Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


December 16, 2018

Govt calls for progress report of ongoing rural projects by Feb 15

Govt calls for progress report of ongoing rural projects by Feb 15

The State Panchayats & Rural Development Department has directed all rural bodies to submit reports on the overall development and status of various ongoing projects by February 15, 2019.

The department has further directed the heads of various bodies to connect to the masses on issues of development and infrastructure. The gram panchayat representatives should interact with villages at the ground level, learn about problems, if any, that are being faced by them about the condition of roads, electrical connections for homes and availability of drinking water.

A total of 3,207 gram panchayats have been entrusted to prepare the reports that will help the panchayat boards to prioritise work as per the demands of the people..

It may be mentioned that Bangla has again emerged as the frontrunner in the 100 Days’ Work Scheme. The State has nearly achieved the target for the year, three months before the deadline.

The target for the State for the financial year (FY) 2018-19, set by the Central Government, was creating 25 crore man-days by March 31, 2019. Till Thursday, December 6, the number of man-days created was 23 crore 22 lakh 87 thousand. The State Government is confident of comfortably exceeding the target.

In FY 2017-18 too, the State had overtaken the Centre’s target of 23 crore man-days by creating 31.25 crore man-days.

The average number of working days in the 2017-18 was 60. This financial year, the number will already touch 59 by the end of December.

In the 2017-18 fiscal, Rs 7,000 crore was spent to give salaries to 52 lakh families. This year, Rs 7,000 crore has already been spent for 49.53 lakh families, as of December 6.

 


ডিসেম্বর ১৬, ২০১৮

উন্নয়ন: পঞ্চায়েত মানুষের মত নেবে

উন্নয়ন: পঞ্চায়েত মানুষের মত নেবে

গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় আরও উন্নয়ন কীভাবে করা যায়, সে বিষয়ে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে গ্রাম পঞ্চায়েতগুলিকে৷ কোথায় আরও রাস্তা, পানীয় জল, আলোর প্রয়োজন তা জানতে মানুষের মতামত নেওয়া হবে৷ ১৫ই ফেব্রুয়ারির মধ্যে এই রিপোর্ট পঞ্চায়েত দপ্তরে জমা দিতে বলা হয়েছে৷

পঞ্চায়েত নির্বাচন হয়ে বোর্ডও গঠন শেষ৷ ৩ হাজার ২০৭টি গ্রাম পঞ্চায়েত রয়েছে৷ এই গ্রাম পঞ্চায়েতগুলি মানুষের সঙ্গে কথা বলে উন্নয়নমূলক কাজের খসড়া তৈরী করবে৷ এই খসড়ার রিপোর্ট পাওয়ার পর পঞ্চায়েত দপ্তর মানুষের চাহিদা অনুযায়ী বাকি কাজ সেরে ফেলবে।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে মন্ত্রীরা পশ্চিমবঙ্গের উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রেখেছেন। রাস্তাঘাট, স্কুল-কলেজ হয়েছে৷ পানীয় জলের ব্যবস্থা হয়েছে৷ যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি ঘটেছে। ২ টাকা কিলো করে চাল দেওয়া হচ্ছে৷ কন্যাশ্রী, সবুজসাথী, স্বাস্থ্যবীমা প্রকল্প, রূপশ্রী মানুষের মনে দাগ কেটেছে৷ বিনামূল্যে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ বিনামূল্যে ওষুধের ব্যবস্থাও করা হয়েছে৷ মাল্টিসুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল তৈরী হয়েছে৷ অভাবী পরিবারের মেয়েদের বিয়ের জন্য অর্থের ব্যবস্থা করা হয়েছে৷

গ্রামবাংলায় এখন আর মাটির রাস্তা প্রায় নেই বললেই চলে৷ মূল সড়কের সঙ্গে গ্রামীণ পথের মেলবন্ধন ঘটানো হয়েছে৷ বনসৃজনের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে৷ জলাশয় পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করার কথা মুখ্যমন্ত্রী বার বার প্রচার করেন৷ জলপথ পরিবহণে জোর দেওয়া হয়েছে৷ প্রচুর বাসও শহর ও শহরতলিতে নেমেছে৷ জঙ্গলমহল থেকে শুরু করে দার্জিলিং পর্যন্ত, দীঘা থেকে সাগর পর্যন্ত রূপসী আরও রূপসী হয়ে উঠেছে৷

সৌজন্যেঃ আজকাল