Latest Newsসাম্প্রতিক খবর


November 16, 2018

25 things Mamata Banerjee said at the extended core committee meeting

25 things Mamata Banerjee said at the extended core committee meeting

The meeting of extended core committee of All India Trinamool Congress was held today at Netaji Indoor Stadium, Kolkata. The main speaker was Mamata Banerjee.

Speaking at the meeting, Mamata Banerjee laid down a roadmap for the future. She instructed party workers and leaders to gear up for the upcoming Lok Sabha elections in 2019.

MPs, MLAs, ministers and other elected representatives were present at the meeting today.

Highlights of the Chief Minister’s speech:

We have units in several states. Our leaders must keep in touch with the interested people in these states.

In the name of NRC, people are being persecuted in Assam. People have been killed. Bobby Hakim is the observer for Assam. Few days ago a delegation comprising Derek O’Brien, Mamata Bala Thakur, Kakoli Ghosh Dastidar, Mahua Moitra went to Assam to meet the persecuted families. Earlier, our delegation was not allowed to enter the state.

We want the Hindu and Muslim Bengalis in Assam to be united. We do not want any divisive politics. We are not against Assamese people. We love them. We want Assam to prosper. We want everyone to be happy.In the name of NRC, Bengalis, Biharis, Nepalis are being evicted from Assam. They are living there for 50-60 years. They are citizens of India. The names of someone’s father is in the list, but mother’s name is missing. Someone’s son features in the list but daughter’s name is not there. The situation is so bad that 31 people have committed suicide.

India is a united country. We all have to live together in harmony. People of Assam must strengthen their protests. We will support them.

We have set up Namashudra Development Council. A Matua Development Council is coming up. I appeal to you to be united. We have given recognition to Rajbongshi, Kamtapuri, Ol Chiki, Kurukh, Gurmukhi – all languages. We have given them recognition because we love people. We work for everyone.

A leader must always be with the people, not sit in his room. A leader is known by their actions. We will not tolerate any lobbying. You must always be with the people, or else you cannot be a part of Trinamool. We cannot compromise on this.

Trinamool is our pride. Trinamool stands for struggle, people’s movement. Trinamool stands for Maa-Mati-Manush.

We are forming a committee for Adivasis. Deb Kumar Tudu will be the chairman of the committee.

I would request Trinamool Youth Congress to develop an app for online donation. It will go live on January 1, the foundation day of the party. People can pay any amount (Rs 10, Rs 50, Rs 100, Rs 500) as per their capacity.

The winter session of West Bengal Assembly is starting today and will continue till November 29. Party will confiscate the salaries of those MLAs who do not come to the Assembly despite whip. We will consider if someone is unwell or has an emergency situation at home. When I was an MP, I used to reach the Parliament at 9 AM. Remember, your post will not exist if the party does not exist.

Be alert when EVMs are being tested. If necessary, get them checked 3 times. If party sends 2 people, 2 more should go just to cross-check. BJP will tamper with 40% EVMs. In Maheshtala bypoll 60 EVMs had malfunctioned. Those who do not adhere to party’s instructions will have to face the music. Take care of the voters’ list revision. Six lakh voters are added to the rolls every year. We must reach out to them.

We do not have funds worth crores like the BJP. We do not compromise in lieu of money. We do not need cut-money from the government to run our party.

They do not have people’s support. They are luring people with the promise of free bikes. There is massive corruption across the country. They are spending crores on publicity. They would not need so much propaganda if they practised honest politics.

Will we resort to dacoity to fight elections? If we sell CDs of songs, or sell paintings, they call us thieves.

Andhra Pradesh CM Chandrababu Naidu has done the right thing in saying that he won’t allow Central Bureau of Investigation (CBI) in his state. We will also do the same in our state. We will cross-check the laws. They are giving instructions to the agencies from their party offices. From CBI to RBI – they have turned the institutions into disasters.

BJP is history changer, name changer, note changer,institution changer but not game changer. The country is in danger.They (BJP) project as if they have given birth to the nation but they were nowhere during independence. They are policy changer, planning commission changer, institution changer. They are destroying the Constitution and the federal structure.

The CPI(M) talks against the BJP elsewhere and has an understanding with them here. We have seen in the panchayat polls, Ram and Bam are one. They have given up their ideology. They are practising politics of compromise, bereft of principles. CPI(M) has sold itself to the BJP. They have become a signboard. People will teach them a lesson.

BJP will themselves become a statue, thanks to their statue-making spree. The country will heave a sigh of relief if that happens. We want them to go, so that the country can be saved. We must fight for this.

I believe in the power of Maa-Mati-Manush. We are nothing without them. The youths and students must take an active part. Women must take active part in the party’s activities. We have given 50% reservation to women in the panchayats. We are the only party with 33% women MPs in Lok Sabha. We must give priority to women.

There will be one party office in every region. Party office is our Temple, Mosque, Gurudwara, Church. There can be no disputes regarding party office. No one must fight to become a bigger leader. You have one identity – Trinamool.

Trinamool respects all religions equally. We perform puja as well as roza. We also celebrate Guru Nanak’s birthday.

When Trinamool was formed, people thought we will not last long. We have now become a banyan tree. We will play a big role to save the country in future.

We do not like boasting about power but we know how to use power with responsibility to serve people. This is our pride.

We have to win 42 out of 42 seats in Bangla. I have heard a lot of money is being spent in some areas. But we have the support of people – from the Hills to the tea gardens, Bengalis as well as non-Bengalis. We have to work for all. Only then we will attain victory.

Let us take a pledge today. We have to take entire India along in the coming days. Jai Hind. Vande Mataram. Khuda Hafiz.

 


নভেম্বর ১৬, ২০১৮

বর্ধিত সাধারণ সভার মঞ্চ থেকে কি কি বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়? দেখে নিন

বর্ধিত সাধারণ সভার মঞ্চ থেকে কি কি বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়? দেখে নিন

আজ নেতাজী ইন্ডোর স্টেডিয়ামে তৃণমূল কংগ্রেসের বর্ধিত সাধারণ সভার বৈঠক আয়োজিত হয়। এই বৈঠকের প্রধান বক্তা ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এই বৈঠক থেকে তিনি আগামী দিনের, বিশেষ করে আগামী বছরের লোকসভা নির্বাচনের জন্য দলের নেতা-কর্মীদের দিকনির্দেশ দেন। রাজ্যের ২৩টি জেলা ছাড়াও অসম সহ ১৩টি রাজ্যের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন আজকের বৈঠকে। ছিলেন দলের সাংসদ, বিধায়ক, মন্ত্রী এবং অন্যান্য নির্বাচিত প্রতিনিধিরা।

মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের কিছু অংশ:

বিভিন্ন রাজ্যে আমাদের দলের ইউনিট রয়েছে। যারা উৎসাহী তাদের সঙ্গে আমাদের দলের নেতারা যোগাযোগ করবেন।

অসমে এনআরসি-র নামে লোকজনদের বের করে দেওয়া হচ্ছে, সাধারণ মানুষকে মেরে ফেলা হচ্ছে, তাদের ওপর অত্যাচার হয়েছে। অসমের পর্যবেক্ষক ববি হাকিম; এছাড়া, ডেরেক, মহুয়া, মমতাবালা ঠাকুর, কাকলি ঘোষ দস্তিদারের নেতৃত্বে আমাদের এক প্রতিনিধি দল অসমে গিয়েছিল। কিন্তু তাদের ঢুকতে দেওয়া হয়নি। নিহতদের পরিবারের সঙ্গে আমাদের নেতারা গিয়ে দেখা করে এসেছেন।

আমাই চাই অসমের হিন্দু ও বাঙালি মুসলমান এক হোক। তাদের মধ্যে যেন কোন ভাগাভাগি না হয়। আমি অসমীয়াদেরও ভালবাসি, আমরা তাদের বিরুদ্ধে নই। আমরা চাই অসমের ভালো হোক, উন্নয়ন হোক, আমরা চাই সবাই ভালো থাকুক।

অসমে আজ এনআরসি-র নামে বাঙালি, বিহারি, নেপালি খেদাও চলছে। ৫০-৬০-৭০ বছর ওরা অসমে আছে, ভারত ওদের ঘর। এনআরসি তালিকায় কারো বাবার নাম রয়েছে, কারো মায়ের নেই, কারো ছেলের নাম আছে তো কারো মেয়ের নাম নেই। পরিস্থিতি এত খারাপ যে ৩১ জন মানুষ আত্মহত্যা করেছে।

ভারতবর্ষ সকলে একসাথে থাকার দেশ, সকলকে নিয়ে একসাথে চলার দেশ। অসমের লোকেদের জোরদার আন্দোলন করতে হবে এবং আমরা তাদের সম্পূর্ণ সমর্থন দেব।

আমাদের সরকার নমশূদ্র উন্নয়ন কমিটি গঠন করেছে, মতুয়া উন্নয়ন কমিটিও করে দেওয়া হবে। আমি আপনাদের সকলকে এক হওয়ার আবেদন জানাচ্ছি।

আমাদের সরকার রাজবংশী, কামতাপুরি, অলচিকি, কুরুক, গুরুমুখী সব ভাষাকে স্বীকৃতি দিয়েছি কারণ মানুষকে ভালোবেসে করেছি। সমাজের সবাইকে নিয়ে চলা

নেতা হওয়া মানে মানুষের পাশে থাকা, নেতা হওয়া মানে ঘরে বসে থাকা নয়। আমার কাজ, কাজের মধ্যে দিয়ে নেতা তৈরি হয়। দল কোনরকম লবি বরদাস্ত করবে না। যারা তৃণমূল কংগ্রেস তারা সবসময় মানুষের পাশে থাকবে। যারা থাকবে না, দল তাদের নাম বাদ দিয়ে দেবে, সেখানে কোন কম্প্রোমাইজ করা হবে না।

তৃণমূল কংগ্রেস আপনাদের সম্মান, এটা সংগ্রামের প্রতীক, আন্দোলনের প্রতীক, মা-মাটি-মানুষের প্রতীক।

আজ আমরা আদিবাসীদের জন্য একটি কমিটি গঠন করছি, দেব কুমার টুডু তার সভাপতি হবেন।

তৃণমূল যুব কংগ্রেসকে বলবো একটা অনলাইন অ্যাপ করতে, ১লা জানুয়ারি তৃণমূলের প্রতিষ্ঠা দিবস – সেদিন থেকে এটি চালু হবে। একটা ফান্ড করা হবে – ১০, ৫০, ১০০, ৫০০ টাকার। যে যা পারবেন দেবেন।

আজ থেকে বিধানসভা শুরু হয়ে গেছে, চলবে আগামী ২৯ তারিখ পর্যন্ত। হুইপ দেওয়ার পরেও যারা আসেন না, তাদের বেতন পার্টি কেটে নেবে। কেউ অসুস্থ হলে, বা বাড়ির কোনও দরকারি কাজে আটকে গেলে, সেটা মানবিক দৃষ্টিতে দেখা হবে। আমি যখন সাংসদ ছিলাম, স্কুলপড়ুয়ার মত সকাল ৯টায় পৌঁছে যেতাম। সরকার ক্ষমতায় আছে বলে, কাজ না করে ঘুমোলে চলবে না। দল না থাকলে আপনিও থাকবেন না।

ভোটের যন্ত্র যখন দেখানো হবে, তখন একবার নয় তিনবার করে প্রতিটা যন্ত্রও পরীক্ষা করুন। দুজনকে দল পাঠালে আরও দুজন বেশী যান ক্রশ-চেক করতে। কারণ, বিজেপির উদ্দেশ্য ৪০ শতাংশ যন্ত্র খারাপ করে দেওয়া। মহেশতলা ভোটেও ৬০টা যন্ত্র খারাপ করে দিয়েছিল। যারা দলের নির্দেশ মেনে কাজ করবে না, শাস্তি পাবে। ঠিক করে ভোটার তালিকা করুন। প্রতি বছর ৬ লক্ষ নতুন ভোটার হচ্ছে। তাদের এগিয়ে নিয়ে আসতে হবে।

বিজেপির মত তৃণমূলের হাজার হাজার কোটি টাকা নেই, টাকা নিয়ে আমরা আপস করি না, টাকা নিয়ে রাজনীতি করি না, আর আমি সরকারের কাট মানি নিয়েও দল চালাই না।

ওরা বিনা পয়সায় বাইক দিচ্ছে, লোক নেই টাকা আছে, সেই টাকা দিয়ে নানারকম কুকীর্তি করা হচ্ছে সারা দেশ জুড়ে। যত না করে তার বেশি প্রচার করে, ওদের কাজ প্রচার করা, প্রচার করতে করতে একদিন তলানিতে এসে পৌঁছাবে। সৎ পথে হলে এই প্রচার হলে তা চালিয়ে যাও কিন্তু খারাপ পথে হলে বন্ধ করে দাও।

নির্বাচন কি ডাকাতি করে করবো?এমন অবস্থা আঁকা বিক্রি করে, গান বিক্রি করে টাকা রোজগার করলেও চোর বলছে।

চন্দ্রবাবু নাইডু সিবিআইকে ঢুকতে না দিয়ে খুব ভালো করেছে। নিয়ম আছে। আমরাও আইন ক্রস চেক করব। আগে এসবের দরকার হত না কিন্তু এখন বিজেপি সব সংস্থাগুলোকে নির্দেশ দিচ্ছে পার্টি অফিসে বসে। সিবিআই-ইডি-আরবিআই নিয়ে যা ইচ্ছে তাই করছে, ডিসাস্টার করে দিয়েছে পুরোটা। কিছু বলার নেই।

বিজেপি দল হল history changer, name changer, note changer, not game changer আর দেশের danger। সব ইতিহাস বদলে দিচ্ছে, সব নাম বদলে দাও, শুধু বিজেপির নাম করে দাও। মনে হচ্ছে যেন ওরাই দেশটার জন্ম দিয়েছে অথচ স্বাধীনতার সময় পাত্তাই ছিল না। ওরা policy changer, planning commission changer, institution changer। এই দল সংবিধান, ফেডারেল কাঠামো বদলে দিচ্ছে।

আর সিপিএম দল, কোথাও বলবে আমরা বিজেপির বিরুদ্ধে আছি আর এখানে পুরো সমঝোতা। পঞ্চায়েতেও আপনারা দেখেছেন, রাম বাম এক। যারা আদর্শ মেনে রাজনীতি করেন, সে যে দলের হোক, তাঁর সঙ্গে আমার মতবিরোধ নেই। যে নিজের আদর্শ বাদ দিয়ে সমঝোতার রাজনীতি করে, তাদের আমি রাজনীতিজ্ঞ বলে মনে করিনা। এই করেই সিপিএম দলটা বিকিয়ে গেছে। এখন ওদের সাইনবোর্ডগুলোও মনে হয় বিজেপি তৈরী করে দিচ্ছে। এই রাম বামের মাঝে থেকে জনগণকে রক্ষা করতে হবে। দল নিয়ে ভাবুন।

স্ট্যাচু করতে করতে নিজেরাই কবে স্ট্যাচু হয়ে যাবে। আগামিদিনে ভারতবর্ষে সত্যি যদি ওরা স্ট্যাচু হয়ে যায়, তাহলে দেশ বাঁচবে। ওরা যাক, দেশ থাকুক। সেই দিকেই কিন্তু আমাদের লড়াইটা চালিয়ে যেতে হবে।

আমি কিন্তু মা-মাটি- মানুষ-ই বিশ্বাস করি, মানুষকে বাদ দিয়ে কিছু হয় না। আর ছাত্র-যৌবনকে আমি বলব- নতুন করে জাগতে। সবাইকে আমি বলব, মেয়েরা ছাড়া কোন কাজ সমাপণ হয় না, আরোও বেশী করে মেয়েদের পার্টিতে নিয়ে আসুন, আমরা ৫০% আসন সংরক্ষণ আমরা করে দিয়েছি,আমরা একমাত্র পার্টি যাদের ৩৩% নির্বাচিত সদস্য রয়েছে লোকসভায়। আগামিদিনে মহিলাদের গুরুত্ব দিন।

ছাত্র-যুবদের আমি বলে দিলাম যে এলাকায় একটাই পার্টি অফিস থাকবে। পার্টি অফিস আপনার মন্দির, মসজিদ, গুরুদ্বার, দেবালয়। পার্টি অফিস নিয়ে কোন ভাগাভাগি হবে না। আমি বড় নেতা না ও বড় নেতা সেটা পরিচয় নয়। নেতাদের মাথার ওয়পর একটাই ছাতা, সেটা তৃণমূল কংগ্রেস।

আগামিদিনে তৃণমূল কংগ্রেস আরো শক্তিশালি করতে হবে দেশের জন্যে। তৃণমূল কংগ্রেস সব ধর্মে আছে, সব কর্মে আছে। আমরাই যেমন পুজো করি, রোজা রাখি, গুরু নানকের জন্মদিন পালন করি।

তৃণমূল কংগ্রেস যখন জন্মেছিল তখন লোকে ভাবত, কবে গোরুতে খেয়ে নেবে, কবে ছাগলে মাড়িয়ে দেবে, গাছটা কবে মরে গেছে। তৃণমূল কংগ্রেস কিন্তু আজকে ছোট চারাগাছ নয়, সেটা এখন বটবৃক্ষ। তাই মনে রাখবেন পার্টি কিন্তু শক্তিশালী হয়ে গেছে। এটাকে কেটে ফেলে শেষ করা সম্ভব নয়।এটাকে ধ্বংস করা সম্ভব নয়। মনে রাখবেন আগামিদিনে তৃণমূল কংগ্রেস দেশ বাঁচাতে একটা গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা নেবে।

আমরা ক্ষমতা দেখাতে পছন্দ করিনা, কিন্তু সেই ক্ষমতা ব্যবহার করে কীভাবে মানুষের কাজে লাগাতে হয় সেটা আমরা জানি। এটা আমাদের ঐতিহ্য, এটা আমাদের গর্ব।

বাংলায় ৪২-টায় ৪২ টা করতে পারবেন তো? সবাই আমাদের সমর্থন করেন, পাহাড় থেকে শুরু করে, চা-বাগান থেকে শুরু করে সমস্ত জায়গায় অবাঙ্গালীরাও আমাদের সমর্থন করেন। সকলকে নিয়ে চলতে হবে, তাহলেই জয় হবে।

আগামিদিনে তৃণমুল কংগ্রেস যেন সমগ্র ভারতকে সঙ্গে নিয়ে চলতে পারে তার শপথ নেবেন, জয় হিন্দ, বন্দেমাতরম, খোদা হাফেজ।