Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


May 23, 2018

Bengal Govt to expand training facilities for making ‘Joyee’ football

Bengal Govt to expand training facilities for making ‘Joyee’ football

With the immense success of its ‘Joyee’ brand of football in the past one year, Refugee Handicrafts, an enterprise under the State Micro, Small and Medium Enterprise and Textiles Department, has now decided to expand its facilities.

According to the plan, the number of centres to train people on making of the Joyee footballs would be increased to five. The new training centre will be coming up at Baghnapara in Keshabpur village of the district of Purba Bardhaman. Infrastructure will be built to train around 200 people.

Currently there are four training centres – at Shibpur in Howrah district, at Tarakeswar and Chandannagar in Hooghly district, and at Alipore Central Correctional Home.

After going through the training programme, the women get raw materials from Refugee Handicrafts, which they take back home and manufacture footballs in their free time. Through this venture, manufacturing of football is gradually becoming a major industry in the MSME sector in Bengal.

It may be mentioned that Refugee Handicrafts was set up in 1950 with the aim of providing refugees with a means of livelihood. They used to prepare different handicraft products and the State Government used to support them to sell it in market. But later, the organisation had almost lost its significance due to the lackadaisical attitude of the Left Front Government.

It was then revived under the baton of Chief Minister Mamata Banerjee. Her brainchild was to involve former footballers from the state to revive, through Refugee Handicrafts, the football manufacturing industry in the state. It was put into action by engaging the rural populace, mainly women, who were provided with training to make footballs.

 

Source: Millennium Post

 


মে ২৩, ২০১৮

জয়ী ফুটবল তৈরীর প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে আরও মানুষকে

জয়ী ফুটবল তৈরীর প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে আরও মানুষকে

গত এক বছরে ক্ষুদ্র, মাঝারি, কুটির ও বস্ত্র শিল্পের অধীনস্থ রিফিউজি হ্যান্ডিক্রাফটসের তৈরী জয়ী ফুটবল পেয়েছে অভূতপূর্ব সাফল্য। তাই এই সংস্থা জয়ী ফুটবল তৈরীতে আরও মানুষকে নিযুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর জন্য জয়ী ফুটবল তৈরীর প্রশিক্ষণ কেন্দ্র বাড়িয়ে ৫টি করা হবে।

এই মুহূর্তে চারটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র আছে: হাওড়ার শিবপুরে, হুগলী জেলার চন্দননগর ও তারকেশ্বরে এবং আলিপুর সংশোধনাগারে। নতুন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটি তৈরী হবে পূর্ব বর্ধমান জেলার কেশবপুর গ্রামের বাঘনাপাড়ায়। এখানে ২০০ জনকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার পরিকাঠামো থাকবে।

প্রসঙ্গত, ১৯৫০ সালে এই রিফিউজি হ্যান্ডিক্রাফটস সংস্থা গঠন করা হয় উদ্বাস্তুদের কর্মসংস্থানের জন্য। তাদের তৈরী বিভিন্ন হস্তশিল্প সামগ্রী বিপণন করে রাজ্য সরকার। বাম আমলে অবহেলার ফলে রিফিউজি হ্যান্ডিক্রাফটস-এর অস্তিত্ব সংকটের মুখে পরে। ২০১১ সালে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় আসার পর প্রাক্তন ফুটবলারদের রিফিউজি হ্যান্ডিক্রাফটস সংস্থায় নিযুক্ত করা হয়। তারাই গ্রামীণ মহিলাদের দিয়ে ‘জয়ী’ ফুটবল তৈরী করার উদ্যোগ নেন।

মহিলারা প্রশিক্ষণ পাওয়ার পর, রিফিউজি হ্যান্ডিক্রাফটসের তরফ থেকে কাঁচামালের যোগান পান। তারপর তারা বাড়ি গিয়ে নিজেদের অবসর সময়ে ফুটবল তৈরী করে থাকেন। এর ফলে তাদের জীবিকা নির্বাহ হয়।