Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


August 9, 2018

Bangla Government working for the welfare of backward classes

Bangla Government working for the welfare of backward classes

The State Backward Classes Welfare (BCW) Department has been working hard for the welfare of the people belonging to backward classes.

The department has provided caste certi­ficates, reservation in the government sector and higher education, educational loans and scholarships, educational and job opportunities, healthcare facilities, and training in different skills.

Various Development and Cultural Boards and an Advisory Council have also been formed.

Caste certi­ficates

  • The Backward Classes Welfare Department has introduced e-enabled services for the issuance of caste certificates, disbursement of all scholarships, running the hostel monitoring system and monitoring inter-caste marriage incentives schemes, resulting in transparency, speedy disposal, easy access and increased coverage during last seven years.
  • The online processing of caste certifi­cates is operational in all the subdivisions of the State. This has considerably increased the issuance of certificates per annum, to 8.50 lakh, from 2.5 lakh prior to 2011. During the last seven financial years (2011-12 to 2017-18), 64.83 lakh scheduled caste (SC) and other backward classes (OBC) certificates were issued. The time for processing caste certificates has also reduced to only four weeks.
  • Approximately 41.24 lakh old caste certi­ficates, issued since 1980, have been scanned and uploaded on to the department’s portal. Scanned old certificates are used for online verifications and referencing.

Reservation in Government sector and higher education

  • The list of OBCs in Bengal has been extended to include an additional 107 Muslim communities. As a result, more than 97 per cent of the Muslim population of the State has been recognised as OBC and has thus become eligible for reservation in Government jobs and higher education.
  • A total of 110 communities have been included as OBCs during the last seven years (Trinamool Congress Government), bringing the total to 176.
  • 17 per cent reservation for OBCs has been granted by the West Bengal State Higher Education Institution (Reservation in Education) Act, 2013 without curtailing the general category seats.
  • 17 per cent reservation in State Government jobs has also been introduced for OBCs.

Educational loans and scholarships

  • In a first-of-its-kind initiative in India, educational loans with low rates of interest are being extended to ST students aspiring for technical, professional and higher education – upto Rs 10 lakh for studying full-time courses within the country and upto Rs 20 lakh for studying courses abroad in recognised institutions or universities.
  • Introduction of online processing and disbursement of scholarships through direct benefit transfer (DBT) mode into the bank account of students has immensely benefited ST students. During the last seven years, 56.02 lakh SC and 32.54 lakh OBC students were provided scholarships. Pre-Matric scholarship for OBC students has also been brought under the e-governance system.
  • The Sikshashree scholarship scheme was introduced during FY 2014-15 for ST students from classes V to VIII. Scholarship is paid directly into individual bank accounts through DBT mode. During 2014-15 to 2017-18, more than 48.46 lakh SC students were covered under the new scheme.
  • During last seven years, around 3,500 SC students were awarded Ambedkar Medha Purashkar, which has a cash award of Rs 5,000, for their meritorious result in their 10th standard board examinations.

Educational and job opportunities

  • To increase accessibility and reduce dropouts, the department has introduced the Sabooj Sathi scheme for providing bicycles to students from classes IX to XII. The BCW Department is the nodal department for Sabooj Sathi. A total of 70 lakh bicycles have been distributed.
  • The implementation process is managed by a single-window portal – www.wbsaboojsathi.gov.in. Records of distribution are available in the public domain. The e-implemented scheme has won three national-level awards – National Award for e-Governance, Award of Excellence from the Computer Society of India and the Skoch Order of Merit Award for 2017-18.

Hostels for students

  • To cater to the demands of outstation students, a number of hostels have been constructed. During the last seven years, 32 hostels have been constructed. Another five are at different stages of construction.
  • Five hostels have been approved in the last seven years for post-matric OBC students.
  • Three Ashram hostels for SC students (from classes I to X) from economically stressed families have become operative in the last seven years.

Healthcare

  • Construction of ICDS centres in tribal-dominated areas in convergence with MGNREGA has been prioritised. Rs 54.36 crore is in the process of getting utilised for 1,070 centres.

Skill training

  • During last seven years, around 65,000 SC candidates, both male and female were provided skill training for different occupations. Out of them 52,000 have got jobs or are self-employed.
  • ‘Ethnic Beauty Care’, that is, innovative skill training in beauty and personal care, has been declared as the single largest skill development initiative taken up by any State. Through this programme, 22,000 female SC beneficiaries have been provided livelihood opportunities in the beauty care segment.
  • SC beneficiaries having low income are provided opportunities for self-employment in various sectors through loan and subsidy assistance. The average annual coverage of the scheme has been considerably increased by the Trinamool Congress Government to 60,000, from 35,000 before 2011. The per capita investment has also been increased considerably.
  • The department has initiated special recruitment drive to fill up the backlog of vacancies in reserved categories in various State Government departments. During the first phase of the special recruitment drive (2014 to 2016), 4,142 people from SC communities have been recruited in different categories while during the second phase (2016 till date), 6,099 vacancies are in the process of being filled up.

Development and Cultural Boards and Advisory Council

  • Ten new boards – West Bengal Mangar Development Board, West Bengal Khambu Rai Development Board, West Bengal Bhujel Development & Cultural Board, West Bengal Damai Development & Cultural Board, West Bengal Kami Development & Cultural Board, West Bengal Sarki Development & Cultural Board, West Bengal Newar Development & Cultural Board, West Bengal Gurung Development & Cultural Board, West Bengal Kurmi Development & Cultural Board’ and West Bengal Terai, Dooars, Siliguri Development & Cultural Board – were constituted for the welfare and development of the ten communities.
  • A total of 3,203 number houses have been constructed through these boards from a departmental fund of Rs 139.30 lakh.
  • For focused and intensive development of SCs of the State, the West Bengal Scheduled Castes Advisory Council has been constituted through an Act of the State Government, with the Chief Minister as the Chairperson. This step is a one-of-its-kind in the country.
  • A new scheme titled Career Paramarsh Kendra (CPK) has been introduced with the objective of counselling students and job-seekers to enable them to choose right career path. Thirty CPKs have been set up in sub-divisional headquarters during 2017-18. Each CPK will counsel at least 2,400 target group youths, facilitate at least 400 candidates with self-employment and provide 120 candidates skill training for jobs or self-employment. Another 37 CPKs will be set up during 2018-19.

Other activities

  • In the last seven years 6,063 couples have been provided with inter-caste marriage incentives, at a rate of Rs 30,000 per couple. The total expenditure by the State Government on this head has been Rs 1.81 crore till now.

 

The department has thus brought about huge development for people belonging to the backward communities.

 


অগাস্ট ৯, ২০১৮

অনগ্রসর শ্রেণীর মানুষের উন্নয়নে দায়বদ্ধ পশ্চিমবঙ্গ সরকার

অনগ্রসর শ্রেণীর মানুষের উন্নয়নে দায়বদ্ধ পশ্চিমবঙ্গ সরকার

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঐকান্তিক সহযোগিতা ও প্রচেষ্টায় রাজ্য সরকার অনগ্রসর শ্রেণীর উন্নয়নে দায়বদ্ধ। গত সাত বছরে এই উদ্দেশ্যে সরকার গ্রহন করেছে একগুচ্ছ প্রকল্প।

আদিবাসী দিবসে দেখে নেওয়া যাক, রাজ্য সরকার কি কি প্রকল্প নিয়েছে অনগ্রসর শ্রেণীর উন্নয়নে:

জাতি/উপজাতি শংসাপত্র

  • গত সাত বছরে অনগ্রসর শ্রেণী উন্নয়ন দপ্তর পরিষেবাগুলিকে করেছে অনলাইন। এর ফলে পরিষেবা পাওয়া হয়েছে সহজ, দ্রুত, স্বচ্ছতা এবং পৌঁছেছে বেশী মানুষের কাছে।
  • ২০১১ পর্যন্ত বার্ষিক শংসাপত্র দেওয়া হত ২.৫ লক্ষ, যা এখন বেড়ে ৮.৫ লক্ষ হয়েছে।
  • ২০১১-১২ সাল থেকে ২০১৭-১৮ সাল পর্যন্ত মোট ৬৪.৮৩ লক্ষ তপশিলি জাতি ও অনগ্রসর শ্রেণীর শংসাপত্র প্রদান করা হয়েছে। শংসাপত্র পাওয়ার সময়সীমা কমে ৪ সপ্তাহ হয়েছে।
  • ১৯৮০ সাল থেকে প্রদান করা আনুমানিক ৪১.২৪ লক্ষ পুরনো শংসাপত্র স্ক্যান করে সত্যাখান ও সম্পর্ক প্রমানের জন্য দপ্তরের ওয়েবসাইটে রাখা হয়েছে।

সংরক্ষণ

  • অনগ্রসর শ্রেণীর তালিকায় আর ১০৭টি মুসলমান সম্প্রদায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।
  • সব মিলিয়ে ১৭৬ টি সম্প্রদায় এই মুহূর্তে অনগ্রসর শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত (ওবিসি এ-৮১ এবং ওবিসি বি-৯৫), এর মধ্যে ১১০টি সম্প্রদায় গত সাত বছরে অনগ্রসর শ্রেণীর তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।
  • সংরক্ষনহীন আসনের সংখ্যা না কমিয়ে ২০১৩ সালে ১৭% সংরক্ষন দেওয়া হয়েছে অনগ্রসর শ্রেণীকে।
  • সরকারি চাকরিতেও এই ১৭% সংরক্ষনকে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে।

শিক্ষা ঋণ ও বৃত্তি

  • দেশের মধ্যে প্রথম এই রাজ্যে তপশিলি জাতির ছাত্রছাত্রীদের দেশের মধ্যে কোথাও পড়ার জন্য ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত এবং বিদেশে পড়ার জন্য ২০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত শিক্ষা ঋণ পেতে পারবেন।
  • গত সাত বছরে ৫৬.০২ লক্ষ তপশিলি জাতি ও ৩২.৫৪ লক্ষ অনগ্রসর শ্রেণীর পড়ুয়াদের বৃত্তি দেওয়া হয়েছে। ই-গভর্নেন্সের আওতায় অনগ্রসর শ্রেণীর পড়ুয়াদের প্রাক মাধ্যমিক বৃত্তিরও ব্যবস্থা করা হয়েছে।

শিক্ষাশ্রী

  • ২০১৪-১৫ সালে তপশিলি জাতির পঞ্চম শ্রেণী থেকে অষ্টম শ্রেণীর পড়ুয়াদের জন্য শিক্ষাশ্রী প্রকল্প চালু করা হয়েছে।
  • ২০১৪-১৫ সাল থেকে ২০১৭-১৮ সাল পর্যন্ত এই প্রকল্পের আওতায় এসেছে ৪৮.৪৬ লক্ষ পড়ুয়া।
  • বৃত্তির অর্থ সরাসরি পড়ুয়াদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে জমা পড়ে। এই প্রকল্পটিকেও ই-গভর্নেন্সের আওতায় আনা হয়েছে।
  • গত সাত বছরে মাধ্যমিক স্তরে ভাল ফল করার জন্য ৩৫০০ তপশিলি জাতির পড়ুয়াকে ‘আম্বেদকর মেধা পুরস্কার’ ও সঙ্গে ৫০০০ টাকা প্রদান করা হয়েছে।

শিক্ষা ও চাকরির সুযোগ

  • বাইরে থেকে আসা পড়ুয়াদের দাবী মেনে গত সাত বছরে এখনও পর্যন্ত রাজ্যে ৩২টি হোস্টেল নির্মাণ করা হয়েছে ও আরও ৫টি হোস্টেল তৈরী হচ্ছে।
  • গত সাত বছরে ৫টি অনগ্রসর শ্রেণীর সেন্ট্রাল হোস্টেল নির্মাণ করা হয়েছে মাধ্যমিকোত্তর অনগ্রসর শ্রেণীর পড়ুয়াদের জন্য।
  • এছাড়া, গত সাত বছরে অর্থনৈতিক ভাবে দুর্বল তপশিলি জাতির ১ম থেকে ১০ম শ্রেণীর পড়ুয়াদের জন্য ৩টি আশ্রম হোস্টেল নির্মাণ করা হয়েছে।
  • গত সাত বছরে ৬৫০০০ তপশিলি জাতির ছেলে ও মেয়েকে বিভিন্নরকম কর্মসংস্থানমুখী প্রশিক্ষন দেওয়া হয়েছে, যাদের মধ্যে এই মুহূর্তে ৫২০০০ কর্মরত।
  • “এথনিক বিউটি কেয়ার” যা এক অভিনব দক্ষতা প্রশিক্ষন প্রকল্প বিউটি অ্যান্ড পার্সোনাল কেয়ারের দিক থেকে, স্বীকৃত হয়েছে দেশের মধ্যে সব থেকে বড় পরিসরের দক্ষতা প্রশিক্ষন কর্মসূচী হিসেবে। এই কর্মসূচীতে ২২০০০ তপশিলি জাতির মহিলাদের প্রশিক্ষন দেওয়া হয় যাতে তারা বিউটি ও পার্সোনাল কেয়ারকে জিবিকা হিসেবে বেছে নিতে পারেন।
  • অর্থনৈতিক ভাবে দুর্বল অনগ্রসর শ্রেণীর মানুষদের স্বনির্ভর করতে ঋণ প্রদান ও ভর্তুকির ব্যবস্থা করা হয়েছে।
  • গড় বার্ষিক কভারেজ যা ২০১১ পর্যন্ত ৩৫০০০ টাকা ছিল, তা বাড়িয়ে ৬০০০০ টাকা করা হয়েছে। মাথা পিছু বিনিয়োগও বাড়ানো হয়েছে।
  • দপ্তর এক বিশেষ নিয়োগ প্রক্রিয়া চালু করেছে যার মাধ্যমে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে সংরক্ষিত আসন যা ফাঁকা ছিল, তা পুরন করা হচ্ছে নিয়োগের মাধ্যমে।
  • এই বিশেষ নিয়োগ প্রক্রিয়ার প্রথম পর্যায়ে (২০১৪-১৬) ৪১৪২ জন তপশিলি জাতির ব্যক্তিকে নিয়োগ করা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্যায়ে (২০১৬-এখনও পর্যন্ত) ৬০৯৯টি তপশিলি জাতির জন্য সংরক্ষিত শূন্য পদ চিহ্নিত করা হয়েছে এবং নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে।

উন্নয়ন/সাংস্কৃতিক বোর্ড এবং উপদেষ্টা কমিটি

  • ১০টি নতুন বোর্ড গঠন করা হয়েছে অনগ্রসর শ্রেণীর কল্যান ও উন্নয়নের জন্য। দপ্তরের তহবিল থেকে এখনও পর্যন্ত ৩২০৩টি নতুন গৃহ নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।
  • দেশের মধ্যে প্রথম তপশিলি জাতির নিবদ্ধ ও সার্বিক উন্নয়নের জন্য ওয়েস্ট বেঙ্গল শিডিউলড কাস্ট অ্যাডভাইসরি কাউন্সিল গঠন করা হয়েছে।
  • কেরিয়ার পরামর্শ কেন্দ্র নামের এক নতুন প্রকল্প শুরু করা হয়েছে যেখানে কর্মপ্রার্থী ও পড়ুয়াদের কাউন্সেলিংয়ের মাধ্যমে সঠিক জীবিকার পথ বাতলে দেওয়া হবে।
  • ২০১৭-১৮ সালে ৩০টি মহকুমার সদর দপ্তরে এই কেন্দ্র খোলা হয়েছে। প্রতিটি কেন্দ্র কমপক্ষে ২৪০০ পড়ুয়াকে কাউন্সেলিং করবে, তার মধ্যে ৪০০জনকে স্বনির্ভর এবং ১২০জনকে কর্মমুখী দক্ষতা উন্নয়নের প্রশিক্ষন দেবে ৬ মাসের মধ্যে। ২০১৮-১৯ সালের মধ্যে আর ৩৭ টি কেন্দ্র খোলা হবে।