Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


January 7, 2019

Cooperative banks to get some of the services of PSBs

Cooperative banks to get some of the services of PSBs

The State Government has decided to extend some of the basic services of public sector banks (PSB) to the cooperative banks of Bangla. This was announced by the Cooperation Minister recently while addressing a seminar in Bardhaman.

He said that this upgrading of services would be extended to cooperative banks in a step-by-step manner. As the first step, 2,631 cooperative societies have been selected.

These cooperative societies would get customer service points, or CSPs. Among the facilities to be provided at the CSPs would be net banking, online money transfer through RTGS method (which implies instant money transfer) and ATMs. Once the CSPs become active, customers would also be able to avail SMS alert facility.

All these facilities for faster and simplified banking would strengthen the rural economy of the State.

Source: Aajkaal


জানুয়ারী ৭, ২০১৯

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের মতো আধুনিক পরিষেবা এবার সমবায় ব্যাঙ্কেও

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের মতো আধুনিক পরিষেবা এবার সমবায় ব্যাঙ্কেও

এবার সমবায়ের মাধ্যমেই রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের মতো অত্যাধুনিক পরিষেবা পৌঁছে যাবে গ্রামে গ্রামে। ইন্টারনেট, এসএমএস এবং এটিএম–সহ সমস্ত আধুনিক পরিষেবা সারা বাংলার মানুষ পাবেন। গত ২৭ ডিসেম্বর পূর্ব বর্ধমানের টাউন হলে সমবায় নিয়ে এক আলোচনা সভায় একথা জানান সমবায়মন্ত্রী। এদিনের আলোচনার বিষয় ছিল ‘সমবায় মাধ্যমে উন্নত প্রযুক্তি ও ডিজিটালাইজেশন দ্বারা আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকরণ’।

সমবায়মন্ত্রী বলেন, ‘‌গ্রামের মানুষ আর বলতে পারবেন না যে তাঁরা সমবায়ের পরিষেবা থেকে বঞ্চিত। মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে যাবে পরিষেবা। এজন্য রাজ্যের ২৬৩১টি সমবায় সমিতিকে আমরা বেছে নিয়েছি। গ্রাহক পরিষেবা কেন্দ্র অর্থাৎ কাস্টমার সার্ভিস পয়েন্টের (‌সিএসপি)‌ মাধ্যমে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের সুবিধাগুলি মানুষের কাছে পৌঁছে যাবে। থাকবে আরটিজিএস, নেট পরিষেবা, এসএমএস এলার্ট, এটিএম–সহ সমস্ত আধুনিক পরিষেবা। সারা বাংলার গ্রামের মানুষ পাবেন। গ্রামীণ অর্থনীতিকে আরও বেশি করে শক্তিশালী করার জন্যই এই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।’‌

মন্ত্রীর কথায়, ‘‌গ্রামের কৃষকের আয় গত সাড়ে সাত বছরে প্রায় তিনগুণ বেড়েছে। আমরা চাই, আরও বাড়ুক।আমাদের রাজ্যে প্রায় ৩৩ হাজারেরও বেশি সমবায় আছে। আমাদের রাজ্যে সমবায় ব্যবস্থার মাধ্যমে খাদ্যসাথীর ধান কেনা হয়। ৮০ শতাংশ ধান সমবায় সমিতিগুলো কেনে। বাংলায় কিষাণ ক্রেডিট কার্ড আমরা দিয়ে থাকি। এবছর আমরা সাড়ে ১০ লক্ষের বেশি কার্ড দিয়েছি। তার আগেই ২৩ লক্ষ কিষাণ ক্রেডিট কার্ড দেওয়া হয়েছে। সমবায়ের অধীনে প্রায় ২ লক্ষ ৩ হাজার স্বনির্ভর গোষ্ঠী আছে। যাদের সদস্য সংখ্যা প্রায় ৩০ লক্ষের কাছাকাছি।’‌

সৌজন্যে: আজকাল