Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


October 31, 2018

Chief Minister inaugurates various projects for Dooars

Chief Minister inaugurates various projects for Dooars

Chief Minister Mamata Banerjee today inaugurated a number of infrastructure projects for the districts of Jalpaiguri and Alipurduar at Tiyabon Ground in Jalpaiguri. Foundation stones were also laid for several projects. She also distributed benefits of various government welfare schemes to beneficiaries.

Among the projects inaugurated were Krishi Bhavan in Jalpaiguri, farmers’ training centre at Central Cooperative Bank in Jalpaiguri, 2,000 metric tonne food warehouse in Dhupguri, Malbazar model school hostel in Mal block, upgrading of infrastructure of Dharmapur Sasadhar Higher Secondary School and Churabhandar Bhelbhela School in Mainaguri block, Mal Subhashini Girls’ Higher Secondary School in Mal block and Nagrakata Higher Secondary School in Nagrakata block, etc.

Among the projects whose foundation stones were laid were minority hostel blocks of Sannyasikata Higher Secondary School and Badhunagar DN Higher Secondary School in Raiganj block, community halls in Matiali, Dhupguri, Mal block and Jalpaiguri town, five-storied building and canteen at Jalpaiguri Prasannadeb Women’s College in Jalpaiguri, tracks at Jalpaiguri Sports Complex, etc.

Highlights of the Chief Minister’s speech:

These days, people are afraid to go to Assam for business purposes. People from Jalpaiguri, Siliguri, Alipurduar, Cooch Behar are afraid. This never happens in Bengal. We do not mind if people from Assam come and do business in Bengal. This is a political problem. They are omitting names from the voter list due to political reasons.

We have to stand beside people when they are in trouble. My message to all workers is that people should not have to come to you; rather you should go to people who are in trouble and stand beside them. This is our aim, this is our goal.

Our government has provided people with digital ration cards. 43 multi super hospitals have been set up. There are HUDs in all districts. Around 300 SNSUs, CCUs, Mother & Child Hubs have been set up. The number of hospital beds have been increased by 30,000.

A Hindi college has been set up in Banarhat. A new university is being set up in Alipurduar. New Minority Bhavan and SC/ST Bhavan are also coming up.

We need to solve problems in order to move forward. New infrastructure needs to be built. We are ready to do everything. Trust us. Have faith on us.

We are observing a lot of divisive politics in this country. We believe in the politics of unity. We all are one; we want to stay united. One cannot bring ‘acche din’ by driving people away. Lies are being told. These are black days.

In Bengal, there is peace. They want to destroy the peaceful atmosphere of the State. We will not allow this. Bengal believes in unity and well-being of the nation. One needs ‘truth and honesty’ to bring ‘achhe din’.

We do not support the exploitation of tribal lands for programmes of the BJP. If people belonging to scheduled castes, the dalits, the women are not given their honour, ‘acche din’ will never come.

They have allocated only Rs 100 crore for ‘Beti Bachao Beti Padhao’ scheme. Most of it is spent on advertisement. In Bengal, the budget for Kanyashree is Rs 6000 crore. This is for just one State. They are telling lies in the name of Rs 100 crore. How will the “beti” live, how will she survive? These are all big talks which serve no purpose.

They have ruined the country in the last four years. Everyday, the price of petrol and diesel are increasing. Lynchings are happening across the country. People savings in the banks are not secure. I must warn you to be observant and alert; maintain peace and harmony.

Our young generation will never bow down to slanders and lies. This is our culture and upbringing. We are doing our very best. We are also organising Uttar Banga Utsav and other cultural festivals.

They are asking for the birth certificates of the parents. If not provided, they are asking the people to leave. They want to omit the names of around 40 lakh citizens from the voters’ list. Our brothers and sisters in Assam are in tears. In our State, there are people who have come from Opaar Bangla. They have settled in Cooch Behar, Malda, Nadia, Murshidabad, Alipurduar, or Jalpaiguri. They do their businesses here. Some of them are staying here for 40-50 years.

They are driving out Bengalis, Biharis, Adivasis and people from UP in Assam. Biharis and UPites are being targeted in Gujarat. In Bengal we do not believe in such practices. I welcome one and all to come to Bengal if they have nowhere else to go. We will treat you like our family. Assamese, Gujaratis are also our brothers and sisters. We had given refuge to people during 2014 Assam riots.

A lot of people from other states stay in Bengal. They have become Bengalis now. Can we ask them to leave? Where will they go. A citizen of this country can stay anywhere. This problem never existed in the past.

CPI(M) had done nothing for Darjeeling Jalpaiguri, Alipurduar and tea gardens for 34 years, when they were in power. No new schemes for health and education were launched.

In our State, when a child is born, we give a sapling to the parents. When these saplings turn into trees, they will cost around Rs 1-1.5 lakh. This will help in the child’s future.

We are giving scholarships to school students, along with school bags, school books, school shoes and mid day meals. ICDS and ASHA workers take care of pregnant women. Delivery of babies in government hospitals is performed free of cost. We send ambulances to homes if new born babies fall sick.

Healthcare is free in government hospitals in Bengal. Population of Bengal is 10 crore. Even people come here for treatment from Jharkhand, Bihar, Uttar Pradesh, even from Bangladesh and Bhutan. We treat all these people. No other State offers free treatment. Here, the hospitals offer free beds, free medicines.

Which Government offers free medicines? Only West Bengal Government. Only our Government offers Kanyashree, Shikshashree scholarships and bicycles for free to students. Our Government provides tractors to farmers, cars under Gatidhara.

We have the social security scheme for the unorganised sector. Construction workers, masons, auto drivers, domestic helps, bidi workers and others. They contribute Rs 25 while the Government’s contribution is Rs 30 per month. At the age of 60, they will receive a pension of Rs 2 lakh. They will get financial help from the Government during their daughter’s marriage, as well as financial support in case of accidental death.

Here, people get rice at Rs 2 per kg. The market price for the same rice is Rs 24 or 25 per kg. The tea garden workers get 35 kg of rice at just 47 paise. The Government even provides insecticide-treated mosquito nets free of cost.

We provide rice at Rs 2/kg, cycles to students from class IX, scholarships like Kanyashree and Sikshashree and for higher education. Thousands of people get pensions. The Government provides financial support for daughter’s marriage or in case of accidental deaths.

When tea gardens had closed, we had taken many initiatives. We had even waived off electricity bills. Cess on land in some tea gardens were also waived off.

We have waived off khajna tax and mutation fee on agricultural land. We have distributed scholarships to 1.7 crore minority students (33 lakh this year alone). More than 57 lakh SC/ST students have received scholarships.

We have constructed 25 lakh homes under Bangla Abaas Yojana. We have constructed at least 26,000 km roads. Additional 19,000 km will be constructed soon.

We are doing our best for the welfare of people. We could do more. But we have inherited a huge debt burden from the Left Front Government. We are paying nearly Rs 50,000 crore every year for debt servicing to the Centre. If we did not have to pay that amount, we could have carried out many more projects.

Tea gardens were treated with apathy in the past. Nobody cared about them. We have created a separate directorate for tea. We have set up Uttarkanya – a secretariat for north Bengal. We are working for the common people, the poor and the downtrodden.

Farmers’ welfare is our priority. In other States, farmers are committing suicide. We provide compensation to farmers for losses due to natural calamities. We also take care of families who lose their near and dear ones in accidents. We are taking care of those who face any problem while working in other States or countries.

Unemployment is our topmost concern. We want unemployed youth to become self-sufficient. Unemployment is increasing in the entire country, specially after demonetisation. In Bengal, unemployment has reduced by 40%. We are providing skill training to 12 lakh youths every year. We have set up polytechnic colleges and ITIs for this purpose.

There is peace in Darjeeling now. Earlier there was a lot of unrest in the Hills. Centre was fomenting trouble there. We restored peace in the Hills.

My tribute to Indira Gandhi on her death anniversary. Homage to Sardar Vallabh Bhai Patel on his birth anniversary. He wanted a united nation. This is our motherland. This is our karmabhoomi, siksha bhoomi, sanskriti bhoomi, sabhyata bhoomi. Stalwarts like Netaji Subhas Chandra Bose, Rabindranath Tagore, Babasaheb Ambedkar, Maulana Abul Kalam Azad, Dr Rajendra Prasad, Indira Gandhi, Sardar Patel were born in this land.


অক্টোবর ৩১, ২০১৮

জলপাইগুড়িতে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন মুখ্যমন্ত্রী

জলপাইগুড়িতে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন মুখ্যমন্ত্রী

আজ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জলপাইগুড়ি জেলার টিয়াবনে একটি জনসভা করেন। সেখান থেকে তিনি একগুচ্ছ প্রকল্পের উদ্বোধন ও শিলান্যাস করলেন। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্য সরকারের অনেক মন্ত্রী, বিধায়ক ও সাংসদরা। তিনি এই মঞ্চ থেকে সরকারি পরিষেবাও প্রদান করেন।

তিনি যে সকল প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন, সেগুলি হলঃ জলপাইগুড়ি সদরে কৃষি ভবন, জলপাইগুড়ি শহরে সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্ক প্রাঙ্গণে সংঘ সমবায় এবং কৃষকদের জন্য প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, ধুপগুড়ি ব্লকে ২০০০ মেট্রিক টন খাদ্য মজুচ ভান্ডার, মাল ব্লকে মাল্বাজার মডেল স্কুল হস্টেল, ময়নাগুড়ি ব্লকে ধর্মপুর শশধর উচ্চ বিদ্যালয় ও চুরাভান্ডার ভেলভেলা বিদ্যালয়, মাল ব্লকের মাল সুভাষিণী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় এবং নাগরাকাটা ব্লকে নাগরাকাটা উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিকাঠামো উন্নয়ন, ইত্যাদি।

তিনি যে সকল প্রকল্পের শিলান্যাস করলেন, সেগুলি হলঃ রাজগঞ্জ ব্লকে সন্ন্যাসীকাটা ও বন্ধুনগর ডি এন উচ্চ বিদ্যালয়ে সংখ্যালঘু ছাত্রাবাস, মাটিয়ালি, ধুপগুড়ি, মালব্লক এবং জলপাইগুড়ি সদরে কমিউনিটি হল, জলপাইগুড়ি ব্লকে জলপাইগুড়ি প্রসন্নদেব মহিলা কলেজে চার তলবিশিষ্ট ভবন এবং ক্যান্টিন, জলপাইগুড়ি স্পোর্টস কমপ্লেক্সে গ্যালারি এ ও বি তে ট্র্যক্স স্থাপন, ইত্যাদি।

মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের কিছু অংশ:

আজ মানুষ অসমে ব্যবসা করতে যেতে পারছেন না। জলপাইগুড়ি, শিলিগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহারের লোকেরা ভয়ে আসামে যেতে পারছেন না। বাংলায় তো এমন হয় না। অসামবাসীরা আসুন, বাংলায় এসে বিনিয়োগ করুন, আমাদের কোন আপত্তি নেই। এটা রাজনৈতিক দোষ, এটা কখনোই মানুষের দোষ হতে পারে না। ওরা রাজনৈতিক কারণে মানুষদের ভোটার লিস্ট থেকে বাদ দিচ্ছে।

মানুষের বিপদে সবসময় তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। আমি সকল কর্মীদের বলবো, মানুষ যেন আপনাকে খুঁজে না বেড়ায়, আপনি মানুষকে খুঁজে নেবেন – এটাই আমাদের দিশা, আমাদের লক্ষ্য। মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন।

সরকার ডিজিটাল রেশন কার্ড করে দিয়েছে। ৪৩টি মাল্টিসুপার হাসপাতাল গড়া হয়েছে। সব জেলায় এইচ ডি ইউ, ৩০০ টি এস এন এস ইউ, সি সি ইউ, মাদার এন্ড চাইল্ড হাব হয়েছে। বেডের সংখ্যা ৩০ হাজারেরও বেশি বেড়েছে। বানারহাটে হিন্দি কলেজ গড়ে তোলা হয়েছে। মেডিকেল কলেজ তৈরী হয়েছে, আলিপুরদুয়ারে নতুন বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে। মাইনরিটি ভবন, তপশিলি ভবন হচ্ছে।

জীবনের অনেক সমস্যা থাকবে, কিন্তু সেগুলি সমাধান করে এগিয়ে যেতে হবে। নতুন পরিকাঠামো তৈরী করতে হবে। আমরা সব কিছু করার জন্য তৈরী। শুধু আপনারা বিশ্বাস ও ভরসা রাখুন।

দেশে আজকাল কেউ ভাগাভাগির রাজনীতি করছে। আমরা ভাগাভাগির নয়, একতার রাজনীতি করি। আমরা সবাই এক। আমরা সবাই একসাথে থাকতে চাই। মেরে ভাগিয়ে দিয়ে কখনো আচ্ছে দিন আনা যায় না। যারা বলছে দেশে আচ্ছে দিন আসবে, মিথ্যে কথা বলছে। দেশে কালো দিন চলছে।

শান্তিতে রয়েছে বাংলা। তাই ওরা চায় বাংলার শান্তি নষ্ট করতে কিন্তু আমরা তা হতে দেব না। বাংলা চায় আমাদের দেশ এক থাক, ভালো থাক। সততার সাথে, সত্যের সাথে আচ্ছে দিন আনতে হবে।

জোর করে আদিবাসীদের জমি নিয়ে সেখানে বিজেপির অনুষ্ঠান হবে, এটা আমরা চাই না। তপশিলি, দলিতদের অত্যাচার করে, মা-বোনেদের মর্যাদা না দিলে আচ্ছে দিন আসবে না।

বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও প্রকল্প – ৩ পয়সাও দেয় না. প্রধানমন্ত্রীর বাজেট ১০০ কোটি টাকা, তার মধ্যে সব বিজ্ঞাপনেই খরচ হয়ে যায়। বাংলার কন্যাশ্রীর বাজেট ৬০০০ কোটি টাকা, মাত্র একটা রাজ্যে। ১০০ কোটির নাম করে মিথ্যে কথা বলছে। বেটি বাঁচবে কি করে আর পর্বেই বা কি করে! শুধু বড় বড় কথা। শুধু কথায় কিছু হয় না।

ওরা ৪ বছরে দেশকে বরবাদ করে দিয়েছে। রোজ পেট্রোল-ডিজেলের দাম বাড়ছে। মানুষকে খুন করছে, লিনচিং করছে। কি করছে ওরা?ব্যাংকে টাকা রাখলে মানুষ টাকা পাবে না। আমি বলবো সজাগ থাকুন, সতর্ক থাকুন, শান্তিতে থাকুন।

আমাদের ছাত্র-যৌবন কুৎসা, অপপ্রচার, ভাওতা – কোন কিছুর কাছে মাথা নত করবে না, এই শিক্ষাই আমরা পেয়েছি।

আমরা আমাদের সাধ্যমত করি, আমরা উত্তরবঙ্গ উৎসব করি, বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।

বাবা মার জন্ম সার্টিফিকেট চাইছে নয়তো বলছে দেশ থেকে বেরিয়ে যেতে। ৪০ লক্ষ নাগরিকের নাম ভোটার তালিকা থেকে বাদ দেওয়ার চক্রান্ত চলছে। অসমে আমাদের ভাই বোনেরা কান্নাকাটি করছে। আমাদের রাজ্যেও ওপার বাংলা থেকে যারা এসেছে, তারা অনেকে আছে কোচবিহার, মালদা, নদীয়া, মুর্শিদাবাদ, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি জেলায়। তাদের আমরা এখানে ব্যবসা করতে দিই। কেউ কেউ এখানে ৩০/৪০/৫০ বছর আছে।

অসমে বাঙালী খেদাও, বিহারী খেদাও, উত্তরপ্রদেশ খেদাও, আদিবাসী খেদাও। গুজরাটে বিহারী খেদাও, উত্তরপ্রদেশ খেদাও। এসব বাংলার মানুষ করে না। আমি সকলকে বলি, আপনাদের থাকার জায়গা না থাকলে, বাংলায় আসুন, আমরা আপনাদের নিজের পরিবার মনে করে সাহায্য করব। আসামী, গুজরাটিরাও আমাদের ভাই বোন। ২০১৪ সালে অসমে যখন দাঙ্গা হয়েছিল, তখন তারা বাংলায় আশ্রয় নিয়েছিল।

আমাদের এখানে অনেক ভিন রাজ্যের মানুষ থাকেন। তারা থাকতে থাকতে বাঙালী হয়ে গেছেন। তাদের আমরা চলে যেতে বলতে পারি? তারা কোথায় যাবেন? দেশের মানুষ দেশের যে কোনও জায়গায় থাকতে পারেন। এই সমস্যা এর আগে কখনও হয়নি।

সিপিএম ৩৪ বছর সরকারে ছিল, দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, চা বাগান – কাউকে কিছু দেয়নি। নতুন স্বাস্থ্য পরিষেবা করেনি। নতুন শিক্ষা পরিষেবা করেনি।

আমাদের সরকার আসার পর একটা শিশু জন্মালেও তার ভবিষ্যতের জন্য তার হাতে একটা গাছ তুলে দিই। যে গাছটার দাম বাচ্চাটার বড় হওয়ার সময় দেড় দুই লাখ টাকা হবে। বাচ্চাটা বড় হয়ে স্বাবলম্বী হতে পারবে।

স্কুল পড়ুয়াদের বৃত্তি দিচ্ছি, বিনামূল্যে ব্যাগ দিচ্ছি, বই দিচ্ছি, জুতো দিচ্ছি, মিড ডে মিল দেওয়া হচ্ছে।

প্রসূতিদের আইসিডিএস কর্মীরা, আশার কর্মীরা সেবা করছেন। প্রসূতিদের প্রয়োজনীয় খাদ্য, চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। হাসপাতালে বাচ্চা বিনামূল্যে জন্মাচ্ছে। এক বছর পর্যন্ত ওই বাচ্চাটির কোনও অসুখ হলে হাসপাতাল গাড়ি পাঠিয়ে বাচ্চাটিকে নিয়ে গিয়ে বিনামূল্যে চিকিৎসা করাবে।

বিনা পয়সায় চিকিৎসা। ১০ কোটি লোক বাংলায়, তাছাড়া বাংলাদেশের রোগীরা আসে। বিহার থেকে লোক আসে, ঝাড়খণ্ড থেকে আসে, উত্তরপ্রদেশ থেকে আসে, ভুটান থেকে আসে। তাদের চিকিৎসাও আমাদের করাতে হয়,কোনো জায়গায় চিকিৎসায় ফ্রি নেই, আমাদের সরকারী হাসপাতালে বিছানার ভাড়া লাগে না। ওষুধের টাকা লাগে না।

বিনা পয়সায় চিকিৎসা দেয় কে? পশ্চিমবঙ্গ সরকার। কন্যাশ্রী দেয় কে? পশ্চিমবঙ্গ সরকার। শিক্ষাশ্রী দেয় কে? পশ্চিমবঙ্গ সরকার। সবুজশ্রী দেয় কে? পশ্চিমবঙ্গ সরকার। বিনা পয়সায় সাইকেল দেয় কে? পশ্চিমবঙ্গ সরকার। কৃষকদের ট্রাক্টর দেয় কে? পশ্চিমবঙ্গ সরকার। গতিধারায় গাড়ি দেয় কে? পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

আমাদের সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্প আছে। যারা বাড়ি তৈরি করে, অটো চালায়, যারা গাড়ি চালায়, রিক্সা চালায়, ডোমেস্টিক হেল্প এর কাজ করে, গৃহস্তের কাজ করে, বিড়ি বানায় – তারা ২৫ টাকা দেবে, সরকার ৩০ টাকা করে দেবে প্রতি মাসে। যখন ৬০ বছর বয়স হয়ে যাবে সে ২ লক্ষ টাকা পেনশন পাবে। মেয়ের বিয়েতে সরকার টাকা দেবে, একসিডেন্টে মারা গেলে পরিবার টাকা পাবে।

২ টাকা কিলো চাল তো পান। বাইরে কত দাম? ২৪/২৫ টাকা। চা বাগানের শ্রমিকরা ৪৭ পয়সায় ৩৫ কেজি করে চাল পায়। এটা মনে রাখবেন, এমনকি কীটনাশক মশারিও বিনা পয়সায় দেওয়া হয়। মনে রাখবেন ২ টাকা কিলো চাল, বিনা পয়সায় চিকিৎসা, নাইনে উঠলে সাইকেল, শিক্ষাশ্রী স্কলারশিপ, কন্যাশ্রী স্কলারশিপ, উচ্চ শিক্ষায় স্কলারশিপ আছে। কয়েক হাজার মানুষ পেনশন পায়। যারা কেন্দু পাতা তুলতে যায় ,তারা পায়।

অনেক চা বাগান বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। বিদ্যুতের বিল পর্যন্ত মুকুব করে দিয়েছিলাম। বিনা পয়সায় জল দিয়েছি। শুধু তাই নয়, চায়ের বাগানের কিছু জমি চাষের জন্য সেস মুকুব করা হয়েছে।

কৃষি জমির খাজনা মুকুব করা হয়েছে। মিউটেশন ফি মুকুব করা হয়েছে। বাংলার জন্য অনেক করেছি,সংখ্যালঘু ছেলেমেয়েরা আগে পড়াশোনা করতে পারতো না, এবছরও ৩৩লক্ষ সংখ্যালঘু ছেলেমেয়েদের স্কলারসিপ দিয়েছি। আমাদের সময় ১ কোটি ৭০ লক্ষ ছেলেমেয়েদের স্কলারশিপ দিয়েছি শুধু সংখ্যালঘুদের। তফসিলি জাতি, উপজাতির ৫৭ লক্ষের বেশি ছেলেমেয়েরা স্কলারশিপ পেয়েছে।

বাংলা আবাস যোজনায় ২৫লক্ষ মানুষদের বাড়ি তৈরি করে দিয়েছি। কিছু না হলেও ২৬ হাজার কিলোমিটার রাস্তা তৈরি করেছি। আরও ১৯,০০০ কিলোমিটার রাস্তা হাতে নেওয়া হয়েছে।

এই ভাবেই সারা বাংলা জুড়ে কাজ চলছে, আরও করতে পারতাম। আমাকে কি করতে হবে? বামফ্রন্ট সরকার ৩৪ বছর ধরে দেনা করে গিয়েছে। এত টাকা দেনা করেছিলেন যে আজও আমাকে তা মেটাতে হয়। ৫০ হাজার কোটি টাকা বিজেপি সরকার আমাদের থেকে কেটে নিয়ে যায়। সিপিএমের সময়ের দেনা আমাদেরকে মেটাতে হচ্ছে, ঐ টাকা যদি মেটাতে না হত তাহলে আমরা আরও কাজ করতে পারতাম।

আগে তো চা বাগান বন্ধ করে দিত, কেউ দেখতও না। কিন্তু এখন আমরাতো দেখি, আমরা চা বাগানের জন্য নতুন ডিরেক্টরেটও করে দিয়েছি। আমরা উত্তর কন্যা বানিয়েছি, এরকম বহু মন্ত্রণালয় ও বানিয়ে দিয়েছি। এইরকম অনেক কাজ আমরা করেছি কারণ গরীব মানুষেরা, দুঃখী মানুষেরা, কৃষকগণ এরা যেন ভালো করে বাঁচতে পারে।

বাইরের রাজ্যে কৃষকেরা আত্মহত্যা করে, আমরা চাই আমাদের কৃষক ভালো থাকুক, আমাদের চাষবাস ভালো হোক। এখন ঝড় বৃষ্টি হলেও আমরা কৃষকদের পরিবারকে সাহায্য করি। মনে রাখবেন, ঝড় বৃষ্টি যখন হয় ঘড়বাড়ি তখন ভেঙ্গে যায়, আজকে লোকে জানে সরকার আছে। কেউ কোনও দুর্ঘটনায় মারা গেলেও আমরা তাদের পরিবারকে সাহায্য করি। যারা বাইরে কাজ করে তাদের কিছু হলেও আমরা সাহায্য করি।

মনে রাখবেন আমরা বেকারদের সবথেকে বেশি গুরুত্ব দিই। বেকার ছেলে মেয়েরা নিজে পায়ে দাঁড়াক এটা আমরা চাই। সারা ভারতবর্ষে বেকারের সংখ্যা বেড়েছে। নোটবন্দীর নামে মানুষের মুখ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আজকে দেশে যা চলছে প্রতেকটি সেক্টরকে নষ্ট করে দেওয়া হচ্ছে। প্রত্যেকটি এজেন্সি দিয়ে রাজনৈতিক কার্যকলাপ চালানো হচ্ছে।

মনে রাখবেন বাংলা আজও আত্মমর্যাদা দিয়েছে মানুষকে। বাংলায় ৪০ লক্ষ বেকার কমে গিয়েছে, এটা গর্ব আমাদের। আমরা প্রতি বছর ১২ লক্ষ ছেলে মেয়েদের স্কিল ট্রেনিং দিচ্ছি। এর জন্য কলেজও তৈরি হয়েছে, পলিটেকনিক কলেজ তৈরি হয়েছে, আইটিআই তৈরি হয়েছে, আমরা চাই আমাদের ছেলেমেয়েরা নিজে পায়ে দাঁড়িয়ে কাজ করুক।

দার্জিলিং আগে কি ছিল, আর এখন কেমন হয়েছে গিয়ে দেখুন। আগে পাহাড়ে যেতে পারতেন? সবসময় ঝামেলা হত আর কেন্দ্র তাতে মদত দিত। কিন্তু আমরা পাহাড়ে শান্তি ফিরিয়েছি। এখন পাহাড় শান্তিতে আছে।

ইন্দির গান্ধীর প্রয়াণ দিবস ও সর্দার বল্লভ ভাই প‍্যাটেলের জন্মদিনে শ্রদ্ধা জানাই। বল্লভ ভাই প‍্যাটেল কোনো দিন ভাগাভাগি চাইতেন না। তিনি চাইতেন ঐক‍্যের জন্মভূমি। মনে রাখবেন দেশটা আমাদের মা, রাজ‍্যটা আমাদের মা। এটা আমাদের জন্মভূমি, এটা আমাদের কর্মভূমি। এটা আমাদের ধর্মভূমি। এটা আমাদের শিক্ষার ভূমি। এটা আমাদের সংস্কৃতির ভূমি। এটা আমাদের সভ‍্যতার ভূমি। যে ভূমিতে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, বাবাসাহেব আম্বেদকর, মৌলানা আবুল কালাম আজাদ, রাজেন্দ্র প্রসাদ, ইন্দিরা গান্ধী এবং সর্দার বল্লভ ভাই প‍্যাটেল জন্ম নিয়েছিলেন।