Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


July 6, 2018

Achievements of the Cooperation Department

Achievements of the Cooperation Department

The cooperative sector is a major success story in Bengal. As per the direction of Chief Minister Mamata Banerjee, the State Cooperation Department, by empowering cooperatives societies, upgrading numerous societies to banks to overcome the problem of lack of banks in far-flung areas, and through loans from cooperative banks, creating lakhs of self-help groups (SHG), has enabled the rural populace of Bengal to enjoy an economic revival like never before.

In total, there are more than 28,000 cooperative societies having a membership of more than 78 lakh, and lakhs of self-help groups involving more than 18 lakh people.

Achievements of the Cooperation Department

Huge increase in loan dispersals: Over the last seven financial years, that is, 2010-11 to 2017-18, crop loan disbursed has increased by 143.88 per cent (from Rs 1,388 crore to Rs 3,385 crore) and loan given to SHGs has increased by 374.42 per cent (Rs 129 crore to Rs 612 crore).

Huge increase in paddy procurement: Over the last seven financial years, that is, 2010-11 to 2017-18, quantity of paddy procured by BENFED and CONFED has increased by 157.87 per cent (1.97 lakh MT to 5.08 lakh MT), whose corresponding value increased by 124.5 per cent (Rs 351 crore to Rs 788 crore).

BENFED is the acronym for West Bengal State Cooperative Marketing Federation Ltd. While CONFED is the acronym for West Bengal State Consumers Cooperative Federation Ltd.

Crop loans: During financial year (FY) 2016-17, more than 50 per cent of crop loans in Bengal, or Rs 3,018 crore, was extended by cooperative banks only. Over the last seven years, crop loans to the tune of Rs 18,162 crore have been disbursed.

Kisan Credit Cards: During the last seven years, 8,97,664 Kisan Credit Cards (KCC) have been issued. ATM-enabled RuPay Kisan Cards has been introduced and already around 10 lakh cards have been distributed amongst the farmer-members.

Membership drives: A special initiative was taken to enhance membership of cooperative societies, as a result of which 1,51,602 new members have been enrolled by primary agricultural cooperative societies (PACS).

Elections for cooperative societies: Cooperative Election Commission was set up for holding free and fair elections for management of cooperative societies. It started functioning from April 16, 2012, since when, elections to 8,262 societies have been held.

Financing: During the 2017-18 fiscal, West Bengal State Cooperative Agricultural and Rural Development (WBSCARD) Bank received the highest ever refi­nance of Rs 212 crore from NABARD.

Crop loans: There are 23,70,281 Kisan Credit Card (KCC) holders and crop loans worth Rs 2,005.33 crore have been disbursed to 8,41,424 farmer-members.

Self-Help Groups (SHG): FY 2017-18 saw the creation of 1,721 SHGs and the credit-linking of 18,029 SHGs. Loans worth Rs 612.25 crore have been extended to SHGs.

Kharif marketing season (KMF): During KMS 2016-17, 28 lakh metric tonnes (LMT) of the 39 LMT of paddy procured was through cooperative societies.

Seed multiplication units: As part of the cooperative sector, 57 seed multiplication units have been set up; another three, involving Rs 1.14 crore, are to be completed soon.

Godowns: Four storage godowns, having a total capacity of 5,462 MT, have been constructed at a cost of Rs 2.73 crore.

Cold storages: Construction of six cold storages, having a total capacity of 49,000 MT, is going on at a cost of Rs 67.18 crore.

Samabay Bhavan: The purpose of Samabay Bhavans is to bring all the district offices and institutions of the cooperative sector under one roof to ensure smooth and hassle-free service. So far, Bhavans have been completed in Purba Bardhaman (Bardhaman), Paschim Bardhaman (Asansol), Bankura, Purulia, North 24 Parganas and Paschim Medinipur. Construction is going on in Malda.

Sufala outlets: Sufala outlets are being opened across more and more districts to provide quality vegetables and grocery items to the masses at fair prices. For selling at these State Government-owned outlets, the government buys directly from the farmers thus helping them get remunerative prices. So far, 30 Sufala outlets have been opened across six districts and 70 Mobile Sufala outlets have been opened across seven districts.

Fairs and conventions: Samabay Mela 2017 was organised from April 11 to 13, 2017 at Netaji Indoor Stadium, Kolkata to showcase the achievements and products prepared by the cooperative societies and self-help groups. At the function, Samabay Ratna, Samabay Bhushan and Samabay Shri awards were bestowed on cooperatives. On January 25, 2018, the fi­rst-ever convention on cooperatives in Bengal since independence, titled ‘Cooperatives in Socio-Economic Development’, was held at Netaji Indoor Stadium. It was inaugurated by the Chief Minister.

Government to citizen services: An initiative has been taken by the Cooperation Department to incorporate the services offered in terms of the West Bengal Cooperative Societies Act and the rules therein into the e-District Project under the National e-Governance Plan through which government-to-citizen services will be provided online. The objective is to ensure prompt and effective delivery of services in a transparent manner. A total of 89 services have been identified for the purpose, of which six services have already gone live, nine more services are ready to be deployed live and development work of the remaining services are under process.

Awards: Nadia District Central Cooperative Bank Ltd., Krishnanagar has received the award for best performance in the country during FY 2017-18 for outstanding performance in SHG development.

 


জুলাই ৬, ২০১৮

সমবায় দপ্তরের সাফল্য

সমবায় দপ্তরের সাফল্য

গত ছয় বছরে রাজ্য সরকারের সমবায় দপ্তর সাফল্যের সঙ্গে কাজ করে চলেছে। ফলও মিলেছে আশানুরুপ।

এই মুহূর্তে রাজ্যে ২৮,০০০ এরও বেশী সমবায় সমিতি আছে, যার সদস্য সংখ্যা ৭৮ লক্ষেরও বেশী। এছাড়া লক্ষ স্বনির্ভর গোষ্ঠী আছে যাতে ১৮ লক্ষ মানুষ নিযুক্ত আছে।

দেখে নেওয়া যাক, এই দপ্তরের কিছু উল্লেখযোগ্য সাফল্য

শস্য ঋণ: ২০১৬-১৭ সালে কৃষি ঋণের অর্ধেকটাই দিয়েছে সমবায় ব্যাঙ্ক। সমস্ত বেসরকারি ও রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্ক যেখানে সব মিলিয়ে ঋণ দিয়েছে ২৯৭০ কোটি টাকা, সেখানে সমবায় ব্যাঙ্ক এককভাবে ঋণ দিয়েছে ৩০১৮ কোটি টাকা। গত সাত বছরে প্রদান করা হয়েছে ১৮১৬২ কোটি টাকা।

কিষাণ ক্রেডিট কার্ড: গত সাত বছরে ৮৯৭৬৬৪ কিষাণ ক্রেডিট কার্ড তৈরী করা হয়েছে। আনুমানিক ১০ লক্ষ এটিএমএর সুবিধাযুক্ত রূপেয় কিষাণ কার্ড বিলি করা হয়েছে কৃষকদের মধ্যে।

সদস্য বাড়ানো: ২০১৭-১৮ সালে, সমবায় সমিতির সদস্য সংখ্যা বাড়ানোর বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ফলস্বরূপ, ৩১শে ডিসেম্বর ২০১৭র মধ্যে প্রাথমিক কৃষি ঋণ সমবায় সমিতি ১,৫১,৬০২জন নতুন সদস্যর নাম নথিভুক্ত করেছে।

সমবায় সমিতির নির্বাচন: সমবায় সমিতিগুলির স্বচ্ছ নির্বাচনের জন্য সমবায় নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়েছে। ২০১২ সালের ১৬ই এপ্রিল থেকে কাজ করা শুরু করে। এখনও পর্যন্ত তারা ৮২৬২ টি সমিতির নির্বাচন পরিচালনা করেছে।

অর্থায়ন: ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট কোঅপারেটিভ এগ্রিকালচারাল অ্যান্ড রুরাল ডেভেলপমেন্ট নাবার্ডের থেকে সর্বকালীন সর্বোচ্চ পুনঃঅর্থায়ন পায় ২১২ কোটি টাকার।

শস্য ঋণ: ৩১শে ডিসেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত কিষাণ ক্রেডিট কার্ড প্রাপকের সংখ্যা ২৩,৭০,২৮১ এবং ৮,৪১,৪২৪ কৃষককে ২০০৫.৩৩ কোটি টাকার শস্য ঋণ প্রদান করা হয়েছে।

স্বনির্ভর গোষ্ঠী: ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত, ১,৭২১টি নতুন স্বনির্ভর গোষ্ঠী তৈরী করা হয়েছে এবং ১৮,০২৯ টি স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সঙ্গে ক্রেডিট লিঙ্ক করা হয়েছে। ৬১২.২৫ কোটি টাকা ঋণ দেওয়া হয়েছে সমবায় গোষ্ঠীগুলিকে।

খারিফ বিপণন মরশুম: ২০১৬-১৭ সালের খারিফ মরশুমে ৩৯ লক্ষ ধানের মধ্যে ২৮ লক্ষ মেট্রিক টন সমবায়ের মাধ্যমে সংগ্রহ করা হয়েছে।

বীজ গুণ কেন্দ্র: ৫৭ টি বীজ গুণ কেন্দ্র খোলা হয়েছে সমবায় দপ্তরের অধীনে। আরও তিনটি কেন্দ্র তৈরী করা হচ্ছে ১.১৪ কোটি টাকা ব্যয়ে।

গুদামঘর: এই অর্থবর্ষে চারটি ৫,৪৬২ মেট্রিক টন ক্ষমতা সম্পন্ন গুদামঘর তৈরী করা হয়েছে ২.৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ে।

হীম ঘর: ৬৭.১৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪৯,০০০ মেট্রিক টন ক্ষমতা সম্পন্ন ৬টি হিমঘর তৈরী করা হয়েছে।

সমবায় ভবন: এই বছরে বাঁকুড়াতে সমবায় ভবন নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। এই সমবায় ভবনগুলিতে সমবায় দপ্তরের সমস্ত জেলা অফিস ও প্রতিষ্ঠানগুলি এক ছাতার তলায় আসবে, ফলে, সাধারণ মানুষ সমবায় দপ্তরের সাহায্য পাবেন নির্বিঘ্নে।

সুফলা বাংলা: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগ, ‘সুফলা বাংলা’ আগের বছর শুরু হয়েছে। ৬ জেলায় ৩০টি ‘সুফলা’ বিপণন কেন্দ্র, ৭ টি জেলায় ৭০টি ‘মোবাইল সুফলা’ বিপণী খোলা হয়েছে।

পুরস্কার: ২০১৭ সালের ১১-১৩ই এপ্রিল নেতাজী ইনডোর স্টেডিয়ামে সমবায় মেলা অনুষ্ঠিত হয়। এই মেলায় সমবায় রত্ন, সমবায় ভূষণ, সমবায় শ্রী পুরষ্কার প্রদান করা হয়।

প্রথম সমবায় সম্মেলন: স্বাধীনতার পর প্রথম সমবায় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ২৫শে জানুয়ারি ২০১৮তে। নেতাজী ইনডোর স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এই সম্মেলনের শীর্ষক ছিল ‘আর্থ সামাজিক উন্নয়নে সমবায়’।

ঋণ প্রদান বেড়েছে: সাত আর্থিক বছরে অর্থাৎ ২০১০-১১ থেকে ২০১৭-১৮ শস্য ঋণ প্রদান বেড়েছে ১৪৩.৮৮ শতাংশ (১৩৮৮ কোটি থেকে ৩৩৮৫ কোটি) এবং স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে প্রদান করা ঋণ বেড়েছে ৩৭৪.৪২ শতাংশ (১২৯ কোটি টাকা থেকে ৬১২ কোটি টাকা)।

ব্যাঙ্কিং পয়েন্ট: মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশানুসারে গ্রাম পঞ্চায়েত অঞ্চলে সমবায় ব্যাঙ্কের ২৫০টি নতুন ব্যাঙ্কিং পয়েন্ট খোলা হয়েছে। সমবায় ক্ষেত্রে জমা রাশি ৩৫০০০ কোটি থেকে বেড়ে ১০০০০০ কোটি হয়েছে।

ধান উৎপাদন বেড়েছে উল্লেখযোগ্য ভাবে: গত সাত আর্থিক বছরে অর্থাৎ ২০১০-১১ থেকে ২০১৭-১৮ সালে বিইএনএফইডি এবং সিওএনএফইডি’র মাধ্যমে ধান উৎপাদন বেড়েছে ১৫৭.৮৭ শতাংশ (১.৯৭ লক্ষ মেট্রিক টন থেকে ৫.০৮ লক্ষ মেট্রিক টন), যার মূল্য বেড়েছে ১২৪.৫ শতাংশ (৩৫১ কোটি টাকা থেকে ৭৮৮ কোটি টাকা)।

সরকারি পরিষেবা: সমবায় দপ্তর একটি উদ্যোগ নিয়েছে যার মাধ্যমে ওয়েস্ট বেঙ্গল কোঅপারেটিভ সোসাইটিস অ্যাক্ট এর পরিষেবা এবং যা নিয়ম আছে, তা ই-ডিস্ট্রিক্ট প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত করা। এর ফলে পরিষেবা প্রদান হবে স্বচ্ছ। মোট ৮৯টি পরিষেবা চিহ্নিত করা হয়েছে, তার মধ্যে ছটি ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে। আরও নয়টি পরিষেবা খুব শীঘ্রই চালু হবে।