Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


December 15, 2018

The Modi Storm is over: Abhishek Banerjee

The Modi Storm is over: Abhishek Banerjee

Trinamool Congress MP Abhishek Banerjee addressed a public meeting today in Panihati in North 24 Parganas district.

Salient points of his speech:

  • Congratulations to everyone who have made this public meeting possible through their hard work.There is no number two in our organisation. There is the chairperson, and everyone else are workers. It is through your wish that the Trinamool Congress under the leadership of Mamata Banerjee has been able to form the government in Bangla.I offer my pranam to the selfless workers of the organisation; the rights that they enjoy no leader enjoys. Leaders, ministers, MPs, all retire some day but a worker never retires.A party becomes powerful when it has both old and new workers. We will welcome new workers, but the value of old workers will never be overlooked.
  • I will forever remain indebted to the people of North 24 Parganas. Before starting any major project, I take the blessings of the people of this district. Today, I give the clarion call for the January 19 rally from this meeting today. A large number of people from this district go to the July 21 rally to take instructions from Mamata Banerjee.
  • The last time the Trinamool Congress had addressed a rally at Brigade Parade Ground was on January 30, 2014. Then, Mamata Banerjee had campaigned for the Lok Sabha election, for a secular government and for the furtherance of the all-round development of the people of Bangla.
  • There is a difference to the next Brigade rally on January 19 though. Then, the biggest leaders from parties across the country will address the mass of people, and strengthen the hand of Mamata Banerjee. From the stage that day, the call for BJP to leave India would be made.
  • The way we had thrown away the millstone round the neck of Bangla that the CPI(M) had become, the same way will we throw the communal BJP out of India’s political sphere. That is why we will go to the Brigade rally and take suitable instructions from her on how to go about the work.
  • The people of the country have seen the pitiable condition that has befallen those who had said with pride that they will crush all opposition under the juggernaut of the chariot.
  • The Modi Storm was successfully quelled at the recent Assembly elections held in Chhattisgarh, Rajasthan and Madhya Pradesh. Things have come to such a pass under the BJP that there is politics about everything now – politics of cows, of temples, of religion and of communal tension.
  • Till Mamata Banerjee is there, we will not let them raise their heads. If they have the guts, let them fight democratically; we will prove to them how to fight taking the people along.
  • We had seen the state of the BJP at the recent zilla parishad elections or the Noapara Assembly election. All the garbage elements from other parties have now assembled in the BJP. Let them fight on the basis of development – we will then show them how to fight an election. The cow which had blessed them with its milk in 2014 has now blackened their face with its dung.
  • Their politics consists of destroying the Hindu-Muslim unity, creating communal tensions and just big talk.
  • 80% people of the country are in the BPL (below poverty line) category. Yet, without paying any heed to their plight, the BJP has built a statue by spending Rs 3,000 crore. If Sardar Vallabhbhai Patel was alive today, he would have been ashamed at this. He is our inspiration, our moral compass.
  • My religion has taught me to be worshipful towards one’s own religion and respectful towards others’. It does not tread the path of ‘crush and destroy’. I do Suryanamaskar after getting up in the morning and recite the Gayatri Mantra after taking bath. I believe in the religion of Swami Vivekananda, not in those of Yogi Adityanath, Modi or Amit Shah.
  • Chief Minister Mamata Banerjee has kept her promises. And what did the prime minister promise? ‘Achhe din aane wala hain.’ When it comes to keeping promises, the prime minister has done nothing. Our leader had promised that if she came to power, she would return the land forcibly taken from farmers to them. We had said we will bring peace back to Jangalmahal. We have also revived tourism in Darjeeling, provided glitch-free services in villages and built metalled roads across the State.
  • What are the big differences between Mamata Banerjee and Narendra Modi? While our leader has waived off taxes on agricultural land for the sake of poor farmers, Narendra Modi has waived off the paying back of loans by millionaires to the tune of Rs 3 lakh crore.
  • No CPI(M) or Congress chief minister of Bangla has visited regions across the State to ensure BDOs, IAS officers and police OCs work towards all-round development. Only Mamata Banerjee has done so.
  • While our offices have remained the same the way they were in 2010, the BJP has built a seven-star party office in the heart of Delhi. Our party is a party of and for the poor, a party for the Maa-Mati-Manush.
  • While we have never seen PM Modi go around serving tea from kettles, Mamata Banerjee has continued living in a thatched-roof house, the same one she has always lived in, and ensured development across the length and breadth of her State. While we are constructive, they are destructive.
  • They have brought an AC bus from somewhere and are calling it a chariot, and preaching from that. My question Dilip Ghosh is, what kind of a chariot is this? We know of the chariots of Jagannath, Balaram and Subhadra, of Sri Krishna. We have seen the chariot rides of Ramakrishna Paramhansa, of Sri Chaitanya. What kind of a chariot is this, on which board black sheep in human garb? A holy chariot aboard which one can indulge in fun, can bathe and can do toilet? This is indeed laughable. These people want to divide the country on communal lines.
  • Netaji Subhas Chandra Bose had said, “Give me blood and I will give you freedom”, and Dilip Ghosh and company say, “Give me blood and I will give you a blood-soaked Bangla.” On the other hand, Mamata Banerjee says, “Hey the people of my State, in the coming Lok Sabha election give me 42 out of the 42 seats and I will give you a new India.”
  • We have to stay steady in our paths. In the near future will arise a new India, a secular India, a communally peaceful India, and an India rich in all respects.
  • Yesterday, the union Information and Broadcasting Minister had said in Parliament that, in the last almost five years, their government had spent Rs 5,300 crore in advertisements. This government should be ashamed of itself.
  • We will even give our blood to preserve the communal harmony of Bangla. The people of this State will never bow their heads to people like you. They have never done such a thing, and will never do. There is nothing new to be said about the leading role that Bangla had taken in the freedom movement.
  • Neither are we the BJP nor are we the Congress. We take our people along the path of love and peace. And on January 19 at the Brigade Parade Ground, led by Mamata Banerjee, we will take the historic pledge to build a new India. This is what you all have to preach in every booth and unite people from all layers of society.
  • I had remarked to the candidate of Dumurjola at the Student-Youth Festival last February that the BJP will be removed from power in 2019. Now we see that we have not had to wait till 2019 – in 2018 itself the party has bitten the dust.
  • The people will support the Trinamool Congress with all their might. We will have to continue our fight against the BJP in the coming days. My best wishes for all.

ডিসেম্বর ১৫, ২০১৮

মোদী ঝড় শেষঃ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

মোদী ঝড় শেষঃ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

আজ পানিহাটিতে এক জনসভায় বক্তব্য রাখেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

তাঁর বক্তব্যের কিছু অংশঃ-

  • সকলকে ধন্যবান যারা নিরলস পরিশ্রম, জনসংযোগ ও প্রচার করে আজকের এই জনসভাকে সফল করেছেন।আমাদের দলে কোনও দু নম্বর বলে কোনও জায়গা নেই। একমাত্র আছেন নেত্রী, বাকি যারা আছেন, সবাই কর্মী।আপনাদের ইচ্ছেতেই আজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে বাংলায় তৃণমূল কংগ্রেসের সরকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে এবং আজ বাংলা এগিয়ে চলেছে।আপনারা না থাকলে তৃণমূল কংগ্রেস দলটিও থাকবে না।আমি সকল কর্মীকে তাদের নিরলস পরিশ্রমের জন্য প্রণাম জানাচ্ছি। দলের কর্মীদের যে অধিকার আছে দলে, কোনও নেতার সেই অধিকার নেই।
  • নেতা মন্ত্রী সাংসদরা একদিন প্রাক্তন হয়ে যায়। কিন্তু, একজন কর্মী কখনও প্রাক্তন হয় না।
    নেত্রী বলেন, নতুন পুরনোর সংমিশ্রণেই একটা দল শক্তিশালী হয়।নতুনরা যোগ্য হলে তাদেরকে নিয়ে আমরা কাজ করব। কিন্তু, পুরনো কর্মীদের যোগ্য সম্মান দিতেই হবে।
  • উত্তর ২৪ পরগনা জেলার মানুষের প্রতি আমি আজীবন কৃতজ্ঞ এবং ঋণী থাকব। আমি যেকোনও বড় কর্মসূচী শুরু করার আগে এই মাটিকে সম্মান জানিয়েই কাজ শুরু করি। ১৯শে জানুয়ারি ২০১৯-এ বিজেপিকে উৎখাত করার জন্য ব্রিগেড চলো ডাকটা এই মাটি থেকেই শুরু করলাম। তৃণমূল কংগ্রেসের যেকোনও কর্মসুচীতে এই জেলার একটি গুরুত্বপূর্ণ ইতিবাচক ভূমিকা থাকে। প্রতি বছর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ নিতে ২১শে জুলাই বিপুল পরিমাণ মানুষ এই জেলা থেকে যান। আজ যে পরিমাণ মানুষের স্বতঃস্ফূর্ততা উপলব্ধি করেছি, তাতে মনে হয় শুধু এই জেলা থেকে আগামীদিন ১০ লক্ষ মানুষ ব্রিগেড যাবেন।
  • আগের বার আমরা ব্রিগেড সমাবেশ করেছিলাম ২০১৪সালের ৩০শে জানুয়ারি। সেখানে নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একটি ধর্মনিরপেক্ষ সরকার ও রাজ্যের সার্বিক উন্নয়নকে আরও প্রগতিশীল করার লক্ষ্যে আপনাদের সকলের সমর্থনকে পাথেয় করে লোকসভার প্রচার করেছিলেন।
  • আগামী ব্রিগেড সমাবেশ ও অন্যান্য ব্রিগেড সমাবেশের মধ্যে পার্থক্য আছে এটা মনে রাখবেন। এই সমাবেশে শুধু তৃণমূলের সর্বস্তরের নেতা নন, ভারতবর্ষের অন্যান্য অনেক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ অনেক রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব এসে ব্রিগেডে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত শক্ত করবেন। সে সমাজবাদী দল হোক, বিহারের আরজেডি দল হোক, ডিএমকে হোক, আপ হোক চন্দ্রবাবু নাইডু হোক, অনেকেই ইতিমধ্যেই আসবেন বলে কথা দিয়েছেন। সেদিন ওই মঞ্চ থেকেই বিজেপি ভারত ছাড়ো ডাক দেওয়া হবে।
  • যেভাবে ৩৪ বছরের জগদ্দল পাথরকে আমরা বাংলা ছাড়া করেছি, সেভাবে সাম্প্রদায়িক বিজেপিকে ভারত ছাড়া করব। সেই জন্য আমরা ব্রিগেড যাব এবং নেত্রীর থেকে আগামী দিনের নির্দেশ নেব।
  • যারা বলেছিল, রথের চাকায় গুঁড়িয়ে দেব, মেরে দেব, কেটে দেব, সরিয়ে দেব, হাটিয়ে দেব, তাদের কি করুন পরিনতি হয়েছে, ভারতবর্ষের মানুষ চাক্ষুষ করেছে। সদ্য সমাপ্ত বিধানসভা নির্বাচন ছত্তিসগড়, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ এই রাজ্যগুলিতে মোদী ঝড় শেষ। বিজেপি যা রাজনীতি করেছে, গরুর নামে রাজনীতি, মন্দিরের নামে রাজনীতি, ধর্মের নামে রাজনীতি, বিভাজনের রাজনীতি, এমন পরিস্থিতি ভারতবর্ষে তৈরী করেছে।
  • আগে সিপিএম বলত, ইঙ্কলাব জিন্দাবাদ, আমরা খাবো তোমরা বাদ। এখন বিজেপি বলে, জয় শ্রী রাম, মানুষের মাথার নাই কোনও দাম, জয় শ্রী রাম, দাঙ্গা করাই একমাত্র কাম, জয় শ্রী রাম, বাড়ির সিলিন্ডারের ১,০০০ টাকা দাম, জয় শ্রী রাম, তেলের ১০০টাকা দাম, জয় শ্রী রাম, ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওাই আমাদের একমাত্র কাম। কিন্তু, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থাকতে, আমরা কোনওভাবে এদের মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে দেব না। ক্ষমতা থাকলে গণতান্ত্রিক ভাবে লড়ুক, কার কত ক্ষমতা, কার কত লড়াইয়ের মানসিকতা, আমরা মাঠে ঘাটে প্রমাণ করতে রাজি আছি।
  • সদ্য সমাপ্ত জেলা পরিষদ নির্বাচনে বা নোয়াপাড়া বিধানসভা নির্বাচনে কি করুন পরিনতি ভারতীয় জনতা পার্টির হয়েছে তা আমরা দেখেছি। বিভিন্ন দলের আবর্জনাগুলোকে নিয়ে এরা দল তৈরী করেছে।উন্নয়নের নিরিখে লড়তে এস, কত ধানে কত চাল, তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা মাঠে ঘাটে প্রমাণ করে দেবে।যে গোরু ২০১৪সালে দুধ দিয়েছিল, সেই গরু এখন গোবর দিয়ে মুখে কালি মাখিয়ে দিয়েছে। ওদের কাজ হিন্দু মুসলমানের একতাকে নষ্ট করা, বিভাজনের রাজনীতি, বড় বড় কথা বলা।
  • ভারতবর্ষের ৮০ শতাংশ মানুষ বিপিএল তালিকার নিচে আছে। আজকে তাদের দিকে না তাকিয়ে কিভাবে একটা রাজনৈতিক দল ৩০০০ কোটি টাকার মুর্তি তৈরি করেছ। সর্দার বল্লভ ভাই প্যাটেল যদি জীবিত থাকতেন তিনিও আজ লজ্জা পেতেন। তিনি আমাদের সকলের অনুপ্রেরণা আমাদের সকলের দিশারি।
  • আমার ধর্ম আমাকে শিখিয়েছে নিজের ধর্মের প্রতি আস্থাশীল এবং অন্য ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে। আমার ধর্ম কোনওদিন ‘ভেঙে দাও গুঁড়িয়ে দাও’-এর প্রথা শেখায়নি। আমি সকালে উঠে সূর্য্য নমস্কারও করি, আর স্নান করার পর গায়েত্রী জপও করি। আমি স্বামী বিবেকানন্দের ধর্মে বিশ্বাস করি—আমি যোগী আদিত্যনাথ, মোদি , অমিত শাহের ধর্মে বিশ্বাস করি না।
  • মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তা রেখেছেন আর ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রী কী বলেছেন? ‘আচ্ছে দিন আনে ওয়ালে হ্যায়।” কাজের বেলায় লবডঙ্কা। আমাদের নেত্রী বলেছিল ‘আমরা ক্ষমতায় আসার পর সিঙ্গুরের জমি ফিরিয়ে দেব’-আমরা দিয়েছি। আমরা বলেছিলাম জঙ্গলমহলে শান্তি ফিরিয়ে দেব তা দিয়েছি। দার্জিলিঙে পর্যটন, গ্রামে গ্রামে নিরবিচ্ছিন্ন পরিষেবা, ঝকঝকে তকতকে রাস্তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার করেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে নরেন্দ্র মোদির পার্থক্য কী?— আমাদের নেত্রী গরীব কৃষকদের জন্য খাজনা মুকুব করেছে, আর নরেন্দ্র মোদি সরকার গণপুঁজিপতি এবং কোটিপতিদের ৩ লক্ষ কোটি টাকার ঋণ মুকুব করেছে।
  • আমি কোনওদিন সিপিএম-এর বা কংগ্রেসের মুখ্যমন্ত্রী এভাবে গ্রামে গ্রামে অঞ্চলে অঞ্চলে ঘুরে বেড়িয়ে এসডিও, বিডিও, আইসি, ওসিকে দিয়ে বাংলার উন্নয়নের ধারাকে পরিচালনা করাতে দেখিনি। একমাত্র যদি কেউ করে তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নেত্রীর সঙ্গে মোদির পার্থক্য কী? দেখবেন ৩৬ নম্বর তোপ্সিয়া রোডে আমাদের একটি পার্টি অফিস আছে। ২০১০ এর আগে যে পরিস্থিতি ছিল সেই পার্টি অফিসের আজও তার কোনও পরিবর্তন হয়নি। আমরা গরীবদের দল, আমরা মানুষের দল, মা-মাটি-মানুষের দল। আর ভারতীয় জনতা পার্টির কী অবস্থা? ‘জয় শ্রী রাম’ এর নামে সেভেন স্টার পার্টি অফিস দিল্লির বুকে তারা তৈরি করেছে মানুষকে বোকা বানিয়ে। আমরা কিন্তু কোনওদিন নরেন্দ্র মোদিকে চায়ের কেটলি নিয়ে চা বিক্রি করতে দেখিনি। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে টালীর চালে বাস করে মানুষের কাছে উন্নয়ন পৌঁছে দিতে দেখেছি। আমরা বলি সাজিয়ে দেব গুছিয়ে দেব আর ওরা বলে ভেঙে দাও গুড়িয়ে দাও।
  • একটা বাস নিয়ে এসেছে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত কোথা থেকে ইউপি না দিল্লি থেকে ভাড়া করে, সেটা নাকি রথ মানে এর থেকে হাস্যকর কিছু হয়না। ‘আচ্ছেদিনের’ মত। ওটা দেখিয়ে বলছে ওটা রথ। আমার প্রশ্ন দিলীপ বাবুর কাছে এটা কোন রথ? আমরা সাধারণত জগন্নাথ দেব , শুভদ্রা , বলরাম শ্রী কৃষ্ণ-এর রথ সম্পর্কে জানি। শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংস দেব, শ্রী চৈতন্য দেবের রথ যাত্রা দেখেছি। একোন রথ যেখানে মানুষ রূপী কুলাঙ্গার ওঠে। যারা সাম্প্রদায়িকতার নীরীখে বাংলাকে ভাগ করতে চায়। এটা হাস্যকর। সেখানে ফূর্তি করা যাবে, স্নান করা যাবে, মল মূত্র সব ত্যাগ করা যাবে। আমি প্রশ্ন করতে চাই তাদের। এখন রথ পালটে দিয়ে বলছে ‘গণতন্ত্র বাঁচাও’ । যখন গণতন্ত্র বিপন্ন ছিল তখন কোথায় ছিল এরা ধানতলা, বানতলা, সিঙ্গুর, নন্দীগ্রাম, নেতাইয়ের সময় কোথায় ছিল, স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় কোথায় ছিল। গণতন্ত্র বাঁচাও যাত্রা না করে বিজেপি বাঁচাও যাত্রা করলে কাজে লাগবে
  • নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোস বলেছিলেন তুমি আমাকে রক্ত দাও আমি তোমাদের স্বাধীনতা দেব। আর দিলীপ বাবুরা বলেন তুমি আমাকে রক্ত দাও আমি তোমাকে রক্ত স্নাত বাঙলা দেব আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন ‘হে বাংলার মানুষ তুমি আগামী লোকসভায় ৪২এ ৪২ দাও আমি তোমাকে আগামী দিন নতুন ভারতবর্ষ দেব।”
  • আমাদের লক্ষ্য অবিচল থাকতে হবে। আগামী দিন নতুন ভারত, ধর্ম নিরপেক্ষ ভারত, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ভারত এবং বিশাল দৌলতের ভারত মমতা বন্দ্য্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে তৈরি হোক। মানুষকে লক্ষ্যে অবিচল থাকতে হবে।
  • গতকাল সংসদে তাদের তথ্য সংস্কৃতি মন্ত্রী তথ্য দিয়ে বলেছেন, তাদের সরকার গত পাঁচ বছরে শুধু বিজ্ঞাপনে ৫৩০০কোটি টাকা খরচ করেছে। এদের লজ্জা হওয়া উচিত।
  • আমাদের রক্ত দিয়ে বাংলার সম্প্রীতিকে রক্ষা করব কিন্তু তবু তোমাদের কাছে বাংলার মানুষ মাথা নত করবে না। বাংলার মানুষ কোনওদিন মাথা নত করতে জানে না। দেশত্মাবোধ আন্দোলনে, স্বাধীনতা সংগ্রামের আন্দোলনে বাংলা কি ভূমিকা নিয়েছে তা ভারতবর্ষকে আর নতুন করে বলার আর কোনও দরকার নেই।
  • আমরা ভারতীয় জনতা পার্টি নই আমরা কংগ্রেস পার্টি নই। আমরা ভালোবাসার মাধ্যমে মানুষকে নিয়ে যাই। এবং আগামীদিন সেই ঐতিহাসিক মূহুর্ত যখন আমরা সাক্ষী থাকতে পারি সেই ঐতিহাসিক মূহুর্তকে সামনে রেখে নতুন ভারতবর্ষ গড়ার শপথ আমরা ১৯শে জানুয়ারি ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ড থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে রেখে নেব। এটাই আপনাদের সকলকে বুথে বুথে প্রচার করে মানুষকে সংবদ্ধ করে সর্বস্তরের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করে আপনাদের সুনিশ্চিত করতে হবে।
  • আমি ডুমুরজোলার প্রার্থীকে বলেছিলাম ফেব্রুয়ারি মাসে ছাত্র যুবর সম্মেলন ছিল, ২০১৯ বিজেপি ফিনিশ। এখন দেখছি ২০১৮তে ভোকাট্টা হয়ে গেছে। মানুষ তত দুহাত তুলে তৃণমূল কংগ্রেসকে সমর্থন করবে।আগামী দিন এই লড়াইটা চালিয়ে যেতে হবে। সকলে প্রণাম নেবেন।