Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


July 31, 2018

I want my nation to be united, won’t allow divisive forces: Mamata Banerjee

I want my nation to be united, won’t allow divisive forces: Mamata Banerjee

Bengal Chief Minister Mamata Banerjee today addressed a Conclave by CBCI office for Education & Culture and Pilar Fathers (Delhi Province) at the Constitution Club of India, New Delhi. The theme of the talk was ‘Love your neighbour’.

During her speech, the CM vocally advocated for communal harmony, and slammed the ruling party at Centre for their divisive politics. Referring to the plight of citizens not included in the National Register for Citizens (NRC) in Assam, she said one cannot divide and rule.

She reiterated her commitment towards working for all, irrespective of their caste, creed, religion or community.

Highlights of her speech:

  • I am deeply honoured and privileged. I have been invited to speak on the subject ‘Love your neighbour’. It is a beautiful subject. We all love our neighbours.
  • Christian missionaries are doing good work in the social and educational sector. They are running 54,937 schools with six crore students, 30 lakh employees and more than 1000 health centres are run by missionaries. You are doing very beautiful work.
  • You work for the downtrodden, the poor, the underprivileged. I have seen Christian missionaries in north Bengal tea gardens and Kolkata. I am overwhelmed by their actions.
  • I knew Mother Teresa very well. I remember some incidents related to her. During the riots after Babri Masjid demolition, I had seen Mother Teresa helping people in Sealdah area.
  • Jesus Christ had preached about loving your neighbour. What did he mean by that? It is clear – you must love all. You cannot divide and rule.
  • If any individual commits a crime, why is the Missionaries of Charity being targeted by a particular party?
  • What is going on in Assam? The NRC problem. It is not only the Bengalis, it is the minorities, it is Hindus, it is Bengalis, it is Biharis. More than 40 lakhs people voted yesterday for the ruling party and suddenly today they have been made refugees in their own country.
  • The family of former President Fakruddin Ali Ahmed is also not on the NRC list. What will they say? Is this ‘love your neighbour’?
  • What we are watching nowadays is of great concern. Justice is being denied. When people are helpless, we have to provide them protection.
  • What is happening with tribals, Dalits, minorities – we are not supporting this. Should we love those who are carrying out lynchings?
  • My first prerogative is to be with the people. Why should Christians, Muslims, Dalits, tribals be isolated?
  • Please extend your cooperation fully to the helpless people. I don’t understand their audacity. They are saying now it has happened in Assam, next it will be done in Bengal. How can they decide who will stay in this country and who will not?
  • India is our motherland. Anybody can stay in any part of the country. If Bengalis say Biharis can’t stay in Bengal, South Indian people say North Indians can’t stay there and North Indians say South Indians can’t stay here. What will be state of this country, because we are together. Our country is a family.
  • As long as I am alive, I will ensure justice will not be denied. Underprivileged people will not be deprived. I want my nation to be united, I will not allow divisive forces.
  • Are only supporters of ruling party (BJP) allowed to stay in India? What happened in Jharkhand may happen in Chhattisgarh and Bihar. It will not happen in Bengal, we are there to provide protection.
  • Only to win polls people can’t be victimised. Don’t you think people who’s name isn’t in list will lose a part of their identity? Please understand India-Pakistan-Bangladesh were one before partition. Whoever came from Bangladesh to India till March 1971 is Indian citizen.
  • India is a secular country. Just because I am in power, I will destroy everything, that cannot be! It is like a megalomaniac People cannot be victimised only for electoral politics.Many people from my State have been put in detention camps. Are they not Indians?
  • Let us be together. Let us love our neighbour worldwide, nationwide, statewide, district-wise, community-wise, caste-wise, religion-wise.

জুলাই ৩১, ২০১৮

বিভেদের রাজনীতি মানি না: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

বিভেদের রাজনীতি মানি না: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

আজ বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লীর কনস্টিটিউশন ক্লাবে একটি কনক্লেভে অংশগ্রহণ করেন। এই কনক্লেভের আয়োজক CBCI office for Education & Culture and Pilar Fathers (Delhi Province)। এই  কনক্লেভের মূল আলোচ্য বিষয় ছিল ‘Love your neighbour’।

তার বক্তব্যে, মুখ্যমন্ত্রী জোর গলায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির পক্ষে সওয়াল করেন। কেন্দ্রীয় সরকারের বিভেদমূলক রাজনীতির তীব্র নিন্দাও করেন তিনি। অসমে রাষ্ট্রীয় নাগরিক পঞ্জিতে যাদের নাম ওঠেনি, সেই নাগরিকদের দুর্দশার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিভেদের রাজনীতি তিনি মানেন না।

সারা বিশ্বে, সারা দেশে, সারা রাজ্যে, সব জেলায়, জাতি, বর্ণ, ধর্ম নির্বিশেষে একজোট হয়ে ভালোবাসার বার্তা ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানান মুখ্যমন্ত্রী।

তার বক্তব্যের কিছু অংশ:

 

  • আমি আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞ ও সম্মানিত যে আমায় “Love your neighbour” বিষয়ে বক্তব্য দিতে আমন্ত্রণ করা হয়েছে। এটি খুবই সুন্দর বিষয়। আমরা সবাই নিজের প্রতিবেশীকে ভালোবাসি।
  • খ্রিস্টান মিশনারিরা সামাজিক ও শিক্ষা ক্ষেত্রে অসাধারণ কাজ করছে। তারা ৫৪,৯৩৭ স্কুল চালাচ্ছেন যেখানে ছ’কোটি শিশু পড়াশোনা করে। তাদের স্কুলে ৩০ লক্ষ কর্মচারী আছে। এছাড়া মিশনারিরা ১০০০টি স্বাস্থ্যকেন্দ্র চালায়। আপনারা ভালো কাজ করছেন।
  • আপনারা সমাজের নিপীড়িত, গরীব, উপেক্ষিত লোকেদের নিয়ে কাজ করেন। আমি উত্তরবঙ্গ এবং কলকাতায় মিশনারিদের দেখেছি। তাদের কাজ দেখে আমি অভিভূত।
  • মাদার টেরেজার সাথে আমার পরিচয় ছিল। আমি তাঁর সঙ্গে ঘটা কিছু দুর্ঘটনার কথা জানি। তার সাথে আমার বেশ কিছুবার সাক্ষাৎ হয়েছিল। বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পর কলকাতায় যখন দাঙ্গা হয়েছিল তখন আমি ওনাকে দেখেছিলাম শিয়ালদায় মানুষের পাশে থেকে কাজ করতে।
  • যীশু খ্রীস্ট আমাদের শিখিয়েছেন নিজেদের প্রতিবেশীকে ভালোবাসতে। তিনি এর মাধ্যমে কি বলতে চেয়েছেন? তিনি বলেছিলেন সকলকে ভালবাসতে হবে। তুবিভেদের রাজনীতি করা উচিত না।
  • কোনও ব্যাক্তিবিশেষ যদি কোনও খারাপ কাজ করে, তার জন্য মিশনারিজ অফ চ্যারিটিকে কেন একটি রাজনৈতিক টার্গেট করছে?
  • অসমে কি হচ্ছে? রাষ্ট্রীয় নাগরিক পঞ্জী সমস্যা। এএই সমস্যা শুধু বাঙালি, সংখ্যালঘু, হিন্দু, বিহারীদের নয়। ৪০ লক্ষ নাগরিক কাল যারা শাসক দলকে ভোট দিয়েছিল, আজ রাতারাতি তারা নিজের দেশেই উদ্বাস্তু হয়ে গেলেন।
  • এমনকি প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ফকরুদ্দিন আলি আহমেদের পরিবারের নাম নাগরিক পঞ্জীতে নেই। এর জবাব কি তারা দেবে? এটাই কি প্রতিবেশীকে ভালোবাসার নিদর্শন?
  • আজকাল চারপাশে যা হচ্ছে, তা উদবেগের কারণ। মানুষ ন্যায় পাচ্ছে না। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো, তাদের নিরাপত্তা প্রদান করাই আমাদের কর্তব্য।
  • আদিবাসী, দলিত, সংখ্যালঘুদের সঙ্গে যা করা হচ্ছে, আমরা সমর্থন করি না। যারা lynching করে, আমরা কি তাদের সমর্থন করব?
  • আমার প্রথম লক্ষ্য মানুষের পাশে থাকা। কেন খ্রীস্টান, মুসলমান, দলিত, আদিবাসীদের একঘরে করা হবে?
  • আপনারা অসহায় মানুষের দাঁড়ান। কিছু লোকের কি ঔদ্ধত্য। তারা বলছে, এখন যা অসমে করা হচ্ছে, পড়ে তা বাংলায় করা হবে। তারা কে ঠিক করার কে এদেশে থাকবে আর কে নয়?
  • ভারতবর্ষ আমাদের মাতৃভূমি। যেকোনো প্রান্তের মানুষ দেশের যেকোনো প্রান্তে থাকতে পারে। আমরা একটা পরিবার। আমাদের একসঙ্গে থাকতে হবে। যদি বাঙালীরা বলে বাংলায় বিহারিরা থাকতে পারবে না, দক্ষিণ ভারতীয়রা যদি বলে এখানে কোনও উত্তর ভারতীয় থাকতে পারবে না, আবার যদি উত্তর ভারতীয়রা বলে এখানে কোনও দক্ষিণ ভারতীয় থাকতে পারবে না, দেশের অবস্থা কি হবে?
  • যতদিন আমি বেঁচে আছি, ততদিন আমি মানুষের ন্যায়ের জন্য লড়ব। পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর মানুষ বঞ্চিত করা হবে না। আমি ঐক্যবদ্ধ ভারতে বিশ্বাসী, আমি বিভেদমূলক রাজনীতিকে প্রশ্রয় দেব না।
  • শুধু কি ক্ষমতাসীন দল (বিজেপি) সমর্থকরা ভারতে থাকতে পারবেন? ঝাড়খন্ডে যা ঘটেছে তা ছত্রিশগড় এবং বিহারে ঘটতে পারে কিন্তু বাংলায় ঘটবে না, আমরা সেখানে সুরক্ষা প্রদান করছি।
  • শুধুমাত্র নির্বাচনে জয়লাভ করার জন্য মানুষকে হয়রান করা যায় না। যাদের নাম এই তালিকায় নেই, তারা কি পরিচয় হারালো না? মনে রাখবেন, ভারত-পাকিস্তান-বাংলাদেশ বিভাজনের আগে এক দেশ ছিল। বাংলাদেশ থেকে মার্চ ১৯৭১ সাল পর্যন্ত যারা এদেশে এসেছেন তারা সবাই ভারতীয় নাগরিক।
  • ভারত একটি ধর্মনিরপেক্ষ দেশ। আমি ক্ষমতায় আছি বলে আমি সবকিছুই ধ্বংস করব, তা হতে পারে না! এটা তো নিজেকে বড় বা শক্তিশালী বলে ভাবার বাতিক। শুধুমাত্র নির্বাচনী রাজনীতির জন্য মানুষকে হয়রান করা যাবে না। আমার রাজ্যের অনেক মানুষকে আটকে রাখা হয়েছে। তারা কি ভারতীয় নয়?
  • আসুন আমরা সবাই একজোট হয়ে ভালোবাসার বার্তা ছড়িয়ে দিই, সারা বিশ্বে, সারা দেশে, সারা রাজ্যে, সব জেলায়, জাতি, বর্ণ, ধর্ম নির্বিশেষে।