: সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ

২০১৬ সালের জুলাইয়ে চালু হয় বাংলার নিজস্ব ‘সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ’ সচেতনতামূলক কর্মসূচী। পথ নিরাপত্তায় এটি অভিনব কর্মসূচী দেশের মধ্যে। এই কর্মসূচির ব্যাপক প্রচারের ফলে গত বছরের শেষ ছ’মাসের তুলনায় চলতি বছরের প্রথম ছ’মাসে পথ-দুর্ঘটনা কমেছে প্রায় ১৫%। প্রাণহানিও কমেছে।