Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


August 9, 2018

New opportunities in jobs and education for scheduled tribes

New opportunities in jobs and education for scheduled tribes

The Trinamool Congress Government set up the Tribal Development Department for proper advancement of the tribal people of Bangla.

The department has introduced various educational facilities and job opportunities for students belonging to scheduled tribes (ST). The issuance of ST certificates has also increased hugely and the process has been streamlined.

Certificates for scheduled tribes

  • The issuance of scheduled tribe certificates per year has almost tripled over the last seven years, from 31,000 during financial year (FY) 2010-11 to 87,875 during FY 2017-18.
  • Through e-enabled services for the issuance of certificates to tribal people, a total of 5.79 lakh ST certificates were issued in the last seven years.
  • With the implementation of the WB Right To Public Service Act 2013, procedural delays in the implementation of ST certificates have reduced considerably. The average processing time for the certificates is now just four weeks.

 

Educational loans and scholarships

  • In a first-of-its-kind initiative in India, educational loans with low rates of interest are being extended to ST students aspiring for technical, professional and higher education – upto Rs 10 lakh for studying full-time courses within the country and upto Rs 20 lakh for studying courses abroad in recognised institutions or universities.
  • Introduction of online processing and disbursement of scholarships through direct benefit transfer (DBT) mode into the bank account of students has immensely benefited ST students. During the last seven years, 5.63 lakh ST students were provided scholarships.
  • The Sikshashree scholarship scheme was introduced during FY 2014-15 for ST students from classes V to VIII. Scholarship is paid directly into individual bank accounts through DBT mode. During 2014-15 to 2017-18, around 9.14 lakh ST students got benefits under this scheme.

 

Educational and job opportunities

  • To increase accessibility and reduce dropouts, the department has introduced a scheme for providing bicycles to ST girl students of classes IX to XII in 23 Left Wing Extremist-affected (LWE) blocks. Subsequently, all tribal girl students in the State from classes IX to XII were brought under this scheme. From 2011-12 to 2014-15, which was before the launching of the Sabooj Sathi scheme, 95,000 bicycles were distributed. Under Sabooj Sathi scheme, as much as 70 lakh cycles are being distributed in total.
  • Scholarships (both pre-matric and post-matric) have almost trebled, from 38,547 during FY 2010-11 to 1.11 lakh during FY 2017-18, increasing access to education.
  • The department has introduced special coaching for Joint Entrance Examination examinees through 26 centres located in different districts. On an average, 700 ST students are being enrolled per year. The department is also providing first year engineering and medical books to the successful ST candidates.
  • The department has enabled software-driven language learning courses (by McGraw Hill Education) in seven Eklavya Model Residential Schools (EMRS) to improve communication skill in English of the ST students.
  • At present, 1,200 students of 7 EMRSs are learning chess and some of them have shown promise in the game.
  • The department has enabled the introduction of special coaching for English, vernacular languages, mathematics, science subjects and computer education in all the 216 Ashram Hostels in the State. Ashram schools are residential schools which impart education up to the secondary level to children belonging to scheduled tribes (ST).
  • During last seven years, 127 ST candidates were sent for special coaching for IAS and WBCS examinations. Of them 29 were successful in qualifying for different jobs.
  • ST candidates numbering 24,500, both male and female, were provided skills training in different sectors during the last seven years. Of them, around 16,000 have got jobs or are self-employed.
  • Low-income ST beneficiaries are provided opportunities for self-employment in various sectors, namely, agriculture, horticulture, protective cultivation, animal rearing, pisciculture, bee-keeping, and a few others. During the last seven years, around 1.26 lakh beneficiaries have benefitted.
  • The department has initiated a special recruitment drive to fill up the backlog of vacancies in reserved categories in various State Government departments. During the first phase of the special recruitment drive (2014 to 2016), 943 people have been recruited in different categories while during the second phase (2016 till date), 1,736 vacancies are in the process of being filled up.

 

Thus, students belonging to scheduled caste categories have benefitted immensely under the Trinamool Congress Government. It is providing educational loans as well as arranging for employment opportunities for the students, ensuring a bright future.


অগাস্ট ৯, ২০১৮

আদিবাসী উন্নয়ন দপ্তরঃ পড়ুয়াদের জন্য নানা প্রকল্প

আদিবাসী উন্নয়ন দপ্তরঃ পড়ুয়াদের জন্য নানা প্রকল্প

বাংলার আদিবাসীদের উন্নয়নের জন্য তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত রাজ্য সরকার আদিবাসী উন্নয়ন দপ্তর গঠন করেছে। তপশিলি উপজাতির পড়ুয়াদের জন্য পড়াশোনা ও চাকরির সুযোগের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তপশিলি উপজাতি শংসাপত্র প্রদান বেড়েছে উল্লেখযোগ্য ভাবে এবং পুরো প্রক্রিয়াটি স্ট্রিমলাইন করা হয়েছে।

তপশিলি উপজাতি শংসাপত্র প্রদান

  • বছরে তপশিলি উপজাতি শংসাপত্র প্রদান সাত বছরে প্রায় তিনগুন বেড়েছে। ২০১০-১১ সালে যা ছিল ৩১,০০০ তা ২০১৭-১৮ সালে বেড়ে হয়েছে ৮৭,৮৭৫।
  • আদিবাসীদের শংসাপত্র দেওয়ার জন্য ই-পরিষেবা চালু হয়েছে। গত সাত বছরে মোট ৫.৭৯ লক্ষ শংসাপত্র প্রদান করা হয়েছে।
  • ডব্লুবিআরটিপিএস অ্যাক্ট ২০১৩ প্রয়োগ করে তপশিলি উপজাতির শংসাপত্র প্রদানের সময়সীমা গড়ে ৮ সপ্তাহ থেকে কমে ৪ সপ্তাহ করা হয়েছে।

 

শিক্ষা ঋণ ও বৃত্তি

  • দেশের মধ্যে এই প্রথম, তপশিলি জাতিদের নামমাত্র সুদে শিক্ষা ঋণ প্রদান করা হচ্ছে। যারা কারিগরি শিক্ষা, পেশাদারী শিক্ষা ও উচ্চশিক্ষায় আগ্রহী তারা এই ঋণ পাবে। এই ঋণের পরিমাণ সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা। এবং বিদেশে পড়তে গেলে এই ঋণের পরিমাণ ২০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত।
    বৃত্তির অর্থ সরাসরি পড়ুয়াদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে জমা পড়ে। গত সাত বছরে ৫.৬৩ লক্ষ তপশিলি উপজাতির পড়ুয়াদের বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে।
  • ২০১৪-১৫ সালে শিক্ষাশ্রী প্রকল্প চালু করা হয় পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণীর পড়ুয়াদের জন্য। বৃত্তির অর্থ সরাসরি পড়ুয়াদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে জমা পড়ে। ২০১৭-১৮ পর্যন্ত ৯.১৪ লক্ষ পড়ুয়া এই প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।

 

শিক্ষা ও চাকরির সুযোগ

  • ২৩টি মাওবাদী অধ্যুষিত ব্লকে স্কুল-ছুটের হার কমাতে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর তপশিলি উপজাতির ছাত্রীদের সাইকেল দেওয়ার সূচনা করা হয়। পরে সমস্ত আদিবাসী ছাত্রীদেরও এই প্রকল্পের আওতায় আনা হয়। ২০১১-১২ থেকে ২০১৪-১৫ সালের মধ্যে সবুজ সাথী প্রকল্প শুরু হওয়ার আগে ৯৫০০০ সাইকেল বিতরণ করা হয়েছিল। সবুজ সাথী প্রকল্পের অধীনে ৭০ লক্ষ সাইকেল বিতরণ করা হয়েছে।
  • প্রাক-মাধ্যমিক ও মাধ্যমিকোত্তর বৃত্তি প্রদান প্রায় তিনগুন হয়েছে। ২০১০-১১ সালে যে সংখ্যা ছিল ৩৮৫৪৭, তা ২০১৭-১৮ সালে বেড়ে হয়েছে ১.১১ লক্ষ।
  • সারা রাজ্যের ২৬টি কেন্দ্রে জয়েন্ট এন্ট্র্যান্স পরীক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ কোচিং শুরু করা হয়েছে। গড়ে ৭০০ জন তপশিলি উপজাতির পড়ুয়া এই কেন্দ্রে নথিভুক্ত হয়। এর পাশাপাশি তপশিলি পড়ুয়াদের মধ্যে যারা ইঞ্জিনিয়ারিং ও ডাক্তারি পড়ার সুযোগ পাবে, তাদের প্রথম বর্ষের বই বিনামূল্যে দেওয়া হবে।
  • এই দপ্তর একলব্য মডেল আবাসিক স্কুলের তপশিলি পড়ুয়াদের ইংরাজিতে দক্ষতা বাড়াতে সফটওয়্যার নির্ভর ভাষা শিক্ষার শুরু করেছে।
    এই মুহূর্তে ৭টি একলব্য মডেল আবাসিক স্কুলের ১২০০ ছাত্রকে দাবা খেলা শেখানো হচ্ছে।
  • ২১৬টি আশ্রম স্কুলে ইংরাজি, দেশী ভাষা, অঙ্ক, বিজ্ঞান বিষয়, কম্পিউটার শিক্ষার কোচিং দেওয়া হয়।
  • গত সাত বছরে ১২৭টি তপশিলি উপজাতির পড়ুয়াকে বিশেষ কোচিং দেওয়া হয়েছে আইএএস ও ডব্লিউবিসিএসএর জন্য। তার মধ্যে ২৯জন বিভিন্ন চাকরি পেয়েছে।
  • গত সাত বছরে ২৪,৫০০ তপশিলি উপজাতির ছেলেমেয়েদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে জীবিকানির্ভর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১৬,০০০ জন চাকরি পেয়েছে বা স্বনির্ভর হয়েছে।

 

কৃষি, উদ্যানপালন, নিরাপদ উৎপাদন, পশু পালন, মৎস্য চাষ, মধু উৎপাদন ইত্যাদি ক্ষেত্রে তপশিলি উপজাতির মানুষকে স্বনির্ভর করা হয়েছে। গত সাত বছরে ১.২৬ লক্ষ মানুষ উপকৃত হয়েছেন।