Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


June 5, 2018

Environment Department: Working towards a more livable future

Environment Department: Working towards a more livable future

The scope of work of the Environment Department is very wide, exhaustive and challenging. The wings of the department work in close coordination to fulfil the commitment of the Bengal Government towards its people for a clean and more livable environment – be it in terms of air, water, noise or several other aspects.

For effective control of pollution, a number of steps, measures and policies have been initiated by the Environment Department which include stringent regulations, development and periodical revision of environment standards, control of vehicular pollution, control of air and water pollution, abatement and prevention of noise pollution, revisiting and revision of the list of critically polluted areas and their environment improvement plans, etc.

The department has been funding research projects through grants-in-aid both to its parastatals like West Bengal Pollution Control Board (WBPCB), West Bengal Biodiversity Board (WBBB), East Kolkata Wetlands Management Authority (EKWMA) and Institute of Environmental Studies and Wetland Management (IES&WM), and also to some research institutions.

Some of the salient points regarding the working of the Environment Department:

  • WBPCB is constantly monitoring and taking suitable measures for improving air quality and reducing water body pollution.
  • An online system of WBPCB’s consent administration has been developed for transparency. All monitoring data can now be accessed from the board’s website. The consent administration has also been simplified.
  • The ‘consent to operate’ periods have been increased: from two years to five years for Red Category Industries, from three years to five years for Orange Category Industries and from five years to seven years for Green Category Industries. A new White Category has been introduced which only requires the relevant industries to give information to the WBPCB and is exempt from ‘consent’ administration.
  • The State Action Plan for climate change is being amended to strengthen the plan, introduce mitigation measures in addition to adaptation measures and bring it in line with the latest developments in various fields.
  • Actions on conservation of biodiversity, preparing a comprehensive register and promoting conservation have been accelerated.
  • A lot of work has been done for restoration and beautification of many waterbodies.
  • More emphasis has been laid on organising awareness activities to spread environment education among all sections of society and mobilising people’s participation for preservation and conservation of environment.

Source: Departmental Budget


জুন ৫, ২০১৮

পরিবেশ- বান্ধব বাংলা গড়তে বদ্ধপরিকর রাজ্য

পরিবেশ- বান্ধব বাংলা গড়তে বদ্ধপরিকর রাজ্য

পরিবেশ দপ্তরের কাজের ক্ষেত্র বিশাল এবং ঝুঁকিপূর্ণ। পরিবেশ দপ্তরের বিভিন্ন শাখা কাজ করে চলেছে রাজ্যকে আরও পরিচ্ছন্ন এবং পরিবেশ- বান্ধব করে তুলতে। বায়ু, শব্দ, জল কিংবা দৃশ্যদূষণ – নেওয়া হচ্ছে নানা পদক্ষেপ।

এই বিবিধ প্রকার দূষণ রুখতে, পরিবেশ দপ্তর প্রচুর পদক্ষেপ নিয়েছে। এই পদক্ষেপের মধ্যে আছে কড়া বিধি, পরিবেশের মানের ওপর নিয়মিত নজর দেওয়া, যান-দূষণ নিয়ন্ত্রণ, জল ও বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণ, শব্দ দূষণ প্রতিরোধ, দূষিত এলাকায় নিয়মিত পরিদর্শন এবং সেখানকার উন্নয়নের পরিকল্পনা করা।

এই দপ্তর ওয়েস্ট বেঙ্গল পলিউশান কন্ট্রোল বোর্ড, ওয়েস্ট বেঙ্গল বায়োডাইভারসিটি বোর্ড, ইস্ট কলকাতা ওয়েটল্যান্ডস ম্যানেজমেন্ট অথরিটি, ইন্সটিটিউট অফ এনভাইরনমেন্টাল স্টাডিস অ্যান্ড ওয়েটল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট ও অন্যান্য গবেষণাগারে সমস্ত গবেষণার খরচ বহন করে।

পরিবেশ দপ্তরের কিছু উল্লেখযোগ্য কাজ:

  • ওয়েস্ট বেঙ্গল পলিউশান কন্ট্রোল বোর্ড সমানে নজর রেখে চলেছে যাতে বায়ু এবং জলাশয় দূষণ কমানো যায়।
  • সমস্ত কাজে স্বচ্ছতা আনার জন্য ওয়েস্ট বেঙ্গল পলিউশান কন্ট্রোল বোর্ড একটি অনলাইন ওয়েবসাইট শুরু করেছে। সমস্ত তথ্য পাওয়া যাবে এই ওয়েবসাইটে। পরিচালনা পদ্ধতিও অনেক সহজ করা হয়েছে।
  • রেড ক্যাটেগরির শিল্পের ক্ষেত্রে কন্সেন্ট টু অপারেটের সময়সীমা ২ বছর থেকে বাড়িয়ে ৫ বছর করা হয়েছে, অরেঞ্জ ক্যাটেগরির শিল্পের ক্ষেত্রে কন্সেন্ট টু অপারেটের সময়সীমা ৩ বছর থেকে বাড়িয়ে ৫ বছর করা হয়েছে এবং গ্রিন ক্যাটেগরির শিল্পের ক্ষেত্রে কন্সেন্ট টু অপারেটের সময়সীমা ৫ বছর থেকে বাড়িয়ে ৭ বছর করা হয়েছে। একটি নতুন হোয়াইট ক্যাটেগরি শুরু করা হয়েছে যাদের কন্সেন্ট পরিচালনার বাইরে রাখা হয়েছে।
  • পরিবেশের বদলের জন্য রাজ্যের অ্যাকশন প্ল্যানে সংশোধন আনা হয়েছে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে আধুনিক উন্নতিকরনের জন্য মিটিগেশন ও অ্যাডাপ্টেশন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
  • জীববৈচিত্রের সংরক্ষণের কার্যক্রম, সংশোধনে জোর দেওয়া এবং একটি বিশদ রেজিস্টার তৈরি করা হচ্ছে।
  • প্রচুর জলাশয়ের পুনরুজ্জীবনের ও সৌন্দর্যায়নের কাজ করা হয়েছে।
  • সমাজের সকল স্তরের মানুষের মধ্যে পরিবেশ সচেতনতা বাড়াতে জোর দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি পরিবেশের সংরক্ষণ বাড়াতে সাধারণ মানুষের সাহায্য নেওয়া হচ্ছে।