Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


June 12, 2018

Shola Hub at Bonkapasi village empowering women

Shola Hub at Bonkapasi village empowering women

To give impetus to the famous shola article-makers of Bonkapasi village of Mongalkote block of the district of Purba Bardhaman, Chief Minister Mamata Banerjee has designated the place as a Shola Hub. This is a big step towards a more sustaining future for this traditional cottage industry.

Shola (or ‘sholapith’ in English) is the dried milky-white spongy matter which comprises the bark of the shola plant. It has traditionally been shaped into various objects like ornaments for goddesses (called ‘daaker kaaj’ in Bengali), necklaces and other ornaments, headgear for bridegrooms (‘topor’), etc.

The more than 2,818 artisans and 97 self-help groups (SHG) who comprise the shola workforce of Bonkapasi can now expect a much brighter future. Infrastructural improvements will follow soon, which would lead to better working conditions, better quality and quantity of products, and consequently, much more earnings.

Source: bengali.news18.com

Image source


জুন ১২, ২০১৮

মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে নতুন প্রাণ পেয়েছে শোলা শিল্প

মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে নতুন প্রাণ পেয়েছে শোলা শিল্প

পূর্ব বর্ধমানের মঙ্গলকোটের বনকাপাসি গ্রামের শোলা শিল্পের কদর সারা বাংলা তথা দেশজোড়া। গ্রামের আরেক নাম তাই শোলাগ্রাম। মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে গ্রামে তৈরি হয়েছে শোলা হাব। শোলা শিল্প দিয়েছে স্বনির্ভরতার স্বাদ।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে গ্রামে তৈরী হয়েছে শোলা হাব. চাঁদমালা, মুকুট বা টোপর, কখনও আবার হাতপাখা। নিপুণ হাতের কৌশলে শোলার সূক্ষ্ম কাজ।

ঘরে বসেই মহিলারা তৈরি করেন চাঁদমালা, মুকুট, টোপর, হাতপাখার মত আরও অনেক কিছু। সরকারি সহযোগিতায় মিলেছে প্রশিক্ষণ। স্বনির্ভর হয়েছেন মহিলারা।মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে গ্রামে তৈরি হয়েছে শোলা হাবও। মুখ্যমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিয়েছেন শিল্পীরা।

শোনা যায়, গত শতকের মাঝামাঝি সময় থেকে শোলার কাজকে পরিচিতি দিয়েছিল বনকাপাসি গ্রামের মালাকার পরিবার। রক্ষণশীল পরিবারের মহিলারা সেই সময় শোলার কাজে হাত লাগাতেন না। দিন বদলেছে। সংসার সামলে শোলার কাজে হাত পাকিয়েছেন মহিলারাও। শোলাগ্রামের অভাব ঘুচিয়েছে রাজ্য সরকার।

সৌজন্যে: News 18 Bangla