Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


May 7, 2018

Students in Bengal upset over errors in NEET Bengali question paper

Students in Bengal upset over errors in NEET Bengali question paper

Many students of Bengal appearing for the National Eligibility-cum-Entrance Test (NEET) 2018 were visibly upset on Sunday, May 6, as they found out that their question papers in Bengali were filled with errors and there were ambiguities in many of the questions. In many cases, there was no proper Bengali translation. Students lost precious time over spelling errors, bizarre words and translation errors.

Over 59,000 students appeared for the examination across the State. There was a palpable sense of anger and dismay outside the exam centres as the students who sat for answering it in Bengali felt they had been wronged. One student, on the condition of anonymity, said, “I have worked so hard to prepare for this exam. Now I feel all my work has gone down the drain. The Centre is penalising us students who have studied in State Board schools. ICSE and CBSE students are getting an unfair advantage while students who have studied in vernacular languages are suffering”.

Trinamool Congress, along with the DMK, were the first to strongly raise their voice over this issue in Parliament.
Trinamool’s Derek O’Brien addressed the HRD Minister and said, “This year in Bengal and Tamil Nadu, out of 56,000 people who took that exam, 40,000 wrote it in Bengali; they got a separate paper, and the results have been disastrous. Those boys and girls, in our two States of Tamil Nadu and Bengal have been deprived”.

In the previous year also there was a furore over the standard of the question paper in most vernacular languages, with the medical aspirants from Bengal and from some other States alleging that their questions were much tougher than the ones in made in English and Hindi.

 

 


মে ৭, ২০১৮

নীটের বাংলা প্রশ্নপত্রে ভুলের জন্য ক্ষুব্ধ পরীক্ষার্থীরা

নীটের বাংলা প্রশ্নপত্রে ভুলের জন্য ক্ষুব্ধ পরীক্ষার্থীরা

নীট বিভ্রাটে ক্ষুব্ধ বাংলার ছাত্রছাত্রীরা। গত ৬ই মে এ রাজ্য থেকে যারা ন্যাশানাল এলিজিবিলিটি কাম এনট্রেন্স টেস্ট ২০১৮ দিয়েছিলেন, তাদের সম্মুখীন হতে হয় ভুল ও বিভ্রান্তিতে ভরা প্রশ্নপত্রের। উপযুক্ত সংখ্যায় প্রশ্নপত্র মজুত ছিল না এবং অনেক ক্ষেত্রে উপযুক্ত নির্দেশিকাও ছিল না বাংলায়। এর ফলে ছাত্রছাত্রীদের অনেক সময় নষ্ট হয়।

সারা রাজ্যে ৫৯,০০০ জন নীট পরীক্ষা দেন এই বছর। পরীক্ষাকেন্দ্রের বাইরে ছাত্রছাত্রীদের অনেকেই বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। এক বিক্ষুব্ধ পরীক্ষার্থীর কথায়, ‘আমি এত খাটলাম এই পরীক্ষার জন্য, এখন মনে হচ্ছে সমস্তটাই নষ্ট হল। রাজ্যের বোর্ডে পড়া ছাত্রছাত্রীদের শাস্তি দেওয়া হচ্ছে। আইসিএসই ও সিবিএসই পড়ুয়ারা অন্যায্য সুযোগ পাচ্ছে। যারা আঞ্চলিক ভাষায় পড়েছে, তারা ভুগছে।’

অতীতে তৃণমূল ও ডিএমকে সংসদে নীট বিভ্রাটের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়। মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রীকে তৃণমূলের ডেরেক ও’ব্রায়েন বলেন, এই বছর বাংলা ও তামিলনাড়ুতে যে ৫৬০০০ জন পরীক্ষায় বসেন, তার মধ্যে ৪০০০০ জন বাংলায় পরীক্ষা দেন। ইংরেজি ও বাংলায় আলাদা প্রশ্নপত্র হওয়ায় ফলাফল খুব ভয়ানক হয়। বাংলা ও তামিলনাড়ুর ছাত্রছাত্রীরা উপেক্ষিত হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছরও নীট পরীক্ষার প্রশ্নপত্র নিয়ে তোলপাড় হয়েছিল দেশ। তর্জমার বদলে বিভিন্ন ভাষায় বিভিন্ন প্রশ্নপত্র তৈরী করা হয়েছিল এবং এতে ইংরেজি ও হিন্দিভাষী ছাত্রছাত্রীদের সুবিধা হয়। যার ফলে অন্যান্য ভাষার ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছিল। আবারও প্রশ্ন বিভ্রাট মনে করিয়ে দিল সেই কথা।