Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


July 28, 2018

Safe Drive Save Life: Now for comprehensive fitness checking of public transport vehicles

Safe Drive Save Life: Now for comprehensive fitness checking of public transport vehicles

Expanding the scope of Safe Drive Save Life, one of the most successful programmes of the State Government, the Transport Department is going to start a State-wide drive to check the fitness of public transport vehicles.

It would be comprehensive check-up, covering every aspect of the condition of a vehicle to determine its suitability for usage on roads. The checking would be done throughout the year, periodically.

According to an official of the Transport Department, initially, emphasis will be given on checking the fitness of buses and mini-buses.

There are two primary reasons behind starting this programme of checking the fitness of public transport vehicles: to help in reducing the number of accidents and to ensure that commuters get better service, particularly as the bus fares have recently gone up.

As an example, the official said that the department will be checking the conditions of tyres being used in the public transport vehicles. The use of good quality tyres is crucial to check accidents as the chances of skidding go up when sudden brake is applied, if the conditions of tyres are poor. This is more so during the monsoon. Then, they will check whether water drips from the roof of a bus and inconveniences passengers, the condition of seats, etc.

The checking will be carried out at different points across the State. Necessary steps will be taken if they find that the vehicles are not maintained properly. The bus owners at fault will be directed to repair their vehicles before plying them again.

Source: Millennium Post


জুলাই ২৮, ২০১৮

সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ - এবার সব গাড়িতে স্টিকার

সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ - এবার সব গাড়িতে স্টিকার

‘সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ’ কর্মসূচিকে সামনে রেখে পশ্চিমবঙ্গকে দুর্ঘটনামুক্ত রাজ্য হিসেবে গড়ার আহ্বান জানালেন রাজ্যের পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

পরিবহণ মন্ত্রী বলেন, ‘‘মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় মানুষের জীবনের স্বার্থে এই স্লোগানকে সামনে রেখে বিভিন্ন রকম কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এর গুরুত্ব সকল মানুষই জানেন। হেলমেট এবং লাইসেন্স ছাড়া যাতে কেউ গাড়ি চালাতে না পারে সেই বিষয়ে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। ‘নো হেলমেট নো পেট্রল’ এই সিস্টেম চালু করা হয়েছে প্রতিটি পেট্রল পাম্পে। দুর্ঘটনা যাতে না হয় তার জন্য জন-সচেতনতামূলক বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। আমরা আহ্বান জানিয়েছি যে রাজ্যের বিভিন্ন স্কুলের ছাত্রছাত্রীদেরও এই বিষয়ে কাজে লাগাতে হবে৷ যাতে তাদের পড়াশুনার কাজে বিঘ্ন না ঘটিয়ে তারা এই ‘সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ’ নিয়ে আরও বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে পারে।’’

তিনি আরও বলেন, ‘‘প্রতিটি গাড়ির সামনে এবং প্রতিটি গাড়ির পিছন দিকে যাতে এই স্লোগানকে প্রকাশ্যে রেখে বিভিন্ন স্টিকার লাগানো যায় তা দেখা হচ্ছে। যে ব্যক্তি গাড়ি ওভারটেক করছেন তার যাতে নজরে আসে ওই স্টিকার৷ সেই সঙ্গে তিনি যাতে সচেতন থাকেন এই বিষয়ে বিভিন্ন রকম উদ্যোগ নিচ্ছি আমরা। জাতীয় সড়কগুলিতে এবং এনএইচএআই-এর সংলগ্ন বিভিন্ন এলাকায় দুর্ঘটনা কমানোর জন্য আমরা ট্রমা কেয়ার অ্যাম্বুলেন্স চালু করেছি। এই অ্যাম্বুলেন্সে করে কোনও ব্যক্তিকে দুর্ঘটনার পর সঙ্গে সঙ্গে কাছের কোনও সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়া যায়, তার জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে।’’

এছাড়াও ট্রাফিক জ্যাম যাতে না হয় তার জন্য র‍্যাডার ভ্যান চালু করা হচ্ছে। আমরা আহ্বান জানিয়েছি যে, মানুষ নিজের স্বাস্থ্যের পাশাপাশি গাড়ির স্বাস্থ্যের প্রতিও যেন নজর রাখে। গাড়ির জন্য সময় মতো সিএফ করাতে হবে। পাশাপাশি সমস্ত কাগজপত্র পরীক্ষা করাতে হবে। আমরা আগামী পুজোর আগেই ৮০ টি নতুন ইলেকট্রিক মিনিবাস চালু করছি৷ যে বাসগুলি পরিবেশ-বান্ধব হবে। এই ধরনের বিভিন্ন কর্মসূচি রাজ্য জুড়েই নেওয়া হয়েছে বলে শুভেন্দু অধিকারী জানান৷