Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


September 14, 2018

The Singur struggle: A timeline

The Singur struggle: A timeline

On August 31, 2016, the Supreme Court of India, in a historic judgement declared that the land acquisition made by the erstwhile Left Front Government in Singur was illegal and asked the present Government led by Chief Minister Mamata Banerjee to return the plots to their owners. This was the end of the ten-year struggle started by Mamata Banerjee against illegal land acquisition.

A brief timeline of the events that led to the victory of Mamata Banerjee’s struggle for farmers is as follows:

2006

May 2006: The then West Bengal Government decided to acquire 997 acres (initially 1,013 acres were asked for) for Tata Motors’ small-car factory in Singur in Hooghly district. Almost 6,000 families, including many agricultural workers and marginal peasants, were to lose their land and livelihoods.

There was no compensation for the landless agricultural workers, unrecorded bargadars and other rural households who were indirectly dependent for their livelihood on land and agricultural activities. Almost all the land-owners had also expressed their unwillingness to give their land from the inception of the project, but these appeals had fallen on deaf ears.

July 17: Work on acquisition of land for the factory for producing Nano cars in Singur began. Farmers led by the Trinamool Congress MLA from Singur, Rabindranath Bhattacharjee, lodged protests, saying the State Government was trying to remove them from the land they owned.

September 25: The land in Singur was forcefully acquired. The events showed that the Left Front Government could go to any extent to evict the people and hand over the land to the company officials. More than 400 people, including several women and children, were brutally assaulted and about 78 activists were arrested, which included 27 women and then Member of Parliament Mamata Banerjee.

At around 1.40 in the night, RAF and police together attacked a few thousand men, women and children who had been protesting peacefully all day. A few hundred persons were injured. About 5,000 people, including about 2,000 women, had peacefully demonstrated at the block development office at Singur against the distribution of cheques to peasants under the banner of ‘Singur Krishi Jami Raksha Committee’. Rajkumar Bhul, who was attacked by police, died on September 28.

The struggle of the people nevertheless continued in a democratic and peaceful fashion in the next few months. Marches, rallies and public hearings got organised in Singur and Kolkata.

October 1: On the day of Bijoya Dashami, night vigil was observed in the affected mouzas of Singur. All the villagers in all the villages in Singur block switched off the lights in their houses in the evening as a symbol of protest.

November 30: Assault on Mamata Banerjee who was barred by police from proceeding to Singur. The Government prohibited all assemblies in Singur, displaying its Fascist face.

December 2: Farmers of Khaserbheri, Bera Beri and Gopalnagar gathered to resist the fencing of the proposed project land. Severe police force was used against them, several people were injured and more than 60 people were arrested.

December 4: The Singur agitation intensified with Mamata Banerjee starting a hunger strike at Esplanade in central Kolkata after the State Government had rejected her demand for stopping the fencing work in Singur and the withdrawal of police forces from the area. It lasted 26 days.

December 18: At about 6am, the body of a young activist of the Singur Krishi Jami Raksha Samiti, Tapasi Malik was found burning in the fenced area. The girl was reportedly raped and murdered by miscreants who were present within the guarded area.

2008

October 3: The Nano project is moved out of Bangla.

2011

March 28: Mamata Banerjee announced before the Assembly election that she would do everything to return 400 acres of land in Singur to the unwilling farmers.

May 20: A Trinamool Congress-led Government took oath with Mamata Banerjee as Chief Minister.

June 14: The AITC-led Government passed the historic Singur Land Rehabilitation and Development Bill in the Assembly.

2016

August 31: Supreme Court of India terms the land acquisition in Singur illegal and unconstitutional.


সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৮

ফিরে দেখা সিঙ্গুর আন্দোলন

ফিরে দেখা সিঙ্গুর আন্দোলন

২০১৬ সালের ৩১শে আগস্ট। দুই বছর আগে সুপ্রিম কোর্ট মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দীর্ঘ ১০ বছরের আন্দোলনকে মান্যতা দিয়ে রায় দেন সিঙ্গুরে জমি অধিগ্রহণ ছিল অবৈধ।

তারপর ১৪ই সেপ্টেম্বর, ২০১৬তে কৃষকদের জমি ফিরিয়ে দিয়ে প্রতিশ্রুতি পালন করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আসুন ফিরে দেখি সিঙ্গুর আন্দোলনের কিছু মুহূর্ত:

২০০৬

মে মাসে তৎকালীন বামফ্রন্ট সরকার টাটা গোষ্ঠীর ১ লাখি গাড়ির কারখানা ও আনুসাঙ্গিক শিল্প গড়ার জন্য সিঙ্গুরের মোট ১০০০ একর জমি অধিগ্রহনের সিদ্ধান্ত নেয়। গায়ের জোরে সরকারের জমি অধিগ্রহণকে কেন্দ্র করে শুরু হয় কৃষক বিক্ষোভ। শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রীকে কালো পতাকা দেখান তারা। প্রায় ৩০০০ কৃষক সিঙ্গুরের বিডিও অফিসের সামনে ধর্না দেয় সরকারের এই জমি অধিগ্রহণের বিরোধিতায়।

১৭ই জুলাই তৃণমূল কংগ্রেসের বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য’র নেতৃত্বে কৃষকরা প্রতিবাদ জানান।

সব প্রতিবাদ উপেক্ষা করে ২৫শে সেপ্টেম্বর বলপূর্বক তৎকালীন সরকার জমি অধিগ্রহণ করে। ৪০০রও বেশী মহিলা, পুরুষ, শিশু নির্মম ভাবে অত্যাচারিত হন। ৭৮ জন প্রতিবাদী – যার মধ্যে ২৭ জন মহিলা ছিলেন – গ্রেফতার হন। তাদের মধ্যে ছিলেন সাংসদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।রাত ১:৪০ নাগাদ শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদরত মানুষের ওপর নেমে আসে RAF ও পুলিশের নির্মম অত্যাচার। পুলিশের অত্যাচারে আহত রাজকুমার ভুল ২৮ তারিখ মারা যান। তৃণমূল কংগ্রেসের নেতৃত্বে চলে বিক্ষোভ।

সেই বছরই বিজয়া দশমীর (১লা অক্টোবর) রাতে নিজেদের বাড়িতে সব আলো বন্ধ রেখে প্রতীকী প্রতিবাদ করেন।

৩০শে নভেম্বর সিঙ্গুর যাওয়ার পথে আটকে দেওয়া হয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। ৪ঠা ডিসেম্বর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ধর্মতলায় অনশন শুরু করেন। ২৬ দিন চলে এই অনশন।

১৮ই ডিসেম্বর ‘সিঙ্গুর কৃষিজমি রক্ষা সমিতির’ অন্যতম প্রতিবাদী তাপসী মালিককে ধর্ষণ করে পুড়িয়ে মারা হয়। প্রতিবাদে উত্তাল হয় সারা বাংলা।

২০০৮

৩ অক্টোবর কারখানা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয় গোষ্ঠী।

২০১১

২৮শে মার্চ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেন বিধানসভা নির্বাচনে জয়লাভ করলে অনিচ্ছুক চাষিদের ৪০০ একর জমি ফেরত দেবে তার সরকার।

২০শে মে রাজ্যে ঘটল পালাবদল। ৩৪ বছরের বাম শাসনের অবসান ঘটিয়ে ক্ষমতায় এল তৃণমূল কংগ্রেস।

১৪ই জুন রাজ্য সরকার ঐতিহাসিক ‘সিঙ্গুর জমি পুনর্বাসন ও উন্নয়ন বিল’ পাস করে বিধানসভায়।

২০১৬

৩১শে আগস্ট: বাম আমলের জমি অধিগ্রহণকে অসাংবিধানিক আখ্যা দেয় সুপ্রিম কোর্ট।
এর মাঝে সিঙ্গুরের উন্নয়নের জন্যও নেওয়া হয়েছে একাধিক উদ্যোগ:

  • ২০১৪ সালে সিঙ্গুরে তাপসী মালিক কৃষক বাজারের উদ্বোধন করা হয়
  • সুফল বাংলার ১টি আউটলেট খোলা হয়
  • একটি নতুন সরকারি ডিগ্রি কলেজ সিঙ্গুরে স্থাপন করা হয়েছে
  • জুলপিয়া নদীর উপর একটি সেতু নির্মাণ করা হয়েছে
  • স্থানীয় প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র এবং আই সি ডি এস সেন্টার পুনর্গঠন করা হয়েছে
  • জল সরবরাহ প্রকল্প গ্রহণ এবং উন্নীতকরণ করা হয়েছে