Didi Direct

January 30, 2019

Bangla CM launches Krishak Bandhu scheme

Bangla CM launches Krishak Bandhu scheme

Bangla Chief Minister Mamata Banerjee today launched the Krishak Bandhu scheme at a public meeting in Birbhum district. She had announced this scheme on December 31, 2018. The CM handed over cheques to farmers at Rampurhat to formally start this scheme.

The finance department has already allocated Rs 4,150 crore for this scheme; out of which Rs 4,000 crore have been allocated to help the farmers in cultivation. The remaining Rs 150 crore will be given as financial assistance to the families of families of farmers in case of farmer deaths.

The finance department has sent the funds to the state co-operative banks. All farmers will start receiving the money from February 1, 2019. To distribute the benefits of this scheme, camps have been set up in 341 blocks across the State. Seventeen thousand farmers have already enrolled for this scheme.

Speaking on the occasion, the CM said:

  • Today I officially launched the Krishak Bandhu scheme. Beneficiaries will receive the money from February 1.
  • If any farmer, 18-60 years of age, dies, their family will receive Rs 2 lakh from the government.
  • Farmers do not have to pay the premium of crop insurance. State Government pays the amount, not Centre. And they are sending letters claiming credit for the scheme. We used to pay 80% of the funds. We will pay 100% of the amount from now.
  • We have waived off khajna tax on agricultural land. The mutation fees on agricultural land has been waived off too.
  • We have increased farmers’ pension to Rs 1,000 from Rs 750. Number of beneficiaries has also increased from 65,000 to 1 lakh.
  • We have received Krishi Karman award five years in a row.
  • More than 12,000 farmers have committed suicide in the country. In Bangla, we have tripled their average annual income.

 


জানুয়ারী ৩০, ২০১৯

কৃষকবন্ধু প্রকল্পের সূচনা করলেন মুখ্যমন্ত্রী

কৃষকবন্ধু প্রকল্পের সূচনা করলেন মুখ্যমন্ত্রী

গত ৩১ ডিসেম্বর কৃষকদের স্বার্থে কৃষকবন্ধু প্রকল্পের ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার এক মাসের মাথায় আজ, কয়েকজন কৃষকের হাতে চেক তুলে দিয়ে এই প্রকল্পের সূচনা করলেন মুখ্যমন্ত্রী।

প্রকল্পের জন্য ইতিমধ্যে কৃষি দপ্তরকে ৪,১৫০ কোটি টাকা দিয়ে দিয়েছে অর্থ দপ্তর। তার মধ্যে চার হাজার কোটি টাকা চাষের জন্য কৃষকদের সাহায্য করতে দেওয়া হচ্ছে। বাকি ১৫০ কোটি টাকায় কোনও কৃষক মারা গেলে তাঁর পরিবারের সদস্যদের কৃষকবন্ধু ডেথ বেনিফিট স্কিম থেকে দু’লক্ষ টাকা করে দেওয়া হবে।

অর্থ দপ্তর থেকে রাজ্য কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্কে টাকা চলে গেছে। সেখান থেকে চেকের মাধ্যমে কৃষকরা ১ ফেব্রুয়ারি থেকে টাকা পাবেন। এই প্রকল্পের সুবিধা পাইয়ে দিতে ২৮ জানুয়ারি রাজ্যের ৩৪১টি ব্লকে শিবির চালু হয়েছে। শিবিরগুলি থেকে নাম নথিভুক্ত করছেন কৃষকরা। ইতিমধ্যেই ১৭ হাজার কৃষক নাম নথিভুক্ত করেছেন।

মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের কিছু অংশ:

  • আজ কৃষক বন্ধু প্রকল্প চালু হল। উপকৃতরা পয়লা ফেব্রুয়ারি থেকে টাকা পাবেন।
  • ১৮-৬০ বছরের মধ্যে যদি কোনও কৃষক মারা যায় তাহলে সরকার তাদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা আর্থিক সাহায্য দেবে।
  • কৃষকদের শস্য বীমার টাকা দিতে হয় না। রাজ্য সরকার দেয়, দিল্লির সরকার নয়। দালালি করে ছবি পাঠাচ্ছেন, ব্যাঙ্ক আপনাদের হাতে তাই তাদের দিয়ে ছবি পাঠাচ্ছেন, পোস্ট অফিস থেকে মিথ্যে কথা বলছেন। ওদের সবটা মিথ্যে কথা।
  • আমি চ্যালেঞ্জ করে বলে গেলাম ৮০% টাকা রাজ্য সরকার দেয়। আগামি দিনে পুরো টাকাটাই রাজ্য সরকার দেবে।
  • কৃষিজমির খাজনা মুকুব করে দিয়েছে রাজ্য সরকার। কৃষিজমির মিউটেশনও মুকুব করে দেওয়া হয়েছে।
  • কৃষকদের পেনশনের টাকা ৭৫০ থেকে বারিয়ে ১০০০ টাকা করা হয়েছে। ৬৫০০০ কৃষকের বদলে এখন ১ লক্ষ কৃষক এই পেনশন পান।
  • ১২০০০ এরও বেশী কৃষক সারা দেশে আত্মহত্যা করেছেন। কিন্তু, বাংলায় কৃষকদের আয় তিনগুণেরও বেশী বেড়েছে।