Latest News

August 21, 2017

The evolution of student politics: Dr Partha Chatterjee

The evolution of student politics: Dr Partha Chatterjee

Has the glorious tradition of student politics now come under the cloud of the politics of extortion? This question is on everyone’s lips now. The influence of student politics, which is supposed to be one of the standard bearers of the political future of the nation, has dimmed. The Bengal Government is trying to mould student politics in the state on the basis of the model followed at St Xavier’s College. Is it the right way forward? Both the supporters and naysayers have their points.

My entry into politics was through the route of campus politics. I was witness to student politics from the late Sixties to the tumultuous Seventies. You can say I was also part of the dramatis personae to some extent. However, there is a wide gap between the kind of politics students followed during those days and that being followed now. The primary difference is related to the values attached to politics. There was a period when, despite the influence of ultra-Left beliefs, politics in college and university campuses still basically served the interests and aspirations of students. Our aim as student political leaders was to enable students to get everything which would help them in their vocation – be it related to studies or anything else. The demands we made were sometimes addressed to institutions, at other times to the administration or the government. But it is important to remember that everything was student-centric.

Closing down classes in the name of political movements or holding teachers to ransom by barricading them in their rooms for long hours can never be, whatever else they may be, hallmarks of student movements. Now all these are being organised in the garb of student politics. Earlier, the sphere of work of the students’ unions was limited to the welfare of the students – like publishing magazines, organising sports events, programmes welcoming new students, annual cultural programmes and academic debates, etc. Whatever may have been the influence of politics from the outside world, it never clouded the fact that student politics was meant to serve the interests of the students only.

We also used to organise protests. When the Siddhartha Shankar Ray-led Congress Government was in power, we had organised protests demanding students’ concessions in buses and trams. I had hit the streets as a member of Chhatra Parishad, against a government led by my own party. But never did the protests reach such a stage that they brought disrepute to the student movement. Protesting to get concessions for students in public transport, trying to convince the authorities to extend help to poor but meritorious students, collecting relief material – these and similar demands comprised the sphere of student politics.

But were the students of those times unaware of the larger political issues of the time? Of course they were. Socially conscious students had political consciousness too, and were aware of rights. Based on their respective political views, a section of student activists later got involved in party politics. From Priya Ranjan Das Munshi to Subrata Mukherjee, from Subhas Chakravarty to Shyamal Chakravarty, and down to the current Chief Minister Mamata Banerjee – they all were products of student politics. From working in students’ political organisations, they moved on to mainstream politics.

Current student politics, however, suffers from a serious lack of commitment. Various social issues of the time formed the cornerstones of our involvement in political movements. The current generation of students fail when it comes to showing social commitment. In this age of competition, they are self-centred with respect to their relation to their institution, they are adventurists instead of being committed. This is the comparative picture of student politics then and now.

Now the question is where does the crux of the problem lie? In one word, it’s money. It may sound odd, but it is the reality. Due to increased financial commitments from governments and private contributions, students unions are increasingly becoming flushed with money. It is this monetary influence that is eroding the integrity of some students, leading to misplaced priorities. The student community, instead of trying to recover its bearings, is receding more and more into the darkness of depravity. A lot of non-student-like qualities are surfacing among them.

In some educational institutions, it has been seen that some ex-students are suddenly becoming active during the admission season – they are asking for monetary bribes in lieu of seats in the institution. When it comes to the admission process, I have myself seen how, during the three-and-a-half decades of the Left era, merit was made the poorer cousin of the venal proclivities of political leaders. Hence from the time we came to power, we have made it our mission to reform the education sector.

We have taken several steps to fill up vacancies in the teaching and non-teaching posts in colleges and universities. We have paid attention to infrastructural improvements. To keep pace with the rest of the country and to address the requirements of the modern times, we have upgraded the syllabus, and wherever possible, made it industry-oriented. With respect to admissions, we have made merit the only condition; hence the full-fledged online system of admission. This particular aspect is one of the path-breaking steps of our government. We have been able to convey to the people that this step was necessary to make the admission process transparent. Our primary aim is to ensure that every student gets the right opportunity to get admitted as per merit.

Now, all these changes have put a handful of students in a quandary. It has been seen that these so-called student leaders never attend class. Often, after passing their courses, they re-take admission in the same college in some other course. Obviously one cannot expect any commitment from such people when it comes to college education. For them, the field of education is an arena for pursuing their agenda of gaining illicit power through corruption.

Our Chief Minister and the government led by her have made education a high-priority sector. She is determined to recover the lost glory of Bengal so that the State gets back its rightful place in the world. To achieve this, it is the quality of education that has to be kept in mind. Hence, there has to be a complete turnaround in the way the system is run.

Now, any such big change would hurt the self-interests of a few. I admit that the online system of admission that we have started is not cent per cent foolproof. Some unscrupulous students are trying to take undue advantage of any loopholes that may exist in the system to further their own ends. We have managed to plug most of the loopholes but some remain, which we are trying to remove. However, none can deny the transparency that we have managed to bring about through this online system. Even our biggest critics would not dare to criticise that. This is our strength. I think this is a historic step towards the reformation of the education system.

Next in line is the clean-up of student unions. We have received the recommendations of the Lyngdoh Commission (education commission set up the Central Government). Keeping those in mind, I have also held discussions with educationists. Each one of them has raised the issue of wanting to see an end to the chaos that prevails in the name of running students’ unions. The Chief Minister wants students to be aware of politics, for student politics to remain, but for it to be free of the negatives.

This article was first published on Bartaman dated August 20, 2017


ছাত্র রাজনীতির বিবর্তন: ডঃ পার্থ চট্টোপাধ্যায়

ছাত্র রাজনীতির যাবতীয় ঐতিহ্য কি এখন তোলাবাজির অন্ধকারে? এ প্রশ্ন আজ সব মহলে। প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে, রাষ্ট্রের ভবিষ্যৎ গঠনের লক্ষ্যে যে সংসদ দিশা দেখায়, তা আজ ফিকে। জেভিয়ার্স মডেলে রাজ্য ছাত্র রাজনীতি সংস্কার করছে। তা কি সঠিক পদক্ষেপ? মত পক্ষে আছে, বিপক্ষেও।

ছাত্র আন্দোলনের মধ্য দিয়েই আমার রাজনীতিতে প্রবেশ। ছয়ের দশকের শেষ পর্ব থেকে সত্তরের উত্তাল সময়ের সাক্ষী আমি। কিছু অংশে কুশীলবদের ভিড়ে অংশীদার ছিলাম। তবে সেকালের ছাত্র আন্দোলনের থেকে আজকের ছবির ফারাক বিস্তর। মূল ফারাকটা অবশ্যই গুণগত। একটা সময় ছিল, যখন অতি বাম রাজনীতির প্রভাব সত্ত্বেও কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস কোনওভাবেই পড়ুয়াদের স্বার্থবাহী মূলধারার আন্দোলন থেকে বিচ্যুত হয়নি। তখন আমাদের লক্ষ্যই থাকত পঠন-পাঠন থেকে শুরু করে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নানা ধরনের দাবি আদায় করে নেওয়া। সেই দাবি কখনও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের কাছে, কখনও আবার থাকত সরকার বা প্রশাসনের কাছে। সবটাই ছিল ছাত্রসমাজ কেন্দ্রিক।কিন্তু আন্দোলনের নামে ক্লাস বন্ধ করে দেওয়া, অধ্যক্ষ-অধ্যাপকদের ঘরে আটকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা পণবন্দি করে রাখার কায়দায় হুজ্জুতি করার নাম আর যাই হোক না কেন, ছাত্র আন্দোলন হতে পারে না। আর এই সবই হয়ে যাচ্ছে ওইসব প্রতিষ্ঠানের ছাত্র সংসদকে ঢাল করে। ছাত্র সংসদের কাজের পরিধি ছিল পড়ুয়াদের কল্যাণকর কর্মসূচির মধ্যে। যেমন, পত্রিকা প্রকাশ, খেলাধূলার আয়োজন, নবীন ছাত্র-ছাত্রীদের বরণ, বাৎসরিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, শিক্ষা-সমাজসহ নানা বিষয়ের আলোচনা-বিতর্ক সভা ইত্যাদি। বৃহত্তর সমাজের রাজনীতি কখনওই কলেজ ক্যাম্পাসের অন্দরের একান্ত ছাত্রস্বার্থবাহী বিষয়গুলিকে ছাপিয়ে যেত না। সমাজের প্রয়োজনে আমরা রাস্তায় নেমেছি। ট্রামে-বাসে ছাত্র কনসেশনের দাবিতে আমরা যখন রাস্তায় নামি, তখন রাজ্যে সিদ্ধার্থশংকর রায়ের কংগ্রেস সরকার। ছাত্র পরিষদ কর্মী হয়ে সেই দাবিতে পথে নেমেছিলাম—নিজেদের সরকারের বিরুদ্ধে। কিন্তু কোনও অবস্থাতেই সেটা এমন পর্যায়ে পৌঁছায়নি যে আমাদের সেই আন্দোলনের ধারাকে কালিমালিপ্ত করতে পারে। কখনও ছাড় বা কনসেশনের দাবি, কখনও গরিব-মেধাবী সহপাঠীদের পাশে দাঁড়াতে কর্তৃপক্ষকে বাধ্য করা, কখনও আবার প্রাকৃতিক দুর্যোগে রাস্তায় নেমে সাধারণ মানুষের থেকে ত্রাণসামগ্রী জোগাড় করা—এসবই ছিল ছাত্র আন্দোলনের বিষয়বস্তু। ছাত্র-ছাত্রীরা কি সেই সময় বৃহত্তর সমাজের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত থাকত না? নিশ্চয়ই থাকত। সমাজ সচেতন ছাত্রদের রাজনৈতিক মতামত ছিল, হিতাহিত বোধ ছিল। তার নিরিখেই বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের কর্মকাণ্ডে জড়িয়েছে একাংশ। প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সি, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, সুভাষ চক্রবর্তী, শ্যামল চক্রবর্তী থেকে বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়—সবাই কিন্তু ছাত্র রাজনীতিরই প্রোডাক্ট। ছাত্র সংগঠনের কাজের মধ্য দিয়ে রাজনীতির মূল স্রোতে এসেছেন। কিন্তু একালের ছাত্র রাজনীতিতে বড়ই অভাব কমিটমেন্টের। নানা ধরনের সামাজিক দুর্দশাকে সামনে রেখে আন্দোলনে শামিল হতাম আমরা। বর্তমান প্রজন্মের মধ্যে সেই সামাজিক কমিটমেন্ট সেভাবে দেখা দেখা যায় না। প্রতিযোগিতার বাজারে তারা আত্মকেন্দ্রিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতি, কমিটমেন্টের বদলে অ্যাডভেঞ্চারিস্ট। এটাই সেকাল-একালের তুলনামূলক ছাত্র সমাজের চিত্র।

তাহলে প্রশ্ন জাগতে পারে, আসল ব্যাধি কোথায়? এককথায় বললে—অর্থই অনর্থের মূলে। শুনতে খটকা লাগলেও এটাই বাস্তব। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র সংসদ বা স্টুডেন্টস ইউনিউনের তহবিল এখন নানা কারণে অনেক স্ফীতকায় হয়েছে। দ্রুত বদলে গিয়েছে চরিত্র। বেড়ে গিয়েছে সরকারি অনুদান। বেসরকারি পৃষ্ঠপোষকতার কল্যাণে অনেক কলেজের আর্থিক জোগান আমাদের সময়ের থেকে বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। আর এই আর্থিক সচ্ছলতা এইসব প্রতিষ্ঠানের একাংশকে এমনভাবে গ্রাস করেছে যে, তাদের কর্মকাণ্ডের নীতিগত অবস্থানও ক্রমশ বদলে গিয়েছে। ছাত্রসমাজ সেই নৈতিক অবক্ষয়ের আগ্রাসন থেকে মুক্ত হওয়া দূরের কথা, আরও অন্ধকারে নিমজ্জিত হচ্ছে। অছাত্রসুলভ নানা উপাদান তাদের মধ্যে প্রকট হচ্ছে।

কিছু কিছু প্রতিষ্ঠানে দেখা যাচ্ছে, সেই কলেজের প্রাক্তনীদের কেউ কেউ ছাত্র ভরতির মরশুমে সক্রিয় হয়ে উঠছে। অর্থের বিনিময়ে ভরতির প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করছে। শিক্ষামন্ত্রী হিসাবে ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতায় দেখেছি, বিগত সাড়ে তিন দশকের বাম জমানায় ছাত্র রাজনীতির দাপটে মেধাকে বিসর্জন দিয়ে ছাত্র ভরতি পর্বে নেতাদের স্বজনপোষণ। যা দেখেছে রাজ্যবাসীও। আমরা তাই প্রথম থেকেই শিক্ষার প্রসার ও উন্নতিকল্পে একাধিক সংস্কারের পথ ধরেছি। কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক ও অশিক্ষক কর্মীর পদপূরণে তৎপর হয়েছি। পরিকাঠামোগত উন্নয়নে নজর দিয়েছি। সময়োপযোগী এবং সর্বভারতীয় স্তরে শিক্ষাব্যবস্থার সঙ্গে সমন্বয় রেখে পাঠক্রম আরও আধুনিক ও কার্যকরী করার সংকল্প নিয়েছি। কলেজে ভরতিতে মেধাকে একমাত্র অগ্রাধিকার দিয়েছি। তাই সর্বত্র অনলাইন ভরতি। এটা আমাদের সরকারের একটা যুগান্তকারী উদ্যোগ। ভরতি প্রক্রিয়াকে স্বচ্ছ করার লক্ষ্যেই যে এই পদক্ষেপ, সেটা আমরা সাধারণ মানুষকে বোঝাতে পেরেছি। মেধাবী কোনও পড়ুয়া যাতে তার যোগ্যতা অনুসারে নির্দিষ্ট কলেজে ভরতি হতে পারে, তা নিশ্চিত করাটাই আমাদের মূল লক্ষ্য। কিন্তু মুষ্টিমেয় কিছু ছাত্র এই শৃঙ্খলায় বিপাকে পড়েছে। দেখা গিয়েছে, এইসব তথাকথিত ছাত্রনেতা নিজেরা কলেজে ক্লাস করে না। অনেকে আবার পাশ করার পর ফের অন্য কোনও বিষয় নিয়ে ভরতি হয়ে কলেজে নাম লিখিয়ে রাখে। স্বভাবতই তাদের কাছে কলেজ-শিক্ষার প্রতি সেই কমিটমেন্ট আশা করা যায় না। শিক্ষাঙ্গন তাদের কাছে ব্যক্তিগত ক্ষমতা ও দুর্নীতির আখড়া বিশেষ। আমাদের সরকার তথা মুখ্যমন্ত্রী শিক্ষাকে তাঁর অগ্রাধিকারের শীর্ষে জায়গা দিয়েছেন। বাংলাকে বিশ্বের দরবারে জায়গা করে দিতে তার হারানো গৌরব ফিরিয়ে দিতে মুখ্যমন্ত্রী অঙ্গীকারবদ্ধ। তাঁর সেই জয়যাত্রায় সামগ্রিকভাবে শিক্ষার পরিমাণ ও গুণগত প্রসারই প্রধান অস্ত্র। তাই এতকাল ধরে চলে আসা ব্যবস্থাটার খোলনোলচে বদলাতে হচ্ছে। বদল ঘটালে কিছু কায়েমি স্বার্থে ধাক্কা তো লাগবেই। আমরা যে অনলাইন প্রক্রিয়া চালু করেছি, তা এখনই একশো শতাংশ সফল এমনটা দাবি করব না। ব্যবহারিক ক্ষেত্রে কিছু দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে ছাত্রের ছদ্মবেশধারী কেউ কেউ ভরতি প্রক্রিয়া থেকে মুনাফা লোটার চেষ্টা করছে। এই প্রবণতা অনেকটাই রুখে দেওয়া গিয়েছে। তবে সম্পূর্ণ নির্মূল হয়নি। কিন্তু ভরতি প্রক্রিয়ার সংস্কারে যে রাজনৈতিক সদিচ্ছা আমাদের সরকার দেখিয়েছে, তা অস্বীকার করার উপায় নেই। এমনকী আমাদের অতি বড় সমালোচকও বুকে হাত দিয়ে মেধাভিত্তিক অনলাইন ভরতি প্রক্রিয়ার সমালোচনা করার সাহস পাবেন না। এটাই আমাদের শক্তি। এটা শিক্ষা ক্ষেত্রে গণতান্ত্রিক সংস্কারের এই ঐতিহাসিক পদক্ষেপ বলেই আমি মনে করি।

এরপরেই আসছে ‘ছাত্র সংসদ’ ব্যবস্থার সংস্কার। ইতিমধ্যে লিংডো কমিশনের (কেন্দ্রের তৈরি শিক্ষা বিষয়ক কমিশন) রিপোর্টের সুপারিশ আমাদের হাতে এসেছে, বিভিন্ন শিক্ষাব্রতী মানুষের মতামত পাওয়া গিয়েছে। এইসব মতামতকে সামনে রেখেই বিভিন্ন স্তরে রাজ্যের শিক্ষানুরাগীদের সঙ্গেও আমরা মত বিনিময় করেছি। ছাত্র সংসদ পরিচালনার নামে যে অব্যবস্থা ক্রমশ ক্যাম্পাসগুলোকে অশান্তির আগার বানিয়ে ফেলেছে, সবাই তার অবসানের পক্ষে সওয়াল করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী চান, ছাত্ররা রাজনীতি সচেতন হোক। ছাত্র রাজনীতি থাকুক। কিন্তু শিক্ষাঙ্গনকে কলুষিত করার রাজনীতির ইতি ঘটুক। তাঁর সেই ইচ্ছাকে স্বাগত জানিয়ে রাজ্য মন্ত্রিসভার অনুমোদনক্রমে রাজ্য বিধানসভায় বিল পাশ করানো হয়েছে। রাজ্যপালের প্রয়োজনীয় সম্মতি লাভের পর, উচ্চশিক্ষা দপ্তর বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে, ছাত্র সংসদ বা স্টুডেন্টস ইউনিয়নের বিকল্প ছাত্র পর্ষদ বা স্টুডেন্টস কাউন্সিল গঠনের সিদ্ধান্ত এখন আইনি শিলমোহর পেয়েছে। মনে রাখতে হবে—এই স্টুডেন্টস কাউন্সিল গঠনের প্রচলন বহু যুগ ধরে কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রয়েছে। উৎকর্ষের বিচারেও তাদের ভূমিকা অগ্রগণ্য। ওইসব প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষিত এই স্টুডেন্টস কাউন্সিলই আমাদের প্রেরণা দিয়েছে। তাই ক্যাম্পাস সংস্কারের এই গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত রূপায়ণে আমরা বদ্ধপরিকর। অর্থাৎ স্টুডেন্টস ইউনিয়নের বদলে স্টুডেন্টস কাউন্সিল। এটাও রাজ্যের এতকাল ধরে চলে আসা অচলায়তনে ধাক্কা। বিতর্ক উঠবে, ঝড় উঠবে। ফের একদল কায়েমি স্বার্থের সঙ্গে সংঘাত অনিবার্য। তা খুব বেশি হলে কালবৈশাখীর মতো কিছু বিশৃঙ্খলা আমদানি করে থেমে যাবে। ঝিমিয়ে পড়বে। কেননা প্রত্যেক পড়ুয়ার নেপথ্যে থাকে তার পরিবার-পরিজন। কলেজের ছাত্র সংসদের নামে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের যৌথ পর্ষদ অভিভাবক সমাজকেও স্বস্তি দেবে। ক্যাম্পাসে ছাত্র ভেকধারীদের কোনও ভূমিকাই থাকবে না। ফলে দীর্ঘকাল ধরে চলে আসা ওই তথাকথিত ছাত্র নেতারা বেকার হয়ে পড়বে।

নতুন ব্যবস্থায় গণতন্ত্র আরও সুদৃঢ় ও সুপ্রতিষ্ঠিত হবে প্রকৃত পড়ুয়াদের অংশগ্রহণে। নিয়মিত কলেজে আসা এবং ক্লাস করাটাই নেতা হওয়ার পূর্বশর্ত নতুন নিয়মে। প্রতি বিভাগেই শিক্ষকদের একজন নির্বাচিত কমিটির মাথায় থাকবেন। সমগ্র পর্ষদের শীর্ষে অধ্যক্ষ বা অধ্যাপক থাকবেন। কাউন্সিলের নির্বাচনে কোনও অবস্থাতেই একজন ছাত্র দু’বারের বেশি অংশ নিতে পারবে না। কাউন্সিলের মেয়াদকাল হবে দু’বছর। ফলে, একমাত্র পড়ুয়ারাই কাউন্সিলের পদাধিকারী হবে। নানা অছিলায় বছরের পর বছর কলেজে ছাত্র সংসদ কবজায় রেখে ক্যাম্পাস কলঙ্কিত করার রাস্তা বন্ধ। রাজ্য সরকারের প্রাথমিক লক্ষ শিক্ষার সম্প্রসারণ ও উৎকর্ষ বাড়ানো। মুখ্যমন্ত্রীর চেষ্টায় এক্ষেত্রে মেধাকে গুরুত্ব দিয়ে বিভিন্ন বৃত্তি চালু হয়েছে। তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহার ছাত্রসমাজে জনপ্রিয় করতে ইতিধ্যেই ব্যবস্থা নিয়েছে সরকার।

ভালো ছাত্র হওয়ার পাশাপাশি ভালো মানুষও হতে হবে। কাজটা কঠিন, কিন্তু অসাধ্য নয়। সমস্ত শিক্ষা সচেতন মানুষ-ছাত্রসমাজ-অভিভাবক-শিক্ষক ও অশিক্ষক কর্মীদের যৌথ প্রয়াসে এই উদ্যোগ সফল হবেই।


This article was first published on Bartaman dated August 20, 2017