Latest News

December 20, 2016

Trinamool condemns lowering of EPF interest rate

Trinamool condemns lowering of EPF interest rate

Trinamool Congress on Monday lashed out at the Central government’s decision to lower the interest rate on Employee Provident Fund deposits, accusing the Cntre of helping the big organisations while “punishing” the middle, lower middle and lower income groups.

Employees Provident Fund Organisation (EPFO) on Monday reduced the interest rate on Employee Provident Fund (EPF) deposits to 8.65 per cent for 2016-17 from the current 8.8 per cent. The agency claimed the government would face a deficit of Rs 383 crore if the interest rate on EPF deposit is kept the same.

“This is not governance. This is hooliganism on the life and livelihood of common people. This government has already heckled the common man by demonetising the old notes and now they have increased the misery of the working class by reducing the EPF interest rate,” said party Secretary General Partha Chatterjee.

“This is just the begining. The government will surely reduce the interest on fixed deposits. The way this government is going, it seems the working class, the farmers and the employees of unorganised sector would not be able to live in this country anymore,” said the party Secretary General.

 

ইপিএফও-র সুদের হার কমানোর তীব্র সমালোচনা করলো তৃণমূল

মঙ্গলবার কেন্দ্রের ইপিএফের সুদ কমানোর সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করে তৃণমূল কংগ্রেস। কর্মচারী ভবিষ্যৎনিধি তহবিলে (ইপিএফও) সুদের হার কমাল কেন্দ্র। ২০১৬-১৭ অর্থবর্ষে ইপিএফের সুদ নির্ধারিত হল ৮.৬৫ শতাংশ। ২০১৫-১৬ অর্থবর্ষে এই হার ছিল ৮.৮ শতাংশ। এই হারে সুদ প্রদান করা হলে ঘাটতি থাকবে ৩৮৩ কোটি টাকা।

এদিন কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করে তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “শুধু সাধারণ মানুষ নয় সকল শ্রমজীবী মানুষ এর ফলে সমস্যার সম্মুখীন হবেন। প্রায় ৪-৫ কোটি মানুষ।  এরা সরকার চালাচ্ছেনা, এরা ক্রমশ গণতন্ত্রকে ধ্বংসের মুখে নিয়ে যাচ্ছে। মানুষের জীবন-জীবিকাকে পদদলিত করছে নানাভাবে। আগে নোট বাতিলের মাধ্যমে করেছে। এখন আবার ই পি এফ এর সুদের হার কমানোর মাধ্যমে শ্রমজীবী মানুষের ক্ষতি করছে”।

এটা তো সবে শুরু। দেশে আর চাকুরীজীবী কৃষিজীবী অসংগঠিত শ্রমিক থাকবে না। চা বাগাম জুটমিলে মৃত্যু মিছিল শুরু হবে। মানুষ ধীরে ধীরে মৃত্যুমুখে পতিত হবে। এই সরকারের অগণতান্ত্রিক কাজের নিন্দা করার মত আজ কোন ভাষা নেই বলে জানান মহাসচিব।